বৃহস্পতিবার ৬ অক্টোবর ২০২২ ২১শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঙ্গুত্ব নিয়ে রাবিতে তুহিন

সাজিদ মানিক, মোস্তা্ফিজ মিশু ও মেহেদী হাসান

sabash2দুপুর ১২টা। রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের টুকিটাকি চত্বরে শিক্ষার্থীদের উপচে পড়া ভিড়। নানা জনের মুখে নান কথা। দেখে বুঝার অবস্থা নাই যে কি হচ্ছে সেখানে। শুনে বুঝার মত কোন কৌশল নেই যে বুঝা যায়।

কি হচ্ছে সেখানে? এমন প্রশ্ন জন্ম নেওয়ার সাথে সাথে আবারো শিক্ষার্থীদের হইহুল্লড়। ভির ঠেলে ভেতরে প্রবেশ করে দেখা যায় শিবিরের হামলায় আহত বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক এস.এম.তৌহিদ আল হোসেন তুহিনকে ঘিরে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ নেতা-কর্মীদের এক আনন্দ মেলা। শিবিরের হামলায় আহত হওয়ার পর তাদের প্রাণপ্রিয় নেতা আবারো ক্যাম্পাসে ফিরে এসেছে।

কে বলবে এ সেই তুহিন-যার বিশাল দেহটা সবসময় ক্যাম্পাসের এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় ঘুরে বেড়াত। শিবিরকে প্রতিহত করতে যিনি প্রায় নেতা-কর্মীদেরকে সাথে নিয়ে ক্যাম্পাসে শোডাউন দিতেন, ঘুরে বেড়াতেন সবসময়। সামান্য একটু মারামারি লাগতেই যার দুই হাতে দেখা যেত দুই দুইটি পিস্তুল, আর সেনেমা স্টাইলে গোলাগুলি করা ও মারিামারি করা। মারামারি শেষে আবারো তার নেতৃত্বে ক্যাম্পাসে প্রতিবাদি মিছিল।

হামলার তিন মাসের ব্যবধানে একেবারেই বদলে গেছেন তুহিন। ছাত্ররাজনীতি যেন তাকে প্রতিটি মহুর্তে কুড়ে কুড়ে খাচ্ছে-তাই আর তার সম্বন্ধে ভালোমন্দ জিজ্ঞাসা করার দরকার হয় না। বিশাল দেহটা যেন শুকিয়ে শুকনা কাঠ হয়ে গেছে। ডান পায়ের ক্ষতটা এখনও শুকায়নি। বাম পায়ে ও ক্রাচে ভর করে কোন রকমে প্রয়োজনের তাগিদে একটু-আধটু চলতে হয়। ডান হাতের মধ্যমা এবং কনিষ্ঠ আঙুল কেটে ফেলতে হয়েছে। আর কখনও কলমটাও ধরতে পারবে না। ডাক্তার বলেছে, উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে যেতে হবে।

ক্যাম্পাসে ফিরে তার অনুভুতির কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন- প্রাণপ্রিয় এই ক্যাম্পাসে ফিরে দীর্ঘ তিন মাসের সব বেদনা ভুলে গেছি। নেতাকর্মীদের ভালোবাসায় আমি আপ্লুতো। এরকম অবস্থায় না পড়লে তাদের ভালোবাসার জায়গাটা বুঝতে পারতাম না। ক্যাম্পাসে যেকোন মূল্যে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা শিবিরকে প্রতিরোধ করতে প্রস্তুত বলেও জানান তুহিন।

হামলার ভয়াবহতা সম্পর্কে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘ওদের হামলা ছিল খুবই ভয়াবহ এবং নৃশংস।’ হাসপাতালে থাকার স্মৃতি চারণ করতে গিয়ে তিনি বলেন, আহত হয়ে পড়ে থাকা একাকি দিন গুলো ছিল সত্যিই খুব পীড়াদায়ক। যদিও দলের কেন্দ্রীয় নেতাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা সার্বক্ষণিক খোঁজ খবর নিয়েছেন। আমার পরিবারও আমাকে কোন সময় রাজনৈতিক কারণে অন্য দৃষ্টিতে দেখেনি। তবুও কেন জানি নিজের কাছে নিজেকে খুব অসহায় মনে হত।’

তুহিন ক্যাম্পাসে ফিরে এসেছে তাই আবারো মুখরিত ছাত্রলীগ-ফেসবুকে এমনি স্টাটাস দিয়েছে রাবি ছাত্রলীগের সভাপতি মিজানুর রহমান রানা। ফোন করে সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক তুহিনের ফিরে আসা সমন্ধে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তুহিন সুস্থ হয়ে ক্যাম্পাসে ফেরায় নেতাকর্মীদের মাঝে প্রাণোচ্ছলভাব কাজ করছে। তবে প্রশাসন এখনও হামলাকারীদের গ্রেফতার তো দুরের কথা চিহ্নিত করতেও পারেনি। যা খুবই দুঃখজনক। আমরা অবিলম্বে এই নৃশংস হামলার সাথে জড়িত শিবির ক্যাডারদের দ্রুত চিহ্নিত করে আইনের আওতায় নিয়ে এসে দৃষ্টান্তমুলক শাস্তির দাবি জানাচ্ছি।’

গত ২২ আগস্ট রাতে শোক দিবসের একটি অনুষ্ঠান শেষে নিজের হলে ফেরার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের আমির হল প্রাধ্যক্ষের বাসভবনের সামনে তুহিনের ওপর হামলা চালায় শিবির ক্যাডাররা। এসময় হামলাকারীরা তার মাথায় আঘাত করে এবং হাত ও পায়ের রগ কেটে দেয়। গুরুতর জখম তুহিনকে রাজশাহী মেডিকেলে নেয়া হয়। তার অবস্থার অবনতি হলে তাকে ওই রাতেই ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। এ মাসের ৭ তারিখে সেখান থেকে চিকিৎসকরা তাকে রিলিজ দেয়। তবে পরিপূর্ণ সুস্থ হতে তাকে দেশের বাইরে উন্নত চিকিৎসার জন্য পাঠানোর পরামর্শ দিয়েছেন তার চিকিৎসকরা।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে ক্যাম্পাসে আসেন তুহিন। পরে তাকে মাইক্রোতে করে নিয়ে ক্যাম্পাসে মহড়া দেয় ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা। তবে এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের নেতাকর্মীদের চেয়ে বহিরাগত নেতাদের সংখ্যাই বেশি দেখা গেছে।

-রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় হতে নাহিদ মাহমুদ

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email