বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৯ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নির্বাচনে পরাজয়ে ভয়ে অংশ না নিয়ে খালেদা জিয়া মানুষ হত্যার রাজনীতি শুরু করেছেন :প্রধানমন্ত্রী

Pmপ্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সোমবার বিকেলে সাতক্ষীরা সরকারি উচ্চবিদ্যালয় মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় সাতক্ষীরাবাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেছেন, ‘নিজেদের শক্তির জোর বড় জোর। যেকোনো অবস্থায় সন্ত্রাসের মোকাবিলা করতে আপনারা নিজের শক্তি নিয়ে দাঁড়াবেন। আমরা আপনাদের পাশে আছি। যেকোনো সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড বন্ধ করব। সাতক্ষীরা আর রক্তাক্ত থাকবে না।’ বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার উদ্দেশে শেখ হাসিনা বলেন, যুদ্ধাপরাধীদের বাঁচানোর জন্য তিনি মানুষ খুন করেছেন। সাতক্ষীরাকে রক্তাক্ত করেছেন। যখনই দেশে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শুরু হয়েছে, ওনার মাথা খারাপ হয়ে গেছে।
আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিরোধী নেত্রী ব্যর্থতার আগুনে পুড়ে মরছেন। এখন সেই অশান্তির আগুনে তিনি দেশকে জ্বালাতে চান।

নির্বাচনে অংশ না নিয়ে খালেদা জিয়া যে ভুল করেছন তার খেসারত তাকেই দিতে হবে বলেও মন্তব্য করেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বাংলার মাটিতে সব ধর্ম-বর্ণের মানুষ সবার অধিকার নিয়ে বসবাস করবে। কারও হস্তক্ষেপ বরদাশত করা হবে না। যার যার ধর্ম সে সে শান্তিপূর্ণভাবে পালন করবে।

বাংলার মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর জন্য যদি বাবার মতো জীবন দিতে হয় তাতেও প্রস্তুত আছেন বলে জানান শেখ হাসিনা।

বক্তব্যে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী। এর পাশাপাশি তিনি বিরোধী দলের নেতার সমালোচনা করেন।
তিনি বলেন, ‘শত বাঁধা পেরিয়েও নির্বাচন হয়েছে। আমরা সরকার গঠন করেছি। আমরা আপনাদের পাশে আছি।’ তিনি বিএনপির নেতার উদ্দেশে বলেন, তিনি যেন মানুষের শান্তি নষ্ট না করেন। নির্বাচনে না এসে তিনি যে ভুল করেছেন তার খেসারত দিতে হবে। বাঁধা বিঘœ উপেক্ষা করে গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে ভোট দেয়ায় দেশের মানুষকে ধন্যবাদও জানান প্রধানমন্ত্রী।

সাতক্ষীরায় সাম্প্রতিক সহিংসতায় ক্ষতিগ্রস্তদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, যারা সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে জড়িত, যারা সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা চালিয়েছে, তাদের একজনও রেহাই পাবে না।

শেখ হাসিনা বলেন, জামায়াতের পক্ষ নিয়ে খালেদা জিয়া নির্বাচন বর্জন করেছেন। তিনি নির্বাচন প্রতিহত করার চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু পারেননি। দেশের মানুষ সব বাঁধা উপেক্ষা করে নির্বাচনে অংশ নিয়েছে।

বেলা সোয়া একটায় হেলিকপ্টারে করে প্রধানমন্ত্রী সাতক্ষীরায় পৌঁছান। এরপর আড়াইটা থেকে তিনি সাতক্ষীরা সার্কিট হাউসে জামায়াত-শিবিরের হামলায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন। সেখান থেকে  সাতক্ষীরা সরকারি বালক উচ্চবিদ্যালয় মাঠে গিয়ে আশাশুনিতে এতিম ছেলেমেয়েদের জন্য কারিগরি প্রশিক্ষণকেন্দ্র, কপোতাক্ষ নদ পুনঃখনন, তালা উপজেলার পাখিমারা বিলে টিআরএম কাজসহ সাতটি কাজের উদ্বোধন এবং পৌরসভার পানি শোধনাগার, সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ নির্মাণ প্রকল্পসহ চারটি উন্নয়নকাজের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় সাম্প্রতিক সহিংসতায় নিহত ১৬ জনের পরিবারসহ ১৫৪ জনের হাতে নগদ অর্থ সাহায্য তুলে দেন। আর যাঁদের ঘরবাড়ি ভেঙে দেওয়া হয়েছে, তাঁদের ঘরবাড়ি সরকারের পক্ষ থেকে পুনর্নির্মাণ করে দেওয়া কথা জানান।

Spread the love