শুক্রবার ২৭ জানুয়ারী ২০২৩ ১৩ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ের এক মুক্তিযোদ্ধা সার্টিফিকেট পেতে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন

Phancha ffনিজের কাজে কখনও মুক্তিযোদ্ধার সনদ চাননি পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলাধীন মির্জাপুর ইউনিয়নের ঝলঝলি গ্রামের মোঃ আব্দুল লতিফ। এখন তার বয়স ৭২ ছাড়িয়েছে। তিনি ৪ ছেলের জনক। রবিউল, রইসুল, রহিদুল ও রুবেল। রইসুল ডিগ্রীতে পড়ে। ছেলেদের আব্দার জীবন সায়াহ্নে মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় অন্তত ছেলেদের অথবা নাতী/নাতনী কে একটা চাকুরী পাইয়ে দিতে চান তিনি। তাই প্রয়োজন মুক্তিযোদ্ধা সনদ। তিনি ২০০৯ সালের ২৯ জুন প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ কন্টিনেন্টাল কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে আবেদন করে ছিলেন। তৎকালিন আটোয়ারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার গত ১২/০২/২০০৪ ইং স্মারকঃ বিবিধ/পাঁচ-৩২/২০০১/১৬০(৪২) আটোয়ারী উপজেলার কোন তালিকায় নাই এমন বীর মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই বাছাইয়ের জন্য ২২/০২/২০০৪ ইং তারিখে ৫ জন সহযোদ্ধা ও প্রয়োজনীয় কাগজপত্রসহ উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দিয়ে ছিলেন। উপস্থিত হয়েছিলেন মোঃ আব্দুল লতিফ মুক্তিযোদ্ধা তালিকা (অন্তভুক্তি) শিরোনামে মোঃ আব্দুল লতিফ, পিতা- মৃত- রহমত আলী, ঝলঝলি, মিজাপুর, আটোয়ারী নাম (অন্তভুক্তি) করে ইউএনও মহোদয় মন্ত্রনালয়ে পাঠিয়ে ছিলেন। সনদের জন্য আবেদন করা হয়েছে কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি।
সরজমিনে গিয়ে নিজের বাড়ীতে বসে অশ্রুসিক্ত চোখে মুক্তিযোদ্ধা সনদ পেতে বিড়ম্বনার কথা জানান মোঃ আব্দুল লতিফ। এ চিত্র একজন আব্দুল লতিফের নয়, এমন অসংখ্য আব্দুল লতিফ সারা বাংলাদেশে এমনকি মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়ের বারান্দায়ও খুঁজে পাওয়া যাবে। সর্বশেষ সনদের জন্য ৩১/০৩/২০১৪ ইং তারিখে মন্ত্রনালয়ে আবেদন করছেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল লতিফ। তিনি জানান, অর্থ এবং বয়স কোনটাই আমার নেই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কাছে বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে আমার শেষ আবেদন জীবিত অবস্থায় মুক্তিযোদ্ধা স্বীকৃতি চাই, মুক্তিযোদ্ধার সনদ চাই। মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত হয়ে অনেকেই সনদ নিয়েছেন কিন্তু আব্দুল লতিফ সরাসরি মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহন করেও সনদ না পাওয়া দু:খজনক।