শনিবার ১ অক্টোবর ২০২২ ১৬ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া ২৭টি নদী মরা খালে পরিণত

পঞ্চগড় শহরে ঢুকতে হলে পার হতে হবে করতোয়া সেতু। নতুন আসা লোকজন সেতুর নীচে তাকালে ভাবতেই পারবে না এটা এককালের খরস্রোতা করতোয়া নদী। যে নদী দিয়ে এক সময় বড় বড় নৌকা চলত। সে নদীতে এখন পানির দেখা পাওয়াই ভার। যেদিকে চোখ যাবে দেখা যায় শুধুই সবুজের সমারোহ। নদীতে পানি না থাকায় কৃষকরা ধান লাগিয়েছে এখানে। শুধু করতোয়াই নয়, পঞ্চগড় জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত প্রায় ২৭টি নদীর উৎসমূখে বাঁধ বা ড্যাম নির্মাণ করায় এসকল নদী এখন শীর্ণকায় মরা খালে পরিণত হয়েছে। পানির প্রবাহ কমে যাওয়ায় দুই তীরে শুধুই ধু-ধু বালুচর। জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া করতোয়া, চাওয়াই, তালমা, পাঙ্গা, কুড়ুম, পাম, ভেরসা, ডাহুক, তীরনই, রণচন্ডি, বেরং, জোড়াপানি, ঘোড়ামারা, নাগর, সিঙ্গিয়া, ঘাগরা, পাথরাজ, বুড়িতিসত্মাসহ উজান থেকে নেমে আসা সকল নদীরই এই দৈন্য দশা।

সংশিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, উজান থেকে নেমে আসা পঞ্চগড় জেলার ওপর দিয়ে প্রবাহিত অধিকাংশ নদীর উৎসমুখ হচ্ছে ভারত। ভারতীয় কর্তৃপক্ষ আমত্মর্জাতিক নদী শাসন আইন অমান্য করে নদীগুলোর উৎস এবং প্রবেশ মুখে বাঁধ, সস্নুইস গেইট, জলাধার, ফিডার ক্যানেল ও রেগুলেটর নির্মাণ করে পানির স্বাভাবিক গতিপথ পরিবর্তন এবং জেলার ২২১ কিলোমিটার সীমামত্মজুড়ে বেড়িবাঁধ নির্মাণ করেছে। এ কারণে বর্ষা মৌসূম ছাড়া অন্যান্য মৌসূমে পানি না আসায় নদীগুলো ধীরে ধীরে মরা খালে পরিণত হচ্ছে।

জানা গেছে, প্রতিবেশী ভারত পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টের পশ্চিম-উত্তর কোণে মহানন্দা নদীর ওপর বিশাল বাঁধ নির্মাণ করেছে। ‘‘ফুলবাড়ি ব্যারাজ’’ নামে খ্যাত এ ব্যারেজ নির্মাণের পর থেকে মহানন্দায় পানি প্রবাহ প্রায় শুন্যের কোঠায় নেমে এসেছে। ১৯৮৬ সালে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ ‘‘তিসত্মা-মহানন্দা’’ নামের এই বাঁধটি নির্মাণ করে। প্রতিবছর শুষ্ক মৌসুমে ফিডার ক্যানেলের সাহায্যে এই নদী থেকে পানি নিয়ে পশ্চিমবঙ্গ ও বিহার রাজ্যের বিভিন্ন স্থানের মরম্ন কবলিত এলাকায় তারা সেচ কাজ করে বিভিন্ন আবাদ করছে। তেঁতুলিয়ার বাংলাবান্ধা জিরো পয়েন্টে দাঁড়ালেই পশ্চিম-উত্তরকোণে দেখা যাবে মহানন্দা নদীর ওপর ভারতীয় অংশের বিশাল বাঁধ। এভাবে পঞ্চগড় জেলার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া নদীগুলোসহ উজান থেকে নেমে আসা ছোট বড় নদ-নদী গুলোর উৎসমুখে ভারত বাঁধ বা সস্নুইস গেইট দিয়ে পানির স্বাভাবিক প্রবাহে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করেছে।

এছাড়া বাঁধ দিয়ে শুষ্ক মৌসুমে জেলার সবকটি নদী থেকে পানি প্রত্যাহার করায় নদীগুলোর নাব্যতাও আশংকা জনক ভাবে  হ্রাস পেয়েছে। এ কারণে ভূ-গর্ভস্থ পানিও অনেক নীচে নেমে যাচ্ছে। অথচ ভুগর্ভস্থ পানি পঞ্চগড় জেলার সেচের একমাত্র অবলম্বন।  ভুগর্ভস্থ পানি নীচে নেমে যাওয়ার কারণে ইরি-বোরো চাষে স্থানীয় চাষীরদের ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে। সেচ দেয়ার পরও সেচের পানি জমিতে বেশীক্ষণ থাকেনা বলে কৃষকরা জানিয়েছে। শুষ্ক মৌসুমে বাঁধের পানি যেমন ভারতীয় কর্তৃপক্ষ আটকে রেখে জেলার নদ-নদীগুলোকে মরা নদীতে পরিণত করছে। তেমনি বর্ষা মৌসুমে আকস্মিকভাবে বাঁধের মুখ খুলে দিয়ে পস্নাবিত করছে জেলার বিভিন্ন এলাকা। নদীর নাব্যতা হ্রাস পাওয়ায় মাছসহ অন্যান্য জীববৈচিত্রের ওপর বিরম্নপ প্রভাব পড়ছে । এরই মধ্যে দেশীয় অনেক মাছ বিলুপ্ত হয়ে গেছে। বাকিগুলোও বিলুপ্ত হওয়ার পথে। জেলা সদরের বলেয়া পাড়া গ্রামের কৃষক আব্দুল বারেক জানান, এক সময় নদী গুলোতে পর্যাপ্ত পানি ছিল। সেই পানি ব্যবহার করে আমরা চাষাবাদ করেছি। এখন সব নদীর পানি শুকিয়ে চর জেগে ওঠেছে। একই কারণে পানির সত্মরগুলোতেও পানির প্রবাহ কমে গেছে। এতে কৃষির উৎপাদন ব্যয়ও বেড়েছে কয়েকগুন।

এ ব্যাপারে জেলা পরিবেশ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক প্রভাষক মোঃ আলতাফ হোসেন জানান, নদ-নদী গুলোর পানির স্বাভাবিক প্রবাহ বাধা গ্রস্থ হলে ভূগর্ভস্থ পানির স্তর অনেক নীচে নেমে যাবে। এতে এলাকায় মরুকরণসহ কৃষি উৎপাদন মারাত্মক ভাবে ব্যাহত হবে। এছাড়া জীববৈচিত্রের ওপর বিরুপ প্রভাব পড়বে।

পঞ্চগড় পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী প্রকাশ কৃষ্ণ সরকার ভারতীয় বাধের কারণে নদীগুলোর পানি শূন্যতার কথা স্বীকার করে বলেন, সর্বোচ্চ পর্যায়ে এসব আলোচনা হওয়া দরকার।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email