শনিবার ২ মার্চ ২০২৪ ১৮ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পঞ্চগড় কেন্দ্রীয় বাস ও ট্রাক টার্মিনালের বেহাল দশা

মো: এনামুল হক পঞ্চগড় থেকে: পঞ্চগড় কেন্দ্রীয় বাস ও ট্রাক টার্মিনালে গাড়ি পার্কিংসহ বিভিন্ন অবকাঠামোগত সংকটের কারনে যাত্রী দূর্ভোগের পাশপাশি পরিবহন শ্রমিক ও মালিকরা চরম বিপাকে পড়েছে।

 

রবিবার দুপুরে টার্মিনালের বিশ্রামাগারের সামনের বারান্দার একটি বিম ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় দেখা যায়। সরেজমিনে তেলিপাড়া কেন্দ্রীয় ট্রাক টার্মিনালের সামনে ঢাকা-পঞ্চগড় মহাসড়কের পাশে প্রায় প্রতিদিনই শতাধিক গাড়ি সারিবদ্ধভাবে পার্কিংয়ের দৃশ্য চোখে পড়ে। চলমান অবরোধ হরতালে এর প্রভাব আরো বেড়েছে বলে জানায় শ্রমিকরা।

 

জানতে চাইলে টার্মিনালে কর্মরত নৈশ্যপ্রহরী মো: তমিজুল ইসলাম জানায়, আমাদের টার্মিনালে ৪০-৫০ টি ট্রাক পার্কিং করার মত জায়গা আছে। বর্তমান অবরোধ ও হরতালে রাতে গাড়ি চালানোর সুযোগ না থাকায় সন্ধার আগেই টার্মিনালের ভেতরে বালি, পাথরসহ বিভিন্ন পণ্যবাহী ট্রাকে ভরে যায়।

 

ট্রাক চালক শাখার যুগ্ম সম্পাদক মো: রফিকুল ইসলাম বলেন, প্রতিদিন হাজার হাজার গাড়ি ও শ্রমিক চলাচল করে থাকে এই টার্মিনালে। কিন্তু সরকারি সামান্য সেবা বা সুযোগ সুবিধা পায়না শ্রমিকরা।

 

সাবেক শ্রমিক নেতা আবু তালেব পাটোয়ারী জানায়, ট্রাক চালকদের বিশ্রামাগারটি যে যার মত ব্যবহার করে আসছে। অনেক পূর্বে নির্মিত চারটি ল্যাট্রিনের ২ টি অকেজো হয়ে পড়ে আছে। এচাড়াও টার্মিনালের পিছনে কোন লাইটপোস্ট নেই।

 

পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের (২৬৪) সভাপতি জ্যেষ্ঠ নেতা মো: রেনু মিয়া অনিশ্চয়তা প্রকাশ করে বলেন, বাংলাবান্ধা স্থলবন্দর ও মাটির নিচে অফুরমত্ম পাথর বালির সুবাদে এই টার্মিনালে প্রতিদিন কয়েকশত গাড়ি বন্দবস্ত করা হয়। গাড়ি পার্কিয়ের জায়গা সংকটে গাদাগাদি করে পার্কিংয়ের সময় টার্মিনালের বারান্দার একটি বিম (খুটি) ভেঙ্গে গেছে। সংশিস্নষ্ট কতৃপক্ষকে অবহিত করা হলে, পরবর্তি বাজেটে ধরিয়ে দিবেন বলে জানালেও তা হয়নি।

 

এখনও ঝুঁকি নিয়ে চলাফেরা করতে হয় শ্রমিকদের। এছাড়াও টার্মিনালে সরকারি কোন টিউবওয়েল নাই। বর্ষায় পানি নিস্কাশনের ব্যাবস্থা না থাকায় পুরো টার্মিনাল এলাকা বেহাল দশায় পরিণত হয়।

অপরদিকে পঞ্চগড় বাস মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের (১৬৬০) সভাপতি আ: মজিদ জানান, ধাক্কামারা কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল নানামূখী সমস্যায় জর্জরিত। বাস মিনিবাস রাখার জায়গা সংকটের পাশাপাশি টার্মিনালের বাউন্ডারি না থাকায় নানা সমস্যায় পড়তে হয়। পঞ্চগড়ে দেড় শতাধিক বাস মিনিবাস রয়েছে। টার্মিনালে ৫০-৬০ টি গাড়ি রাখা যায়। বাকি গাড়িগুলো যত্রতত্র সড়কের পাশে পার্কিং করায় কিছুদিন আগে গভীর রাতে গাড়িতে আগুন দেয় র্দুবৃত্তরা। এ ব্যাপারে সাধারন সম্পাদক মো: আববাস আলী জানান, সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের সু-দৃষ্টির অভাবে শ্রমিক ও যাত্রীদের হয়রানি ও ভোগান্তি পোহাতে হয়।

 

এই টার্মিনালে দূর-দূরান্ত থেকে আসা বা যাওয়ার যাত্রীদের বসার ব্যবস্থা নেই। পাবলিক টয়লেটের দায়িত্বে থাকা মৃত সুমনের পরিবারের মাত্রাতিরক্ত মাতলামির কারনে টার্মিনালের সুষ্ট পরিবেশ বিঘ্নিত হচ্ছে। টার্মিনালের পিছনের পুকুরটি ভরাট করে শহরের যত্রতত্র নাইটকোচ কাউন্টারগুলো টার্মিনালের নিদিষ্টস্থানে বসানোর ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের প্রতি গুরুত্তারোপ করেন তিনি।

Spread the love