বৃহস্পতিবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৪ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে অভাবে তাড়নায় ১৫ শত টাকায় নবজাতকে বিক্রি করল মা

Maঅভাবের তাড়নায় পঞ্চগড় জেলা শহরের ইসলামবাগ এলাকায়  ১৫ শত টাকায় ২ দিনের ছেলে সন্তানকে বিক্রি করে দিয়েছেন মা। এই পুত্র সন্তান জন্মের পর ঘরভাড়ার টাকা ও পরিবারের খরচ যোগাতে না পারায় রবিবার  বাধ্য হয়ে তিনি সন্তান বিক্রি করেছেন।
এলাকাবাসী জানায়, মিনা বেগম (৪০) নামের এই নারী ইসলামবাগ মহল্লার মাসুদের একটি ঘরে ভাড়াটে হিসেবে দীর্ঘদিন ধরে বসবাস করছেন। গত শুক্রবার বিকেলে তিনি এক পুত্র সন্তান জন্ম দেন। ঘরের মালিক গত শনিবার সকালে দুই মাসের একহাজার টাকা ভাড়ার টাকা দিতে না পারায় পটলা পুটলিসহ তাকে বের করে দেয়। পরে এলাকার কয়েকজন যুবকের কাছে তার নবজাতককে চার হাজার টাকার বিনিময় বিাক্র করে দেয়। কয়েক ঘন্টা পরে যুবকেরা শিশুটিকে নিতে রাজি না হওয়ায় মাকে ফেরত দেয়। পরে শহরের রৌশনাবাগ এলাকার নি:সন্তান রাশেদা বেগমের কাছে বিক্রি করে দেন। জানাগেছে নবজাতকের পিতা দোলোয়ার হোসেন দিনাজপুর নিমনগড় বালুবাড়ী থেকে পঞ্চগহড়ে এসে দির্ঘদিন থেকে বিয়ে শাদী করে ফেরীওলা হিসেবে হাড়ী পাতিল বিক্রি করে বসবাস করছেন।
মিনা বেগম জানান, ছয় বছর আগে তার স্বামী দেলোয়ার পঞ্চগড় শহরের জালাসী এলাকায় আর একটি বিয়ে করে দ্বিতীয় স্ত্রীর সঙ্গে বসবাস করেন। দ্বিতীয় স্ত্রীর ভয়ে তার স্বামীর সঙ্গে গোপনে সর্ম্পক রেখেছে। তিনি এখানে গোপনে যাতায়াত করতেন তিন্তু ভরন পোষন দিতেন না। তিনি হোটেল রেস্তোরায় কাজ করে জীবীকা নির্বাহ করতেন। কিন্তু প্রসূতি হওয়ায় কয়েকমাস ধরে কাজ করতে না পারায় দুই মাসের ঘর ভাড়া বাকী পড়ে। ঘরের মালিক সন্তান প্রসবের পরদিন ঘর ভাড়া পরিশোধ করতে বলে। ঘর ভাড়ার টাকা দিতে না পারায় ঘরের মালিক তাঁকে বের করে দেন।
মিনা বেগম বলেন, ভোরণপোষণ করার সামর্থ্য না থাকায় নবজাতকে দত্তক দিয়েছেন। নবজাতকে কিনে নেয়ার কথা অস্বীকার করে রাশেদা বেগম বলেন, ঘরভাড়া পরিশোধের প্রতিশ্রুতি দিয়ে ওই নবজাতকে দত্তক নিয়েছি।
ঘরের মালিক মাসুদ বলেন, ছয় বছর ধরে ওই নারী স্বামী পরিত্যক্তা। এর পর আবারও তাঁর সন্তান জন্ম হলে সামাজিকতার ভয়ে তার স্ত্রী তাকে বের করে দেন।
স্থানীয়রা জানান, গত তিন বছর আগেও মিনা বেগম পঞ্চগড় সদর হাসপাতালে আর একটি ছেলে সন্তান প্রসবের এক ঘন্টা পরেই বিক্রি করে  দেন। এর আগে মিনা বেগম সন্তান বিক্রি করার কথা স্বীকার করে জানান, চিকিতসার জন্য পাঁচশত টাকার বিনিময়ে সে ঐ সন্তানকেও বিক্রি করেছিলেন।
কয়েকজন সাংবাদিক টাকা ও ঘর ভাড়া  ফেরত দিয়ে তাঁর সন্তার তাঁকে ফেরত নিয়ে দিতে চাইলেও তিনি সন্তানকে ভোরণ পোষণ দিতে পারবে না বলে ফেরত নিতে রাজী হননি।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email