শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নিহত আয়েশার পরিবারকে পুলিশ সুপারের শান্তনা

আকতার হোসেন বকুল, পাঁচবিবি (জয়পুরহাট) প্রতিনিধি ॥ ধর্ষণের পর শাস্বরোধে মেরে ফেলা মেধাবী কলেজ ছাত্রী আয়েশা সিদ্দিকার বাড়ি পরির্দশন ও তার পরিবারকে শান্তনা দেন জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ মাছুম আহম্মেদ ভুইয়া। এসময় নিহত আয়েশার ভাই-বোন পুলিশ সুপারের নিকট সঠিক বিচার দাবী করেন। রবিবার বিকালে আয়েশার সুরতহাল তদন্তের পর পারিবারিক কবরে দাফন করা হয়। এর একটু পরেই পুলিশ সুপার নিহত আয়েশার বাড়িতে আসেন এবং উপস্থিত সকলের উদ্যেশে বলেন, এমন অমানবিক হত্যাকান্ডের সঙ্গে যে ব্যাক্তিই জড়িত থাক পুলিশ তাদের গ্রেফতার করে আইনে আওতায় আবেন। ইতিমধ্যেই ঘটনার ২৪ ঘন্টায় মুল ঘাতক রনি ও জাহিদকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। পুলিশ সুপার আয়েশার পরিবারকে সকল প্রকার আইনী সহায়তা প্রদানের আশ্বাস দেন। আয়েশা যে রুমে হত্যাকান্ডের স্বীকার হন পুলিশ সুপার সরেজমিনে সেই রুমও পরির্দশন করেন। হত্যাকারীরা কিভাবে দেওয়াল টপকে বাড়িতে প্রবেশ করে ধর্ষণ ও হত্যাকান্ড ঘটায় পাঁচবিবি থানার ওসি পুলিশ সুপারকে ঘটনার বর্ননা দেন।

গত শুক্রবার রাতে জয়পুরহাটের পাঁচবিবির মাঝিনা গ্রামের মোজ্জামেল হকের মেয়ে জয়পুরহাট সরকারি কলেজের উদ্ভিদ বিভাগের অনার্স প্রথম বর্ষের মেধাবী ছাত্রী আয়শা সিদ্দিকাকে (২২ ) ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে। এ হত্যাকান্ডের সঙ্গে জড়িত মাঝিনা গ্রামের শ্রী সংকর মহন্তের ছেলে শ্রী রনি মহন্ত (৩০) ও খোরশেদ মন্ডলের ছেলে জাহিদ হাসান (৩২) গ্রেফতার করে পুলিশ।

ঘটনাস্থল পরির্দশনে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ( প্রশাসন ও অপরাধ) তরিকুল ইসলাম, পাঁচবিবির সিনিয়র সার্কেল অফিসার ইশতীয়াক আলম, পাঁচবিবি থানার অফিসার ইনচার্জ পলাশ চন্দ্র দেব, থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই সুশান্ত কুমার রায়, উপজেলা আ.লীগের সাধারন সম্পাদক ও কুসুম্বা ইউপি চেয়ারম্যান জিহাদ মন্ডল ও আটাপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু চৌধুরী।