সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নেদারল্যান্ডস-আর্জেন্টিনা আরেকটি দ্বৈরথ

01 Messiবিশ্বকাপে আর্জেন্টিনা-নেদারল্যান্ডসের অতীত ইতিহাস ফুটবল রোমাঞ্চপিয়াসীদের নড়েচড়ে বসতে বলছে। আজ সাও পাওলোয় এই দুই দলের সেমি-ফাইনালে লিওনেল মেসি আর রবিন ফন পেসির্র লড়াইয়ে মধ্য দিয়ে আরেকটা ধ্রম্নপদী দ্বৈরথেরই আশা করছে তারা। এর আগে বিশ্বকাপে চার বার সাক্ষাৎ হয়েছে আর্জেন্টিনা-নেদারল্যান্ডসের। চারটি ম্যাচই ফুটবলপিপাসুদের উপহার দিয়েছে ছন্দময় ফুটবল আর রোমাঞ্চকর অনুভূতি।  ১৯৯৮ বিশ্বকাপের কোয়ার্টার-ফাইনালে ব্যক্তিগত নৈপূন্যের ঝলক দেখিয়েছিলেন ডেনিস বার্গকাম্প। তার অনিন্দ্যসুন্দর এক গোলে জয় পেয়েছিল ডাচরা। হেরে গেলেও রোমাঞ্চকর ফুটবল উপহার দিয়েছিল আর্জেন্টিনাও।  দুই দলের প্রথম বিশ্বকাপ-সাক্ষাৎ ১৯৭৪ সালে। দলীয় দক্ষতার অসাধারণ এক উদাহরণ রেখে সেই ম্যাচে ৪-০ গোলে জিতেছিল ‘টোটাল ফুটবলের’ দেশটি। কিংবদন্তি ক্রুইফের জোড়া গোল যেমন ওই ম্যাচে ব্যক্তিগত নৈপূন্যের উদাহরণ, তেমনি চোখ-ধাঁধানো পাসিং ফুটবল ছিল দলীয় খেলার দারুণ এক দৃষ্টান্ত।  ১৯৭৮ সালে দেশের মাটিতে বদলা নেয় আর্জেন্টিনা। অসাধারণ ফুটবল উপহার দিয়ে ডাচদের ৩-১ গোলে হারায় তারা।  তবে বিশ্বকাপে দুই দলের সবশেষ ম্যাচটি হয়ত ফুটবল বিশ্ব ভুলে গিয়েই থাকবে। ২০০৬ বিশ্বকাপের সেই ম্যাচটি ছিল গ্রম্নপ পর্বে দুই দলের শেষ ম্যাচ। নকআউটে উঠে যাওয়া দুই দলের ম্যাচটি গোলশূন্য ড্র হয়েছিল।  স্বাগতিক ব্রাজিল যেমন ১৯৫৮ আর ১৯৭০ বিশ্বকাপে তাদের দল আর সুন্দর ফুটবল নিয়ে গর্ব করে, ডাচদেরও তেমনি গবের্র কিছু আছে। আর সেটা সত্তরের দশকে রাইনাস মিশেলের সৃষ্টি ‘টোটাল ফুটবল’। ১৯৭৪ বিশ্বকাপে জার্মানির গেলজেনকির্চেনে আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ক্রুইফরা যেন সুন্দর ফুটবলের পসরা মেলে ধরেছিলেন।  চার বছর পর আর্জেন্টিনা স্ট্রাইকার মারিও কেম্পেসে ভর করেই এর শোধ তোলে। চার বছর আগে বেঞ্চে বসে দলকে গুড়িয়ে যেতে দেখা কেম্পেসই ১৯৭৮ সালে ডাচদের বিপক্ষে গোলের সূচনা করেন।  নির্ধারিত ৯০ মিনিটের শেষ মুহূর্তে সমতায় ফেরে ডাচরা। কিন্তু কেম্পেস আবার এগিয়ে দেন দলকে। এর পর ৩-১ গোলের জয়ে তৃতীয় গোলটিতেও অবদান রাখেন তিনি।  ২০ বছর আগে বিশ্বকাপে দুই দলের তৃতীয় সাক্ষাতে ডাচ দলের স্ট্রাইকার প্যাট্রিক ক্লুইভার্ট এবার ফন পের্সি-রবেনদের সহকারী কোচ। ১৯৯৮ বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার জালে গোলের সূচনা তিনিই করেছিলেন। এর পর ছিল ম্যাচের শেষ মুহূর্তে বার্গক্যাম্পের ঝলকানি।  ব্রাজিল বিশ্বকাপে ঝলক দেখিয়ে যাচ্ছেন আর্জেন্টিনার মেসি আর ডাচদের ফন পের্সি। ৫ ম্যাচ খেলে ৪ গোল করেন মেসি। একটি গোলে রাখেন অবদান। ফন পের্সি গোল করেন ৩টি। তবে স্পেনের বিপক্ষে হেড থেকে করা গোলটি আছে বিশ্বকাপের সেরা গোল হওয়ার দৌড়ে। ফুটবল রোমাঞ্চপিয়াসীদের স্মৃতি তাই আবার জাগছে। আরেকটি ধ্রম্নপদী দ্বৈরথের রোমাঞ্চে ডুব দেয়ার স্বপ্ন দেখছে তারা। ভাগ্য তাদের হয়ত সেই সুযোগ দিচ্ছে। মেসি আর ফন পের্সি তো মাঠে থাকছেন আজকের সেমি-ফাইনালে।