শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনকালে জঙ্গিদের নাশকতার ছক ভেসেত্ম দিল পুলিশ

Indiaইন্টারন্যাশনাল ডেস্ক: ভারতে আসন্ন নির্বাচনকালে বড নাশকতা চালাবার ছক ছিল ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন সন্ত্রাসী গোষ্ঠীর দিল্লি পুলিশের বিশেষ স্কোয়াডের হাতে চারজন জঙ্গি ধরা পড়ায়, সেই ছক ভেসেত্ম গেছে এদের মধ্যে একজন পাকিসত্মানি নাগরিক বলে দাবি পুলিশের ভারতের নির্বাচনি প্রক্রিয়াকে রক্তাক্ত করে তোলার যে ছক কষেছিল পাকিসত্মানের মদৎপুষ্ট জঙ্গি সংগঠন ইন্ডিয়ান মুজাহিদিন, দিল্লি পুলিশের বিশেষ স্কোয়াডের তৎপরতায় তা গেছে ভেসেত্ম শনিবার সকালে রাজস্থানের আজমের রেল স্টেশনে দিল্লি পুলিশের এক বিশেষ সেলের হাতে ধরা পড়ে জিয়াউর রহমান ওরফে ওয়াকাস পুলিশের দাবি, ওয়াকাস পাকিসত্মানি নাগরিক তাকে জেরা করে পুলিশ রাজস্থানের জয়পুর ও যোধপুর শহর থেকে গ্রেপ্তার করে আরো তিনজনকে এদের আসত্মানায় তল্লাশি চালিয়ে উদ্ধার করা হয় প্রচুর পরিমাণ বিস্ফোরক, ডিটোনেটর, ইলেক্ট্রনিক সার্কিট, টাইমার ইত্যাদি এরপর তাদের দিল্লির আদালতে তোলা হলে, আদালত তাদের ১০ দিনের পুলিশি হেফাজতে রাখার নির্দেশ দেয় ভোটের সময় সহিংস হামলা হতে পারে বলে ভারতের গোয়েন্দা বিভাগ আগে থেকেই আশঙ্কা করেছিল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র দপ্তর সেজন্য প্রতিটি নির্বাচনি জনসভা, রোড-শো এবং বিভিন্ন নির্বাচনি কর্মসূচির দিকে বিশেষ নজরদারির নির্দেশ দেয় বিশেষ করে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী নরেন্দ্র মোদী, কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী, সহ-সভাপতি রাহুল গান্ধী, আম আদমি পাটির্র নেতা অরবিন্দ কেজরিওয়ালসহ বিশিষ্ট রাজনৈতিক নেতা-নেত্রীদের দিকে তবে জঙ্গি হামলার প্রধান নিশানা মোদী হতে পারে বলে মোদীর নিরাপত্তা  ব্যবস্থা ঢেলে সাজানো হয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সুশীল সিন্দের মতে, রাজিব গান্ধীর মতো মোদীর ওপরও আত্মঘাতি জঙ্গি হামলার আশঙ্কা উড়়য়ে দেবার মতো নয় এই আত্মঘাতি হামলা চালাতে পারে মোদীর সমর্থক সেজে কোনো জঙ্গি উল্লেখ্য, ১৯৯১ সালে তামিল টাইগার বা এলটিটিই সদস্য রা মানববোমা ব্যবহার করে রাজিব গান্ধীকে হত্যা করেছিল শুধু তাই নয়, পুলিশ সূত্রে জানা গেছে যে রাজস্থানের বিখ্যাত পর্যটনস্থল পুষ্করে বিদেশি পর্যটক, বিশেষ করে ইসরায়েলি পর্যটকরা এদের নিশানায় ছিল, যাতে ভারতে আসা পর্যটকদের মনে আতঙ্ক সৃষ্টি করা যায় এবং পর্যটক আসা বন্ধ হয়

 

কে এই জিয়াউর রহমান ওরফে ওয়াকাস? দিল্লি পুলিশের বিশেষ সেলের কমিশনার জানিয়েছেন, এক কৃষক পরিবারের সমত্মান ওয়াকাস পাকিসত্মানের পাঞ্জাব প্রদেশের বাসিন্দ৷ ২০১০ সালে নেপাল হয়ে সে ভারতে ঢোকে ইন্ডিয়ান মুজাহিদিনের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা রিয়াজ ভাটকলের নির্দেশে এবং ইন্ডিয়ান মুজাহিদিনের হয়ে কাজ করার জন্য কুখ্যাত জঙ্গি ওয়াকাস বোমা বানানোয় ওসত্মাদ নানা ধরনের বোমা বানাতে তাঁর জুড়ি মেলা ভার ২০১০ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে পাঁচটি বিস্ফোরণের সঙ্গে তার যুক্ত থাকার অকাট্য প্রমাণ আছে বলে পুলিশের দাবি দিল্লির জামা মসজিদ, বারাণসী, মুম্বই, পুণে ও হায়দ্রাবাদের ধারাবাহিক বিস্ফোরণের বড় চাঁই ছিল এই ওয়াকাস ভাটকল পুলিশের জালে ধরা পড়লে ওয়াকাস বিভিন্ন রাজ্যে গা ঢাকা দিয়ে থাকে গত শুক্রবার সে মুম্বই থেকে ট্রেনে করে আজমের স্টেশনে নামবে ু আগে থাকতেই এমন খবর পেয়ে পুলিশও ছিল তৈরি ওয়াকাসের অন্য তিনজন সঙ্গীর বয়স ২০ থেকে ২৫-এর মধ্যে এরা সকলেই ইঞ্জিনিয়ারিং-এর ছাত্র নিরাপত্তা গোয়েন্দা বিভাগ এবং জাতীয় তদমত্মকারী সংস্থা বা এনআইএ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলিও খুঁটিয়ে দেখছে এবং সেই মতো বিভিন্ন রাজ্যগুলিকে সতর্ক করে দিচ্ছে