রবিবার ২১ এপ্রিল ২০২৪ ৮ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে আবাদি জমিতে ড্রাম চিমনির ইট ভাটা

মো: এনামুল হক পঞ্চগড় থেকে: পঞ্চগড় সদর উপজেলার ফুলতলা এলাকায় ২০ ফিট ড্রাম চিমনি দিয়ে ইট তৈরী করায় কয়েক এলাকার মানুষ চরম দূর্ভোগে পড়েছে। সরকারের বেধে দেওয়া নিয়ম না মেনে আবাদি ও জনবহুল এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছে ইট ভাটা। মোমিনপাড়ায় আবাদি জমির উপর নির্মিত ইটভাটার কালো ধোয়ায় পাশ্ববর্তী ৩-৪ টি গ্রামের মানুষের ফসলি জমি ও গাছের ফল-মূল নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

এছাড়াও রবিবার দুপুরে সরজমিনে এ ভাটায় অবাধে কাঠ পোড়ানোর মহোৎসব দেখা গেছে। একাধিক গ্রামবাসী জানায়, কয়েক বছর ধরে আম, কাঠাল, সুপারি, নারিকেলসহ বিভিন্ন ফলের গাছগুলো ফুল দিলেও ফলের দেখা মিলছে না। নারিকেল গাছের ডগা ও ছোট ছোট সুপারিগুলো ঝড়ে পড়ে যাচ্ছে। মোমিনপাড়া ও মৌলভীপাড়ার মো: রফিকুল ইসলাম, মোছা: আমিনা বেগমসহ স্থানীয়রা বিক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, ইটভাটার কালো ধোয়ার কারনে আমরা বাড়িতে থাকতে পারছি না। ভাটা স্থাপনের পর থেকে লোটকো, লিচু, বড়ইসহ বিভিন্ন ফলমূল পরিপক্ক হওয়ার আগেই নষ্ট হয়ে ঝড়ে পড়ছে। পঞ্চগড় সিভিল সার্জন জানান, ইটভাটার কালো ধোয়ার কারণে মানুষের শ্বাস কষ্ট, এ্যাজমা, বাচ্চাদের নিউমোনিয়াসহ গ্রীনহাউজ ইফেক্ট সমস্যা দেখা দিতে পারে। এ ব্যাপারে ইটভাটার মালিক শাহিন কবির প্রধান সম্রাট বলেন, তুলনামূলক উচুঁ হওয়ায় এই জমিতে আবাদ কম হতো। সংশিস্নষ্ট কতৃপক্ষের অনুমতিক্রমে ইটভাটা স্থাপন করা হয়েছে। কয়লা সংকটের কারনে কাঠ পোড়াতে হচ্ছে। ভারত থেকে আমদানীকৃত কয়লার অর্ধেকই পাথর। আগামী বছর ফিস্ট চিমনি বসানো হবে। পঞ্চগড় জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের স্থানীয় সরকার শাখায় আবাদি জমি ও জনবহুল এলাকায় ইটভাটা স্থাপনের বৈধতা সর্ম্পকে জানতে চাইলে উচ্চমান সহকারী মো: সপিকুল ইসলাম আচমকা এ প্রতিবেদকের সাথে অসৌজন্যমূলক আচরন করে বলেন, নিউজ করতে চাইলে ইটভাটা মালিকদের কাছে তথ্য জেনে নেও, এখানে কোন তথ্য নেই। উল্লেখ্য গত বছর ইটভাটার তথ্য চাইতে গেলে ওই কর্মকর্তা মিষ্টি খেতে টাকা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে সংবাদ প্রকাশ করতে নিষেধ করার পরও সংবাদ প্রকাশিত হলে তিনি বিক্ষোভে ফেটে পড়েন।

Spread the love