রবিবার ১৪ এপ্রিল ২০২৪ ১লা বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে আওয়ামীলের দুই পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি

মো.এনামুল হক, পঞ্চগড় প্রতিনিধি

২০ দলের সহিংসতার বিরুদ্ধে ১৪ দলের কেন্দী্রয় কর্মসূচীর অংশ হিসেবে পঞ্চগড়ে মানববন্ধন শেষে জেলা আওয়ামী লীগের বিবাদমান দুইটি পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে। রোববার বিকালে জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ের সামনে এই ঘটনা ঘটে।

 

হাতাহাতির এক পর্যায়ে জেলা যুবলীগের আহবায়ক কমিটির সদস্য কামরুজ্জামান শেখ মিলন আহত হয়েছেন। এ সময় উভয় পক্ষের একাধিক নেতাকর্মী লাঞ্ছিত হন। পরে অতিরিক্তি পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও দলীয় সূত্রে জানা যায়, রোববার বিকালে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পঞ্চগড়-২ আসনের সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট নুরুল ইসলাম সুজনের নেতৃত্বে ১৪ দলের নেতাকর্মীরা শহরের শেরে বাংলা মোড়ের পঞ্চগড়-ঢাকা জাতীয় মহাসড়কে ঘন্টাব্যাপী মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করে। মানববন্ধনে সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. আমিরুল ইসলামকে বক্তৃতার সুযোগ দেওয়া হয়নি।

 

পরে বক্তৃতা প্রদান এবং মাইকের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নুরুল ইসলাম সুজন গ্রুপ এবং সাবেক সাধারণ সম্পাদক মজাহারুল প্রধান গ্রুপের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দেয়। কর্মসূচী শেষে নুরুল ইসলাম সুজন দলীয় কার্যালয় থেকে বের হওয়ার পরই উভয় পক্ষের নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয়। এ সময় জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি রবি মাহমুদ, পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি সপিকুল ইসলামসহ উভয় পক্ষের কয়েকজন নেতা লাঞ্ছিত হন।

 

জেলা যুবলীগের আহবায়ক মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক আবু তোয়াবুর রহমান আবু বক্তৃতার মাইক নিয়ন্ত্রণ করেন। তিনি ইচ্ছে মত তার পছন্দের লোকদের বক্তৃতার সুযোগ দেন। এতে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক আবু তোয়াবুর রহমান আবু বলেন, বর্তমানে জেলা আওয়ামী লীগের কমিটি নেই। শুধু সভাপতির নাম ঘোষনা করা হয়েছে। পৌর সভাপতিকে আওয়ামীলীগ নেতা বলে আহবান করায় তিনি বক্তব্য দিতে রাজি হননি। আমাকে জেলা সভাপতির পক্ষ থেকে পরিচালনার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। সার্বিকভাবে মানববন্ধন কর্মসূচী সফল হয়েছে।

Spread the love