মঙ্গলবার ৪ অক্টোবর ২০২২ ১৯শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যুর তদন্ত চায় পরিবার

Panchকিছুদিন আগে ধান ক্ষেতে পরে থাকা নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যুর সঠিক তদন্ত চায় মৃতের পরিবার। জানা গেছে, গত ১০এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকালে এলাকাবাসীর মাধ্যমে খবর পেয়ে ধান ক্ষেত থেকে মো: জবেদ আলী নামের এক নির্মাণ শ্রমিকের লাশ উদ্ধার করে পুলিশ। এরপর ময়না তদন্ত করে লাশ দাফন করা হয়। সম্প্রতি জবেদ আলীর চার মেয়ের ভবিষৎ ও তার মৃত্যুর রহস্য নিয়ে বিভিন্ন মহলে নানান ধরনের আনাগোনা শোনা যাচ্ছে। একটি মহলের দাবি জবেদ আলীর হৃদ যন্ত্রের ক্রীড়া বন্ধ হয়ে মৃত্যু ঘটলেও, অতিরিক্ত চিন্তা ও মাথাব্যথার মূলে ছিল সুদের টাকার মহাজন এক পুলিশ সদস্য। সুদের টাকার মহাজনের হুমকি-ধমকিতে জবেদ আলী লুকিয়ে কালীয়াগঞ্জ ইউনিয়নে নির্মান শ্রমিকের কাজ করতে যায়। এরই মধ্যে পুলিশ সদস্য মো: রশিদুল ইসলাম ওই এলাকার বিভিন্ন দোকানে ও যুবকদের কাছে নিজের মোবাইল নম্বর দিয়ে আসে এবং জবেদকে দেখামাত্র ফোন দিলে নগদ ১হাজার টাকা পুরস্কার ঘোঘনা করেন। পুলিশ সদস্য রশিদুল একজন মাছ ব্যবসায়ীকে নিয়ে জবেদের বাড়ীতে একাধিকবার হাত, পা ভেঁঙ্গে দেয়ার হুমকি-ধমকি দিয়ে আসে। ঘটনার তিনদিন আগেও জবেদের বাড়ীতে গিয়ে রশিদুল কঠিন কথাবার্তা বলে আসে বলে জানায়, মৃতের স্ত্রী মোছা: আয়শা। সেদিনই অসুখের কথা বলে বাড়ী আসতে ভাতিজা মারফত মোবাইলে স্ত্রীর কাছে আকুতিমিনতী করে জবেদ আলী। মোবাইলে পুলিশ সদস্য রশিদুলের হুমকি-ধমকি ও এলাকায় মোবাইল নম্বর দেয়ার কথা জবেদকে জানায় তার স্ত্রী। এ ছাড়াও ঘটনার দিন জবেদের লাশ বাড়ীর পাশে পাকা সড়কের ১০-১৫ হাত দুরে একটি ধান ক্ষেতের আইলের পাশে পরে থাকতে দেখে এলাকাবাসী। তার হাতে দুটি ব্যাগসহ সে ধান ক্ষেতের আইলের পাশে পরে থাকলেও দু-তিনটি ধানের গাছ সামান্য বাকা ছাড়া অক্ষত ছিল ধান ক্ষেত। এলাকায় গুঞ্জন উঠেছে জবেদআলী বাড়ী ফেরার পথে পুলিশ সদস্য রশিদুল কি তাকে হুমকি বা থানায় ধরে নিয়ে যাবার ভয় দেখিয়েছে কিনা। জবেদের লাশ বহনকারী পাশের বাড়ীর ভ্যানচালক জুয়েল থানায় এসে রশিদুলকে বলে আপনি যাকে ধরতে মোবাইল নম্বর দিয়ে এসেছিলেন তারে বাইন্ধা ভ্যানে লইয়া আইছি। এমন কথা শুনে রশিদুল চুপচুপ বলে জুয়েলকে ইশারা করে, বলে জানায় নিহতের স্ত্রী আয়শা। স্থানীয়রা জানায়, পুলিশ সদস্য রশিদুল বিভিন্ন মানুষের কাছে মোটা অংকের টাকা পায়। এ ব্যাপারে পুলিশ সদস্য মো: রশিদুল ইসলাম বলেন, এলাকার কাউন্সিলর বাবুভাই বিষয়টা মিটিয়ে ফেলেছে। আরও কিছু জানার থাকলে ওসি’র সাথে কথা বলেন। মৃতের শ্যলক, স্ত্রী ও পরিবারের সদস্যরা জানায়, ঘটনার ৯ দিন পরও আমরা ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পাইনি, মৃত্যুর সঠিক তদন্ত হোক এই আমাদের দাবি।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email