রবিবার ১৪ অগাস্ট ২০২২ ৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

নৌ প্রতিমন্ত্রীর চিকিৎসার অনুদান পেলেন অসহায় বীরঙ্গনা ইদু মাস্টারনি খ্যাত শিক্ষিকা

মোঃ ইউসুফ আলী, দিনাজপুর প্রতিনিধি ॥ দিনাজপুর শহরের পাক পাহাড়পুর মহল্লার মরহুম মোঃ লালুর সহ ধর্মিনী বীরঙ্গনা হাসিনা বানু (৮৫) (ইদু মাস্টারনি) কে নগদ অর্থ ও গৃহ নির্মাণ করে দিয়েছেন নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী ও দিনাজপুর-২ (বিরল-বোচাগঞ্জ) আসনের সংসদ সদস্য খালিদ মাহমুদ চৌধুরী। ২৫ জুন ২০২২ শনিবার নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রীর পক্ষে বীরঙ্গনা হাসিনা বানুকে চিকিৎসার জন্য নগদ ২০ হাজার টাকা তুলে দিলেন দিনাজপুর শহর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক ও জেলা যুবলীগের প্রস্তাবিত কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ রায়হান শিমুল। অসহায় হাসিনা বানু বর্তমানে তার ভাগিনা মনোয়ার আলী মানুর বাসায় বসবাস করছেন। ইতিপূর্বে হাসিনা বানু ২-৩ বার হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বাড়িতে ফিরে আসেন। বর্তমানে তিনি অসুস্থ্য অবস্থায় বাড়িতেই বসবাস করছেন। হাসিনা বানুর এক ছেলে মাহবুব আলী ঢাকায় বসবাস করেন। বীরঙ্গনা হাসিনা বানুর বিষয়ে নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি খোঁজ খবর নেওয়ার জন্য দিনাজপুর শহর ছাত্রলীগের যুগ্ম আহবায়ক ফরহাদ রায়হান শিমুলকে দায়িত্ব দেন।
উল্লেখ্য ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধে নির্যাতিতা ইদু মাস্টারনি খ্যাত শিক্ষিকা এখন ভিক্ষুক, দিনাজপুর পৌরসভায় বসবাসরত একাত্তরের নির্যাতিত এবং সর্বস্য হারানো ইদু মাস্টারনি সকলের পরিচিত মুখ। সবাই তাকে ইদু মাস্টারনি বলে চিনলেও তার পুরো নাম – হাসিনা বানু । হাসিনা বানু বা ইদু মাস্টারনির বয়স ৮৫ বছরের উর্ধ্বে। এখন তেমন একটা তিনি হাটতে বা চলাফেরা করতে পারেন না। তবে আশ্চর্যের বিষয় অসহায় ইদু মাস্টারনি কারো কাছে হাত পেতে কখনোই সাহায্য চান না, এমনকি কারো দিকে তাকিয়েও সাহায্য ও করুনার দৃষ্টি নিক্ষেপ করেন না। কেউ সাহায্য দিলে তিনি সেটি গ্রহণ করেন। দীর্ঘদিন পূর্বে তিনি রুটিন করে প্রতিদিন সকাল ৮ টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত দিনাজপুর সদর হাসপাতালের সম্মুখে দিলশাদ হোটেলের পাশেই বসে থাকতেন। হয়তো এটি তার স্মৃতিধন্য স্থান বলেই এখানে রোজ সময়মত বসেন। হাসিনা বানুর ভাগিনা মনোয়ার আলী মানু জানান, তৎকালীন মুন্সিপাড়ায় আমার খালা বসবাস করতেন। ইদু মাস্টারনি যেন একাত্তরের বিভীষিকাকে বুকে নিয়েই সদর হাসপাতালের সামনে রোজ আসেন। বিকেল ৪ টা থেকে রাত ৮ টা পর্যন্ত লিলি মোড়ে বসে থাকতেন। বাড়ি ফেরার পথে শহরের পাক পাহাড়পুরে শান্তির মুদির দোকানের পাশে আধা ঘন্টা থেকে এক ঘন্টা পর্যন্ত বসে থাকবেন। তিনি বেশির ভাগ সময়ই একা একা কখনো বাংলায় আবার কখনও ইংরেজিতে কি যেন বিড়বিড় করে বলতেই থাকেন। তবে কথা বললে তিনি একটি কথা স্পষ্টভাবেই বলেন – “আমার নামে আপনারা একটা দরখাস্ত লিখে দিবেন তো”। ইদু মাস্টারনি বা হাসিনা বানু একজন উচ্চ শিক্ষিত নারী। তিনি স্বাধীনতার পূর্বে দিনাজপুর হাই মাদ্রাসা-কাম-হাই স্কুল, (অধুনা যা দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয়), এখানেই সহকারী শিক্ষিকা হিসেবে চাকুরি করেছেন। ১৯৭১ সালে যুদ্ধকালীণ সময়ে হাসিনা বানু বা ইদু মাস্টারনি দিনাজপুর সদর হাসপাতালে নার্স হিসেবে চাকুরীরত ছিলেন। এসময়েই তার জীবনে নেমে আসে চরম বিপর্যয়। ইদু মাস্টারনি ১৯৭১ সালে হারান তাঁর স্বামীসহ তিন সন্তানকে। ইদু মাস্টারনির সেই সময়ের পুত্র সন্তানেরা হলো; তপন (১৪), স্বপন (১১) এবং কুপন (৮)। ১৯৭১ সালের এপ্রিল মাসের তৃতীয় সপ্তাহের কোনো একটি দিনে বিহারি রজাকাররা ইদু মাস্টারনিকে জোর করে ধরে নিয়ে যায় খান সেনাদের কাছে। এ সময়টি ছিল দিনাজপুরের যুদ্ধকালীণ ইতিহাসের চরমতম সময়। সবেমাত্র মুক্ত দিনাজপুরকে পাকিস্তানি বাহিনী তাদের নিয়ন্ত্রণে নিয়েছে, ফলে পাকিস্তানি হায়েনারা ছিল হায়েনার চেয়েও হিংস্র এবং নিষ্ঠুর। দিনাজপুরে চলে এলাপাতাড়ি হত্যা-নির্যাতন এবং পাশবিক উল্লাস। সেদিন ধরে আনা ইদু মাস্টারনির সাথেই ছিল তার দুই শিশুসন্তান স্বপন (১১) এবং কুপন ( ৮) । শিক্ষিত নারী হয়ে তিনি স্কুলে এবং পরে হাসপাতালে চাকরি করতেন এটাও ছিল তার অপরাধ। তাছাড়া বাইরে বাইরে বাসায় গিয়ে তিনি টিউশনিও করাতেন। সেসময় বাচ্চা দু’টি বাধার কারণ হওয়াতে খান সেনারা স্বপন ও কুপনকে জোর করে ইদু মাস্টারনির বুক থেকে ছিনিয়ে নিয়ে তার চোখের সামনেই ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে কয়েক টুকরা করে ফেলে। এ এক হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা করে। মাতৃ -শিক্ষক ইদু মাস্টারনি তার সন্তানদের বাঁচাতে এগিয়ে এলে খান সেনারা তাকেও রাইফেলের বায়োনেট ও বাট দিয়ে মাথাসহ সমস্ত শরীরে উপর্যুপরি একাধারে মারাত্মকভাবে আঘাত ও বায়োনেট চার্জ করতেই থাকে তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। এক সময় পাকিস্তানি হায়েনারা ইদু মাস্টারনির মৃত্যু নিশ্চিত মনে করে তাকে ট্রাকে করে দিনাজপুরের বধ্যভূমি কাঞ্চন নদীর পাড়ে ফেলে দেয়। কিন্তু “রাখে আল্লাহ মারে কে” জ্ঞান ফিরে অনেকটা বিবস্ত্র ও রক্তাক্ত শরীর নিয়েই ইদু মাস্টারনি হামাগুড়ি দিয়ে শেষরাতের দিকে তার পাহাড়পুরের বাসায় পৌঁছে গোঙ্গাতে থাকলে তার বোন তাকে ঘরে নিয়ে তার শরীরের জমাটবাধা রক্ত, বালু ও কাদা পরিস্কার করে তাকে অতি গোপনে পশ্চিমবঙ্গের বালুরঘাট হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করিয়ে দেন। হাসপাতালে ভর্তির পর ইদু মাস্টারনীর খোঁজ আর কেউ রাখেনি। পরিবারের লোকজন ভারতের শরনার্থী শিবিরে আশ্রয় নিয়ে তারা প্রাণে রক্ষা পেয়েছিলেন বলে জানা যায়। সেসময়ে তার স্বামী এবং তার বড় সন্তান তপনকে সঙ্গে নিয়ে ভারতের উদ্দেশ্য রওয়ানা হয়েছিল সত্য, কিন্তু তারা আর দেশে ফিরে আসেনি। হয়তো পালানোর সময়ে তারা খান সেনাদের দ্বারা ধৃত হয়ে নিহত হয়েছেন, নতুবা ভারতের শরনার্থী শিবিরেই কলেরা বা ডাইরিয়ায় মারা গেছেন। তাদের আর কোন হদিশ পাওয়া যায়নি। এরপর সুস্থ্য হয়ে স্বাধীনাত্তোর ইদু মাস্টারনি দেশে ফেরেন। এসে স্বামী সন্তানকে না পেয়ে তিনি প্রায় অপ্রকৃতিস্থ হয়ে পড়েন। দীর্ঘ ৫০ বছর তিনি অনেকটা সংগ্রাম করেই বেঁচে আছেন এ মহিয়সী শিক্ষক। আগেই বলেছি হাসিনা বানু ওরফে ইদু একজন শিক্ষিতা নারী। স্বাধীনতার পূর্বে তিনি দিনাজপুর শহরের হাই মাদ্রাসা-কাম-হাই স্কুলের সহকারী শিক্ষিকা ছিলেন অধুনা যা দিনাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় । ১৯৭০ সাল থেকে তিনি দিনাজপুর সদর হাসপাতালের নার্স হিসেবে চাকুরীরত ছিলেন। চাকুরী জীবনের পূর্বে হাসিনা বানু ওরফে ইুদু মাস্টারনি নামীদামী স্কুলের ছেলেমেয়েদের বাসায় গিয়ে টিউশনি পড়াতেন। তিনি খুব ধৈর্য সহকারে ও পরম মমতা দিয়েই শিক্ষার্থীদের পড়াতেন। আদর্শ ও নীতিবান শিক্ষিকা হিসেবে সেসময় তার নামডাক ছিল শহর জুড়ে। তিনি দেখতেও বেশ সুদর্শনী ছিলেন। কিন্তু ভাগ্যের কি নির্মম পরিহাস! পাকিস্তানি খান সেনারা যেই মার বুক থেকে সন্তানদের ছিনিয়ে নিয়ে চোখের সামনে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে টুকরা টুকরা করে হত্যা করেছে, যেই মা তার সন্তানদের বাঁচাতে গিয়ে যাকে নির্মমভাবে রাইফেলের বায়োনেট ও বাট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা নিশ্চিত মনে করে যার লাশ কাঞ্চন নদীর পাড়ে ফেলে দিয়েছিল। কিন্তু সৌভাগ্যক্রমে সেই হাসিনা বানু ওরফে ইদু মাস্টারনি প্রানে বেঁচে গিয়েছেন সত্য, কিন্তু তিনি ৮৫ বছরেরও উর্ধে হওয়া সত্বেও তাকে আজবধি বয়স্কভাতা প্রদান করা হয়নি। হাসিনা বানুর ভাগিনা মনোয়ার আলী মানু জানান, পৌর কাউন্সিলর ও জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে সাহায্যের জন্য আবেদন করা হলেও কোন সুফল পাওয়া যায়নি। ভাগিনার কথামত ওই বাড়িতেই টিন সেড ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email