রবিবার ২ অক্টোবর ২০২২ ১৭ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ের সমতল ভুমিতে চা চাষ

TREE PICTUREপঞ্চগড় থেকে ফিরে, নুরেহাবিব সোহেল,বোদা,(পঞ্চগড়) প্রতিনিধিঃ

দেশের উত্তর জনপদে হিমালয়ের পাদদেশে অবস্থিত জেলা পঞ্চগড়। ব্যাপক আবাদ, দার্জিলিং ভ্যারাইটির চা উৎপাদন ও অকশন মার্কের্টে পঞ্চগড়ের চায়ের চাহিদা বেশি হওয়ায় ইতোমধ্যে দেশের ৩য় চা অঞ্চল হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। পঞ্চগড়ের সমতল ভুমিতে চা চাষের সফলতা এলাকার দারিদ্র বিমোচন, আর্থসামাজিক অবস্থার উন্নয়নসহ সৃষ্টি করেছে হাজারও মানুষের কর্মসংস্থান। একদিকে দরিদ্র পরিবারগুলোর আর্থিক অস্বচ্ছলতা দুর হয়েছে। অন্যদিকে দেশের অর্থনীতিকে সমৃদ্ধ করেছে। পঞ্চগড় জেলায় ২০০০ সাল থেকে চা চাষ শুরু হয়। বর্তমানে জেলার তেতুলিয়া, সদর উপজেলা এবং আটোয়ারী উপজেলায় চা চাষ করা হচ্ছে। বাগান ভিত্তিক ছাড়াও ক্ষুদ্রায়তন ও ক্ষুদ্র চা চাষীরা নিজেরাই তাদের জমিতে চা বাগান করেছে। এ পর্যন্ত ২২টি টি এস্টটে, ১২টি ক্ষুদ্রায়তন ও ৫০০টি ক্ষুদ্র চা বাগান গড়ে উঠেছে। এখানে চা তৈরির জন্য চা প্রক্রিয়াজাতকরণ কারখানা গড়ে উঠেছে ৬টি। এসব চা কারখানায় প্রতি কেজি কাঁচা চাপাতা ২১ টাকা দরে বিক্রি করে কৃষকরাও লাভবান হচ্ছেন। গত চা চাষ মৌসুমে ১০ লাখ ৪১ হাজার ৫শ’ কেজি চাপাতা উৎপাদিত হয়েছিল। চলতি মৌসুমে ১২ লাখ কেজি চা পাতা উৎপাদন হবে বলে আশা করছেন সংশ্লিষ্টরা। এখানকার উৎপাদিত চা দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানী করে বৈদেশিক মুদ্রা অর্জণ করছে। পঞ্চগড়ের চা চাষ সৃষ্টি করেছে ব্যাপক কর্মক্ষেত্র। ক্রমানয়ে বাড়ছে নতুন নতুন চা বাগান। সৃষ্টি হচ্ছে বেকারদের কর্মসংস্থান। ফলে উন্নত হচ্ছে এই এলাকার মানুষের আর্থ-সামাজিক অবস্থার। দরিদ্র পরিবারগুলো শিক্ষিত করে তুলছে তাদের সন্তানদের। পঞ্চগড়ের চা চাষ দারিদ্র পীড়িত এ অঞ্চলের মানুষের জন্য কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে। চা চাষাবাদের পর এ জেলার আর্থ-সামিজক অবস্থার পুরনো দৃশ্য এখন আর নেই। বেকার জনগোষ্ঠীর একটি বৃহৎ অংশ এখন সবুজ চায়ের সুগন্ধে সজিব হয়েছে। সৃষ্টি হয়েছে ব্যাপক কর্মসংস্থানের। ঘরে বসে থাকা নারী সমাজও দক্ষ কারিগর হিসেবে চা শিল্পের সাথে যুক্ত হয়েছে। বাগানে বাগানে স্থানীয় নারী-পুরুষ দল বেঁধে চা পাতা উত্তোলন,পরিচর্যাসহ নানা কাজ করছে। বেকার নারী-পুরুষ পাশাপাশি মাঠে থেকে কাজ করছেন। সংসারে অন্ন যুগিয়ে স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনার চেষ্ঠা করছেন তারা। উত্তর জনপদের ঘরকুনো উপেক্ষিত মহিলারা এখন স্বাবলম্বী। তারা নিজেরা আয় করছেন। পরিবারের আয় বৃদ্ধিতে সাহায্য করছে। ফলে তাদের সংসারে আর্থিক অস্বচ্ছলতা দুর হয়েছে। চা বাগানগুলোতে  প্রায় ১০ হাজার শ্রমজীবির স্থায়ী কর্মসংস্থান নিশ্চিত হয়েছে। সরকার ও বাংলাদেশ চা বোর্ডের পৃষ্টপোষকতা ও আন্তরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকলে পঞ্চগড়ের চা চাষ দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানি করা সম্ভব হবে। স্যালিল্যান্ড টি এস্টেট এর আব্দুস সালাম, ম্যানেজার জানান, চা চাষ ও চা শিল্পকে ঘিরে পঞ্চগড় জেলায় প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে হাজার হাজার মানুষ জীবন-জীবিকা নির্বাহ করছে। দীর্ঘস্থায়ী চা আবাদে কৃষক, শ্রমিক, চা কারখানা কর্তৃপক্ষ সকলেই লাভবান হচ্ছে। উন্নয়ন কর্মকর্তা বাংলাদেশ চা বোর্ড, পঞ্চগড়ের আঞ্চলিক কর্মকর্তা, আমির হোসেন জানান,পঞ্চগড়ের সমতল ভুমিতে চা চাষের পরিধি বাড়াতে পারলে নতুন বাগান সৃষ্টির পাশাপাশি নতুন নতুন কর্মক্ষেত্রের সুযোগ সৃষ্টি হবে। এসব বাগানে এ এলাকার বেকার কর্মহীন লোকেরা কাজ করে সংসারে স্বচ্ছলতা ফিরিয়ে আনতে পারবে। দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিশেষ ভুমিকা রাখতে সক্ষম হবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email