রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিজামী সুস্থ : ট্রাইব্যুনালে কারা অধিদপ্তরের রিপোর্ট

Nijami১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধকালীন মানবতাবিরোধী অপরাধে জাড়িত থাকার অভিযোগে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে দায়ের করা মামলার রায়ের অপেক্ষায় থাকা জামায়াতে ইসলামীর আমির মতিউর রহমান নিজামী সুস্থ আছেন। গতকল বৃহস্পতিবার মানবতাবিরোধী অপরাধের বিচারের জন্য গঠিত আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন জমা দিয়েছে কারা অধিদপ্তর। তার বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলায় গত ২৪ জুন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রায় ঘোষণা করার কথা ছিল।
তবে কারাগারে অসুস্থ হয়ে পড়ার পর তার রায় পেছানোর আদেশ দেন এম ইনায়েতুর রহিম নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১। উচ্চ রক্তচাপজনিত কারণে আদালতে উপস্থিত হওয়ার শারীরিক সামর্থ্য নেই-  শেষ মুহূর্তে আসামিপক্ষের আইনজীবীদের এমন আবেদনের প্রেক্ষিতে আদালত রায় ঘোষণার তারিখ আবারও অপেক্ষমান (সিভিএ) রাখে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালের ডেপুটি রেজিস্ট্রার অরুনাভ চক্রবর্তী বলেন, কারা অধিদপ্তরের পাঠানো নিজামীর স্বাস্থ্য বিষয়ক প্রতিবেনে তাকে সুস্থ বলা হয়েছে। তিনি জানান, গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারগার থেকে ওই প্রতিবেদন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার অফিসে পাঠানো হয়েছে।
আদালত সূত্রে জানা যায়, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় হত্যা, লুট, ধর্ষণ, উসকানি ও সহায়তা, পরিকল্পনা ও ষড়যন্ত্র এবং বুদ্ধিজীবী হত্যার মতো ১৬টি অভিযোগে ২০১২ সালের ২৮ মে জামায়াত আমিরের বিচার শুরু হয়। ২০১৩ সালের ১৩ নভেম্বর বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীর নেতৃত্বাধীন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ নিজামীর মামলার রায় অপেক্ষমান রাখে।
তবে রায় দেয়ার আগেই ট্রাইব্যুনাল-১ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করে আসা বিচারপতি এ টিএম ফজলে কবীর গত বছরের ৩১ ডিসেম্বর অবসরে গেলে এ আদালতের বিচার কার্যক্রমে কার্যত স্থবিরতা তৈরি হয়। ঝুলে যায় নিজামীর রায়ও। পরে এবছরের ২৩ ফেব্রুয়ারি হাইকোর্টের বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমকে ওই ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান হিসাবে নিয়োগ দেয়া হয়।
দায়িত্ব নিয়ে আসামিপক্ষের আবেদনে গত ২৬ ফেব্রুয়ারি এ মামলার যুক্তিতর্ক আবার করতে আদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ এর নতুন এ চেয়ারম্যান। দ্বিতীয় দফা যুক্তিতর্ক শেষে গত ২৪ মার্চ নিজামীর যুদ্ধাপরাধের মামলা রায়ের জন্য অপেক্ষমান রাখে ট্রাইব্যুনাল। রায় লেখার পর গত ২৩ জুন রায়ের দিন ঘোষণা করে ট্রাইব্যুনাল। ওই ঘোষণা অনুসারে ২৪ জুন রায় দেয়ার দিন ধার্য ছিলো।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email