রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে প্রতারণার স্বীকার কালিখা পাড়ার নাছিমা, অবশেষে থানায় মামলা

এনামুল হক , পঞ্চগড় প্রতিনিধি ঃ পঞ্চগড়ের সদর উপজেলার কালিখা পাড়া গ্রামের মৃত্য হাবিবুর রহমানের স্ত্রী নাছিমা বেগম প্রতিবেশী আজিমুল ইসলামের প্রতারনার স্বীকার হয়ে সদর থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। গত ১৬/০২/২০১৫ ইং তারিখ সোমবার বাদিনী নিজেই থানায় উপস্থিত হয়ে মামলাটি দায়ের করেন।

অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, বিগত প্রায় ২ আড়াই বছর আগে বাদিনী নাছিমার স্বামী মারা যায়। সুযোগের সদ ব্যাবহার করে প্রতিবেশী আজিমুল তার সাথে সখ্যতা গড়ে তোলে। একপর্যায়ে তাকে বিবাহ করবে বলে নাছিমার সাথে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয় এবং অবৈধ ভাবে মেলা মেশা করে। স্বামী মৃত্যকালে নাছিমার কোলে দুইটি নাবালক সন্তান রয়েছে। প্রতিবেশী আজিমুল সন্তান দুইটির দায়িত্বভার গ্রহণ করারও প্রতিশ্রুতি দেয়। এবং ছয় মাসের মধ্যে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে অবাধে মেলা মেশা করতে বাধ্য করে নাছিমাকে।

অভিযোগে আরও জানা যায়, দীর্ঘ মেলা মেশার পর বাদীনি পাঁচ মাসের অন্তসত্বা হয়। প্রথমত বাদিনী স্বামীর বৈধতা চেয়ে আজিমুলের কাছে আর্জি জানালে গর্ভের সন্তান নষ্ট করার পরামর্শ দেন। বাদীনি গর্ভের সন্তান নষ্ট করতে না চাইলে সে বিবাহ করবেনা বলে হুমকি দেয়। স্বামীর বৈধতার আশায় বাদীনি রাজি হইলে চতুর আজিমুল বজরা পাড়া নতুন হাটের এক পল্লী চিকিৎষকের সরনাপন্ন হয়। গত ০৯/০১/১৫ তারিখ বিকেলে ওই পল্লী চিকিৎষকের চেম্বারে গেলে চিকিৎষক নাছিমার গর্ভের সন্তান নষ্ট করার ইনজেকশন দিয়ে বাড়িতে পাঠিয়ে দেন। ১২/০১/১৫ ইং তারিখ রাতে বাদীনি নাছিমা একটি মৃত সন্তান প্রসব করে। প্রতারক আজিমুলের কথা মত মৃত বাচ্চাটিকে বাড়ির পাশে গর্তে পুতে রাখে। অবৈধ গর্ভপাত ঘটানোর কারনে নাছিমার প্রচুর রক্তক্ষরণ হয়। রক্তক্ষরণ বন্ধ না করতে পেরে প্রতারক আজিমুল ওই পল্লী চিকিৎষকের কথা মতো নাছিমাকে ভ্যানযোগে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন। অবস্থার বেগতিক দেখে নাছিমা তার সব কথা দেবর ও জা কে খুলে বলে এবং তাদেরকে সঙ্গে নিয়ে এসে হাসপাতালে ভত্তি হয়। হাসপাতালে এসে নাছিমা একাধিকবার প্রতারক আজিমুলের সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা চেষ্টা করে ব্যার্থ হয়। পরে বাড়িতে ফিরে প্রতারক আজিমুলের সাথে দেখা হলে সে স¤পূর্ণ ঘটনা অস্বিকার করে। নিরূপায় নাছিমা শেষমেশ স্থানীয় গন্যমান্য ব্যক্তিদের সরনাপন্ন হয়। গত ১২/০২/১৫ ইং তারিখে শালিশের মাধ্যমে প্রতারক আজিমুল কতিপয় ব্যক্তিকে ম্যানেজ করে সমঝোতার চেষ্টা করেন এবং নাছিমাকে স্বামীর বৈধতা দিতে অস্বীকার করে।

এ ব্যাপারে গড়িনাবাড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলতামাস হোসেন লেলিন বলেন, প্রতারক আজিমুল শালিসে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। পরে মিমাংসার চেষ্টা করলে দুই পক্ষ বিচার না মানায় আমরা নাছিমাকে আইনের আশ্রয় নেয়ার পরামর্শ দেই।

Spread the love