বুধবার ২০ অক্টোবর ২০২১ ৪ঠা কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

নীলফামারীতে জোড়া লাগা দুই শিশু নিয়ে দুশ্চিন্তায় পরিবার

নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার ২৩ মাস বয়সী জোড়া লাগা দুইটি শিশু (লাবিবা-লামিসা) অনিশ্চয়তার মধ্যে বড় হচ্ছে। সন্তান নিয়ে যেখানে আনন্দে দিন কাটানোর কথা সেখানে মা-বাবার চোখ মুখে এখন দুশ্চিন্তা ও হতাশার ছাপ।

উপজেলার কৈমারী ইউনিয়নের যদুনাথ পাড়া এলাকার লাল মিয়া ও মনুফা বেগম দম্পতির একমাত্র চাওয়া চিকিৎসার মাধ্যমে জোড়া লাগা দুই শিশুকে আলাদা করে দেওয়া। কিন্তু অর্থের অভাবে তা হচ্ছে না।

স্থানীয়রা জানান, জন্মের পর থেকে বিভিন্ন হাসপাতালে ঘোরাঘুরি করেও স্বাভাবিক করতে পারেনি জোড়া লাগা এই দুই শিশুকে।

অভিভাবকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, জলঢাকা উপজেলা শহরের একটি ক্লিনিকে সিজারের মাধ্যমে জন্ম হয় এই জোড়া লাগা দুই শিশুর। স্বাভাবিক ভাবে জন্ম না নেয়ায় জোড়া শিশু হিসেবে বেড়ে উঠতে হচ্ছে তাদের। একজন হাটতে চাইলে, অন্যজন বসতে চায়। একজন খেতে চাইলে অন্যজন কাঁদে। একজন ঘুমাতে চাইলে তো অন্যজন চিৎকার করে। যতই দিন যাচ্ছে ততই তাদের নিয়ে শংকা ও হতাশা বাড়ছে পরিবারে মাঝে ।

লাবিবা-লামিসার দাদী ইলমা খাতুন বলেন, নাতনি দুটি জন্মেছে ঠিকই। তারা তো স্বাভাবিক নয়। চিকিৎসার মাধ্যমে তাদের আলাদা করতে হবে। এজন্য অনেক টাকা দরকার। আমরা গরীব মানুষ এতে টাকা পাব কই। অনেকে সহযোগিতা করেছেন। ঢাকা পর্যন্ত গিয়েছে চিকিৎসার জন্য। চিকিৎসাটা দ্রুত শেষ হওয়া দরকার। যেন তারা স্বাভাবিক ভাবে আলাদা হয়ে বেড়ে উঠতে পারে। এই শিশুদের নিয়ে আমরা অনেক কষ্টে দিন কাটাচ্ছি।

লাবিবা-লামিসার মা মনুফা বেগম বলেন, জন্মের পর থেকে কষ্টের শেষ নেই আমার। ঠিকমত ঘুমাতে পারি না। এদের সাথে সবসময় থাকতে হয়। একজন হাটতে চাইলে, অন্যজন বসে। একজন ঘুমাতে চাইলে আরেকজন বেরাতে চায়। একজন খায় তো আরেকজন কাঁদে। প্রতিটি দিন যে কিভাবে কাটে তা বলে শেষ করা যাবে না।

তিনি আরও বলেন, দুজনকে কোলে নিয়ে তো আর সবসময় বেরানো যায় না। সবার কোলেও যেতে চায় না। এখন তো ছোট আছে বড় হলে কি হবে এদের।

জানতে চাইলে জলঢাকা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হাসান বলেন, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে জোড়া শিশু দুটির চিকিৎসা কার্যক্রম শুরু হয়েছিল কিন্তু করোনার কারণে থমকে গেছে। কারণ এই শিশু দুটি চিকিৎসায় কয়েক রকম চিকিৎসক প্রয়োজন। তারা বোর্ড বসাবেন। আমি আবারো যোগাযোগ করার চেষ্টা করছি যাতে দ্রুত অপারেশন সম্ভব হয়।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email