বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

ন্যায্য দাম না পেয়ে বীরগঞ্জে রাস্তায় আলু ফেলে কৃষকদের প্রতিবাদ ও সড়ক অবরোধ

Birganj Potatoবীরগঞ্জ (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ আবারও সর্বশান্ত হয়েছেন আলু চাষীরা। কিছু দিন আগে আলু নিয়ে কৃষক আর ব্যবসায়ীদের করুণ আকুতি দেশের মানুষকে বেশ নাড়া দিয়েছিল। আবারও সেই আলু চাষীদের স্বপ্ন ভেঙ্গে চুরমার হয়ে গেছে। নায্য দাম না পেয়ে অবশেষে রাজপথে নেমে এসেছে আলু চাষীরা।

গত বুধবার সকাল ১১টায় উপজেলায় আলু চাষী সংগ্রাম পরিষদের ব্যানারে পৌর শহরের পুরাতন শহীদ মিনার মোড়ে শতাধিক চাষী রাস্তায় ২০ বস্তা আলু ফেলে দিয়ে প্রতিবাদ জানায়। তারা রাস্তায় ফেলে দেওয়া আলুর উপর শুয়ে পড়ে দিনাজপুর-পঞ্চগড় মহাসড়ক প্রায় ১ ঘন্টা অবরোধ করে রাখে।

এ সময় আলু চাষী সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক মোঃ ফারুক হোসাইনের সভাপতিত্বে এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, আলু চাষী সংগ্রাম পরিষদের সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম মিঠু, নিজপাড়া ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামের আলু চাষী মোঃ আলীমুদ্দিন, শম্ভুগাঁও গ্রামের মোঃ ইউসুফ আলী, ভোগনগর ইউনিয়নের ভোগনগর গ্রামের মোঃ রফিকুল ইসলাম,পাল্টাপুর ইউনিয়নের সাদুল্লাপাড়া গ্রামের মোঃ আব্দুস সালাম, সাতোর ইউনিয়নের প্রাণনগর গ্রামের আলু চাষী মোঃ আব্দুর রশিদ প্রমুখ।

উপজেলা সাতোর ইউনিয়নের প্রাণনগর গ্রামের আলু চাষী মোঃ আব্দুর রশিদ আক্ষেপ করে জানালেন অনেক স্বপ্ন নিয়ে সমিতি এবং এনজিও হতে ঋণ গ্রহণ করে ১একর জমি ৮হাজার টাকায় চুক্তিতে আলু চাষ করেছিলেন তিনি। ১ একর জমিতে সার, বীজ, কীটনাশক ও কৃষি শ্রমিকের মজুরী সহ খরচ হয়েছে ৫৫হাজার ২শত টাকা। ২ টাকা কেজি দরে আলু বিক্রয় আয় হয়েছে মাত্র টাকা। জমি চুক্তি ও কৃষি উপকরণ এবং শ্রমিকের মজুরী সহ সর্বমোট ব্যয় হয়েছে ৬৩হাজার ২শত টাকা। ১ একর জমিতে আলু আবাদ হয়েছে ৮হাজার কেজি। ১টাকা ৮০পয়সা কেজি দরে ৮হাজার কেজি আলু বিক্রি করেছে ১৪ হাজার ৪ শত টাকায়। জমির মালিককে ৮হাজার টাকা পরিশোধ করে অবশিষ্ট আছে মাত্র ৬হাজার ৪শত টাকা। এখন ঋণ পরিশোধ করার ভয়ে নিজেকে অনেকটা আড়াল করে রেখেছেন। এ কথাগুলো বলতে বলতে তিনি কেঁদে ফেলেন।

নিজপাড়া ইউনিয়নের দেবীপুর গ্রামের আলু চাষী মোঃ আলীমুদ্দিন জানান, ৩ একর আলু চাষ করেছি। খরচ হয়েছে ১ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। কিন্তু দাম না থাকায় ক্ষেতেই আলু পড়ে আছে। পাইকার এসে ৩ একর আলু ১০ হাজার টাকা বলে গেছে। তাই আলু তুলে নিয়ে এসে রাস্তায় ফেলে দিলাম। দেশবাসী জানুক আলু চাষী কৃষকেরা কেমন কষ্টে আছে।

সমাবেশ শেষে ৫ দফা দাবিতে প্রধানমন্ত্রী বরাবরে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ আবু জাফরের নিকট স্মারকলিপি প্রদান করেন আন্দোলনরত কৃষকেরা।

 

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, উপজেলায় ৬ হাজার ৬ শত ২০ হেক্টর জমিতে আলু আবাদের লক্ষ্য মাত্রা ছিল। উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা ছিল ১ লক্ষ ৩০ হাজার ১ শত ৪৫ মে.টন। আলুর মোট আবাদ হয়েছে ১০হাজার ১ শত ২০ হেক্টর জমিতে। এবার ফলন ভালো হওয়ায় ১ লক্ষ ৯৮হাজার ৩ শত ৫২ মে.টন আলু উৎপাদন হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন কৃষি বিভাগ।

আলু সংরক্ষণের জন্য উপজেলার সুজালপুর ইউনিয়নের হাবলু হাটে ৮ হাজার মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন শাহী হিমাগার, চাকাই গ্রামে ৮ হাজার ৮ শত মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন হিমাদ্রি লিমিটেড, সাতোর ইউনিয়নের দলুয়া গ্রামে ৭ হাজার ৫ শত মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন শাহী হিমাগার, ভোগনগর ইউনিয়নের বটতলী গ্রামে ১১ হাজার মে.টন ধারণ ক্ষমতা সম্পন্ন রাহবার হিমাগারসহ মোট ৪ হিমাগার রয়েছে।

উপজেলা কৃষি অফিসার নিখিল চন্দ্র বিশ্বাস জানান, উপজেলায় এবার রেকর্ড পরিমান আলু চাষ বৃদ্ধি পেয়েছে। ছাড়িয়ে গেছে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা। এর সাথে যোগ হয়েছে দেশের সাম্প্রতিক কালে রাজনৈতিক অস্থিরতার। রাজনৈতিক সহিংস পরিস্থিতির কারণে ঝুকিতে পড়েছে ব্যবসায়ী। তাই ব্যবসায়ীরা সর্তকতার সাথে ব্যবসায়ে বিনিয়োগ করছেন। এর প্রভাব পড়েছে বাজারে। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন আলু চাষীরা । কিন্তু কৃষককেরা যেন ক্ষতিগ্রস্থ না হয় সে বিষয়ে সরকার এবং কৃষি বিভাগ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email