শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪ ২৯শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নীলফামারীতে দিনদিন বেড়েই চলছে শীতের তীব্রতা থরথরে কাঁপছে এ অঞ্চেলর মানুষজন

মো: জাহাঙ্গীর আলম, ডিমলা (নীলফামারী) প্রতিনিধিঃ ভারতের হিমালয় পর্বতের চারদিক থেকে বৈশাখ মাসের কাল বৈশাখী ঝড়ের মতো ধেয়ে আসছে শীতের সাঁড়াশী আক্রমন। শৈত্যপ্রবাহ দিনদিন বেড়েই চলছে, আর থরথরে কাঁপছে উত্তর জনপথের মানুষজন। এই প্রচন্ড শীতের সামগ্রীক দাপটে আকাশ মেঘাচ্ছন্ন হয়ে যাওয়ার উত্তরী হিমেল হাওয়ার অবাধ গতির কারনে শীতের প্রকট আর হিমেল হাওয়ায় মানুষের শরীরে হাড় কাঁপানো কাঁপুনী ধরেছে। হিমালয় পর্বত কাছাকছি হওয়ায় উত্তরবঙ্গে শীতের দাপট বরাবরই বেশী থাকে। তার ব্যাতিক্রম এবারো ঘটেনি, তবে এবারের শীতের তীব্রতা গত কয়েক বৎসরের শীতের তুলনায় অনেক বেশি। বিশেষ করে নবগঠিত রংপুর বিভাগের নীলফামারী জেলা হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থান হওয়ায় সেখান থেকে নির্গত হিম শৈতপ্রবাহ আকারে প্রবাহিত হয়ে অতিঅল্প সময়ে এ অঞ্চলকে শীতল করে তুলে। হাড়কাঁপানো শীত ও কনকণে ঠান্ডায় থরথর করে কাঁপছে এই জনপদের মানুষজন। ্ত্রান ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা দপ্তর সুত্র মতে, রংপুর বিভাগের ৮ জেলায় কিছু শীতবস্ত্র বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। বরাদ্ধকৃত শীতবস্ত্র ইতিমধ্যে শীতার্থ মানুষের মাঝে বিতরন করা হয়েছে মর্মে সংশিষ্ট দপ্তর জানিয়েছে। ইতোমধ্যে সরকারের ত্রান ভান্ডার থেকে নীলফামারী জেলায় কম্বল পাঠানো হলেও তা DIMLA SIT.1প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। এরমধ্যে নীলফামারী জেলার ডিমলা উপজেলার বিভিন্ন এলাকার শীতার্থদের মাঝে স্থানীয় সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা আফতাব উদ্দিন সরকারের ব্যক্তিগত তহবিল ও ত্রাণ ও পূর্ণবাসন অধিদপ্তর থেকে শীতবস্ত্র বিতরন করা হয়েছে। গতকাল রবিবার উত্তরবঙ্গের সর্বনিম্ন তাপমাত্র রেকর্ড করে আবহাওয়া অফিস জানায়, নীলফামারীর ডিমলায় ৮.৫ ডিগ্রী সেলসিয়াস। তবে আবহাওয়া অফিসের দেয়া তথ্যের চেয়েও আরো কম বলে মনে করছেন, নীলফামারীর হিমালয় ঘেষা ডিমলা উপজেলার সাধারণ মানুষজন। শীতের দাপটে বিকাল নামতে নামতে শুরু হয়ে যায় শীতের তীব্রতা রাত যতই গভীর হয় শীতের তীব্রতা ততই বাড়তে থাকে। গত তিনদিন ধরে শীতের অতিম্ত্রাার আক্রমনে একটু উষ্ণতার জন্য এ অঞ্চলের গরিব অসহায় মানুষগুলির আগুনের পরশমনিই ছিল একমাত্র আশা ভরসা। ডিমলার তিস্তাসহ বিভিন্ন নদীর চর এলাকায় স্বরে-জমিনে গিয়ে দেখা যায়, আগুনের কুন্ডলী জ্বালিয়ে শীত নিবারন করার চেষ্টা করছে অসহায় পরিবারগুলো। শীত বস্ত্রের অভাবে বিপাকে উত্তরের অসহায় জনগোষ্ঠী। সব থেকে বেশী বিপাকে পড়েছে সহায় সম্বলহীন হতদরিদ্র পরিবারগুলো। শীতের পুরানো গরম কাপড়ের হাটে শুরু হয়েছে উপচে পড়া ভিড়। এ ছাড়া শীতজনিত রোগে বয়স্কো ও শিশুদের DIMLA SIT.2নিউমোনিয়া, হাঁপানী, ক্লোড ডাইরিয়া, কাশিতে আক্রান্ত হয়ে পড়ছে। জেলা, উপজেলা থেকে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতিদিন বেড়েই চলছে রোগির সংখ্যা। সুত্রমতে রংপুর বিভাগে কনকনে শীতের কারনে সৃষ্ট নিউমোনিয়া রোগে শিশু মৃত্যু ও আক্রান্তের সংখ্যা দিনদিন বেড়েই চলছে।

Spread the love