শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে যৌতুকের দাবীতে পাষন্ড স্বামীর নির্যাতনের শিকার এক গৃহবধু

মো.এনামুল হক, পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ- যৌতুক লোভী পাষন্ড স্বামীর দাবিকৃত ৫ লক্ষ টাকা দিতে না পারায় অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়ে স্বামীর বাড়িতে ঘরে অবরুদ্ধ হয়ে আছে রমিছা নামের এক গৃহবধূ। পরিবার সদস্যদের অভিযোগ পঞ্চগড় সদর উপজেলার চাকলাহাট ইউনিয়নের শিংরোড প্রধান পাড়া গ্রামের ওছমান আলীর মেয়ে রমিছা বেগমের সাথে গত ১২ বছর পূর্বে একই ইউনিয়নের নারায়নপুর পন্ডিতপাড়া গ্রামের শাজাহান আলীর সাথে বিয়ে হয়। বিয়ের সময় শাজাহানের পরিবারের চাহিদা অনুযায়ী যৌতুকসহ বাড়ি করার জন্য জমি ও বিভিন্ন উপহার সামগ্রী দেয়া হয়। দাম্পত্য জীবনে তাদের ৬ বছরের একটি পুত্র সমত্মান আছে। বিয়ের পর থেকে যৌতুকলোভী স্বামী শাজাহান আরো ৫ লক্ষ টাকা দাবি করে আসছিলো। এ টাকা দিতে তারা ব্যার্থ হলে প্রতিরাতেই তার উপর চালাতো পার্ষর্বিক নির্যাতন। গত ২ মার্চ স্বামী শাজাহান,বড় ভাই মো.ইয়াছিন আলী.হারুন-অর-রশিদ,মো.আলম ,মা সুজিয়া বেগম মিলে নির্মম ভাবে নির্যাতন করতে থাকে রমিছাকে। রমিছার চিকিৎকারে এলাকাবাসীরা কেউ এগিয়ে আসেনি। এলাকাবাসীরা তাদের ভয়ে সামনে কেউ আসেনা। বর্তমানে রমিছা স্বামীর বাড়িতে অবরুদ্ধ রয়েছে। খাওয়া-দাওয়ার খোজ কেউ নেয়নি। এদিকে মেয়ের সাথে কাউকে দেখা সাক্ষাত করতে দিচ্ছেন শাজাহানের পরিবার। এদিকে সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে স্বামীর বাড়িতে রমিছা ও তার শিশু ছেলেকে অবরুদ্ধ করে রাখা হয়েছে। রমিছার এ প্রতিবেদক জানান,আমাকে হুমকি দিচ্ছে যে তোকে তালাক দিবো আমি তোকে ঘরে রাখবো না। আমার স্বামী আমাকে মেনে নিচ্ছে । কিন্তু তার বড় তিন ভাই ও মার কারণে আমাকে নির্যাতন করছে । এমনকি খাওয়া-দাওয়া বন্ধ করে দিয়েছে। এব্যাপারে স্বামী শাজাহানের সাথে যোগাযোগ করা চেষ্ঠা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি। তবে তার বড় ভাই হারুন ও জাহাঙ্গীর সাথে যোগাযোগ করা হলে তারা বলেন শাজাহান কয়েকদিন বাড়িতে নেই। কোথায় গেছে জানিনা। নির্যাতিতা গৃহবধূ, রমিছার বাবা ওসমান আলী স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ ও পঞ্চগড় থানায় অভিযোগ করে কোন ফল পাননি। এব্যাপারে চাকলাহাট ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু দাউদ প্রধান এর কথা বললে তিনি বলেন,একাধিকবার আমার এখানে ও সদর উপজেলা পরিষদে বৈঠকে বসলে সমাধানের পথে আসলে হঠাৎ শাজাহান বৈঠক থেকে পালিয়ে যায়। এদিকে রমিছার বাবা মেয়েকে স্বামী,বড় তিন ভাই ও মার নির্যাতনের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন।

Spread the love