রবিবার ২২ মে ২০২২ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিরাপদ আশ্রয়ের সন্ধানে চিরিরবন্দরের মেধাবী মোসলেমা

মো. রফিকুল ইসলাম, চিরিরবন্দর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি: দিনাজপুরের চিরিরবন্দর উপজেলার মেধাবী ছাত্রী মোসলেমার স্বপ্ন ও আশা-আকাঙ্খা পুরনের জন্য এখন প্রয়োজন নিরাপদ আশ্রয়। কিন্তু কে দেবে তাকে নিরাপদ আশ্রয়। যা নিয়ে সে চিন্তিত ও ঘোর অন্ধকারে রয়েছে। সে কি এ দু:শ্চিন্তা ও ঘোর অন্ধকার থেকে নিস্কৃতি পাবে ?

জানা গেছে, উপজেলার আব্দুলপুর ইউনিয়নের দিঘারণ গ্রামের মৃত আব্দুল হামিদ ওরফে বায়ার ছোট কন্যা মোসলেমা খাতুন। লেখাপড়া করে বেলতলী বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ে। সে গত ২০১৩ সালে জেএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে। লাভ করে জিপিএ-৫। এরপরেও তাকে গ্রাস করেছে একরাশ দু:শ্চিন্তা। তার স্বপ্ন পুরনে কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে বাল্য বিয়ে নামক এক মহা অভিশাপ। বাল্য বিয়ে নামের অভিশাপের কারণে তার হৃদয়ের বুনা স্বপ্ন ও আশা-আকাঙ্খা পুরনের মনোবাসনা মস্নান হতে বসেছে। জেএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট বের হতে না হতেই মোসলেমার অমতে ও অজ্ঞাতে মাতা, খালা, ভাই-বোন ও ভগ্নিপতি মিলে পার্শ্ববর্তী এলাকার জনৈক পাত্রের সঙ্গে তার বিয়ে ঠিক করে। কৌশলে বিয়ের আসর থেকে পালিয়ে এসে সে আশ্রয় নেয় বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের বাড়িতে। প্রধান শিক্ষক তার মাতা, খালা, ভাই-বোন ও ভগ্নিপতিকে বুঝিয়ে তাকে বাড়িতে পাঠিয়ে দেয়। এতেও তার নিষ্কৃতি মিলেনি। এ বিয়েতে রাজী না হওয়ায় নেমে আসে তার উপর প্রচন্ড শারিরীক ও মানসিক নির্যাতনের খড়গ। পরিবার বন্ধ করে দিয়েছে তার লেখাপড়া।  কান্নাজড়িত কন্ঠে মোসলেমা জানায়, সে এ বাল্য বিয়ে করবে না। চালিয়ে যাবে লেখাপড়া। পুরন করবে তার মনের একান্ত ইচ্ছা। বাংলাদেশ মহিলা আইনজীবি সমিতি ও প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ’র প্রতিনিধিরা মোসলেমার বাড়িতে গিয়ে তার মায়ের সঙ্গে অনেক দেন-দরবার করেও বিষয়টির কোন কুল-কিনারা করতে পারেননি। এমতাবস্থায় মেধাবী মোসলেমার জীবনে নেমে এসেছে একরাশ অনামিশার ঘোর অন্ধকার। হারিয়ে যেতে বসেছে তার সব স্বপ্ন। বাল্য বিয়েতে রাজী না হয়ে সে ঢাকায় পাড়ি জমিয়েছে। এখানেও কি সে জয়ী হতে পারবে? এ অভিশাপ থেকে সে কি নিষ্কৃতি পাবে? সে সমাজের নিকট নিরাপদ আশ্রয় প্রার্থনা করছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email