শনিবার ২৫ জুন ২০২২ ১১ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড়ে ১০ম শ্রেণীর ছাত্রীর ইচ্ছার বিরুদ্ধে বিয়ে : বাসর রাতে উধাও

Panchপঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর দ্বি-মুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী তাসলিমা বেগম অপহরণ ও মামলা ভিওিহীন বলে দাবি করেছেন আসামী পক্ষের পরিবার। প্রকৃত ঘটনা উৎঘাটন করতে গত ৭ দিনেও মুখ খুলতে রাজি হয়নি কেউ । গত ১৭-০৭-২০১৪ তারিখে বিভিন্ন পত্রিকা অনলাইন নিউজ পোর্টালে “পঞ্চগড়ে ১০ম শ্রেণীর ছাত্রী অপহরণ” হয়েছে, এই শিরোনামটি প্রকাশ হলে ৭ দিন পর তেঁতুলিয়া থানা পুলিশ অপহরিতা তাসলিমাকে উদ্ধার করে কোর্টের মাধ্যমে ২০ তারিখ পরিবারের কাছে হস্থান্ত করে।
এ সংবাদ পেয়ে আজ সোমবার আমাদের সংবাদদাতা তাসলিমার বাড়ীতে গিয়ে সরাসরি তাসলিমার সাথে কথা বলে সে জানিয়েছে, পরিবারের চাপে নিজের ইচ্ছায় বাড়ী ছেড়েছি। হারুন ও তার পরিবার আমাকে অপহরণ করেনি। আমি পরিবারের চাপে বাড়ী ছাড়তে বাধ্য হয়েছি। তাসলিমা উদ্ধার এর পর এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, গত ১২-০৭-২০১৪ তারিখে তাসলিমার পরিবার বাবা,মা সকলেই মিলে জোর পূর্বক তার ইচ্ছার বাহিরে একই উপজেলার বুড়াবুড়ী ইউনিয়নের বন্দিভিটা গ্রামের লথিপদ্দিন এর পুত্র ছাদেকুল ইসলাম বাবু এর সাথে বিয়ে দিয়ে দেয়। সে রাতেই বড়ের বাড়ীর বাসর ঘর থেকে পালিয়ে চলে আসতে বাধ্য হয় তাসলিমা।
লেখাপড়া চালিয়ে জীবন বাঁচানোর তাগিদে হারুন এর কাছে আশ্রয় নিয়েছিল তাসলিমা। হারুনের পরিবার তাসলিমাকে গ্রহণ না করে সেদিন সকাল ১০টায় তার বাবা তমিরুল ইসলাম (গমির উদ্দিন) এর হাতে তুলে দিতে চাইলে সে গ্রহণ না করে ঘটনার ৩-৪ ঘন্টার মধ্যে থানা পুলিশের কাছে আশ্রয় নেয়। এবং ঘটনার ঠিক ৭-৮ ঘন্টর মধ্যেই ৬ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করে।
এ ঘটনায় পুরো এলাকায় ব্যাপক আলোচনা সমালচনা সৃষ্টি হয়েছে। এলাকাবাসী আরো জানিয়েছে, তাসলিমা বাড়ী ছাড়ার পুরো দায় ভার তার বাবা, মায়ের। কারণ মেয়ে দির্ঘদিন থেকে সুন্দর ভাবে লেখাপড়া, স্কুলে যাওয়া আসা চালিয়ে যাচ্ছিল। হঠাৎ করে অল্প বয়সী নাবালিকা কন্যাকে বিয়ে দিয়ে সকল ঘটনার জন্ম দিয়েছে তমিরুল ইসলাম (গমির উদ্দিন)। সূত্রে আরো জানা যায়, তাসলিমা অপহরণ মামলা দায়ের হওয়ার আগে এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তি বর্গের সাথে উভয় পক্ষে সমাধানের লক্ষে এলাকায় বসে বিষটি নিশপত্তি করতে চেয়েছিল।
কিন্তু এক পক্ষ অর্থের বিনিময়ে ঘটনায় সমাধান চাইলে অন্যপক্ষ রাজি না হওয়ায় মামলা হয়েছে বলে জানাগেছে। অপহরণ মামলার আসামী হারুন জানিয়েছে, আমি আমার পরিবার তাসলিমাকে অপহরণ করিনি । আমি আমার পরিবার নিষ্পাপ আমরা কোন অপরাধ  ঘটনার সাথে জরিত নাই। এলাকাবাসী ও আসামী পক্ষের পরিবারের দাবী নিরপেক্ষ তদন্তের মাধ্যেমে সত্য ঘটনা উৎঘাটন করে হয়রানি মূলক মামকে দ্রুত নিষ্পত্তি করার জন্য জোর দাবী জানান।

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email