শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনকে কলংকিত করে সরকার গঠিত হয়েছে- খালেদা জিয়া

Khaledaসোমবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আয়োজিত জনসভায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেন, গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে একটি কলংকিত সরকার গঠিত হয়েছে। গত  ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের পরে এটিই বিএনপির প্রথম গণসমাবেশ। ওই নির্বাচন  জনগণ ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছে- এমন দাবি করে  দেশের মানুষকে ধন্যবাদ জানান খালেদা জিয়া। সরকার দেশের হিন্দু সম্প্রদায়ের মানুষের নিরাপত্তা দিতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে।কিন্তু যৌথ বাহিনীর অভিযানের নামে দেশের মানুষের ওপর নির্যাতন চলছে।
খালেদা জিয়া বলেন, ৫ জানুয়ারির নির্বাচনের মাধ্যমে যে সরকার গঠিত হয়েছে,  সেটি কলংকিত সরকার। অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে আওয়ামী লীগকে জনপ্রিয়তা যাচাইয়ের আহ্বান জানান খালেদা জিয়া।

আওয়ামী লীগের উদ্দেশে তিনি বলেন, আপনারা আজীবন ক্ষমতায় থাকতে পারবেন না। শিগগিরই দেশের মানুষ আপনাদের বিদায় করবে। ভেবেছেন আমাদের ওপর হামলা-মামলা দিয়ে সরকারের মেয়াদ বাড়াবে। কিন্তু তা হবে না। এই সরকারের মেয়াদ খুবই ক্ষীণ, খুবই অল্প। অতি অল্প সময়ের মধ্যে এই সরকার বিদায় নেবে এবং জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠিত হবে।
আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকার ‘অস্ত্রের জোরে’ ক্ষমতায় রয়েছে। আলোচনার মাধ্যমে অবিলম্বে নতুন নির্বাচন দেয়ার দাবি জানিয়েছেন তিনি ।

প্রথম আলোর সেদিনের শিরোনাম পড়ে শুনিয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বলেন- নির্লজ্জ সরকারকে বলব, অবিলম্বে নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে নিজেদের জনপ্রিয়তা যাচাই করুন।

খালেদা জিয়া অভিযোগ করেন, নির্বাচনে মানুষের সমর্থন না পেয়ে ব্যর্থতা ঢাকতেই সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যতন করা হচ্ছে। হিন্দু ভাইদের বাড়িঘরে হামলা করছে, তাদের ওপর নির্যাতন করছে, বাড়িঘর ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা করছে, দখল করছে। সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার দায়দায়িত্ব সরকারের। সরকার ব্যর্থ হয়েছে নিরাপত্তা দিতে, হামলাকারীদের ধরতে। সরকার এখন ‘যৌথ অভিযানের নামে’ একর পর এক ‘হত্যা, গুম’ শুরু করেছে বলেও খালেদা অভিযোগ করেন।

বর্তমান নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো নির্বাচন সুষ্ঠু হতে পারে না মন্তব্য করে তিনি বলেন, যেখানে ৫ শতাংশ ভোটও পড়ে নাই, সেখানে এই নির্বাচন কমিশন তিন দিন সময় নিয়ে ৪০ শতাংশ ভোট দেখিয়েছে।

সরকারকে দুর্নীতিবাজ উল্লেখ করে তিনি বলেন, গত ৫ বছরে তারা এদেশের সম্পদ লুট করেছে। শেয়ারবাজার-ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে জনগণের টাকা তারা লুট করেছে। তাই এই দুর্নীতিবাজ সরকারে না নামাতে পারলে জনগণের কল্যাণ হবে না।

গত ২৯ ডিসেম্বরের ঘোষিত ‘মার্চ ফর ডেমোক্রেসি’ কর্মসূচির প্রসঙ্গ তুলে খালেদা জিয়া বলেন, “সারাদেশ থেকে জাতীয় পতাকা নিয়ে মানুষ ঢাকায় আসবে। সেই কর্মসূচির দুদিন আগে আমাকে বন্দি করে রাখা হয়। সরকার সব ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থা বন্ধ করে দেয়।
বর্তমান সরকারকে সম্পূর্ণ অবৈধ সরকার হিসেবে উল্লেখ করে সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া প্রশ্ন রেখে বলেন, “যারা জনগণের দ্বারা নির্বাচিত নন; তারা কীভাবে সংসদে বসবেন? গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য দ্রুত আলোচনা দরকার- একথা উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনাকে উদ্দেশ করে খালেদা জিয়া বলেন, “আজীবন ক্ষমতায় থাকার জন্য সংবিধান পরিবর্তন করেছেন। আপনি বলেছেন সংবিধান থেকে এক চুলও নড়বেন না। কিন্তু অনেক নড়েছেন। সংবিধান কাট-ছাঁট করেছেন।

এদিকে এই সমাবেশকে কেন্দ্র করে দুপুরের আগ থেকেই বিএনপি নেতাকর্মীরা সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে জড়ো হতে থাকে। খালেদা জিয়া পৌঁছানোর আগেই সোহরাওয়ার্দী উদ্যান কানায় কানায় পূর্ণ হয়ে যায়।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email