শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

“পরজীবনে দু’জনের যেন মিলন হয়”

মো: রবিউল এহসান রিপন  ,ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি : “এ সমাজের মানুষ আমাদের ভালবাসার স্বীকৃতি দিল না, ইচ্ছা ছিল দুজনে সুখের ঘর বাঁধবো। কিন্তু পরিবারের লোকজন আমার ভালবাসার মানুষটিকে মেনে নিতে পারলো না। তাই আমরা দুজনেই সিদ্ধান্ত নিয়েছি এ জীবনে দুজনের মিল না হলেও যেন পরজীবনে দুজনের মিলন হয়। তাই আমরা আতœহত্যার পথ বেছে নিলাম। আমাদের আতœহত্যার জন্য কেউ দায়ী নয়। মৃত্যুর পরে আমাদের দুজনের কবর যেন এক সাথেই দেওয়া হয় এটি সকলের প্রতি অনুরোধ।

দুই প্রেমিক যুগলের আতœহত্যার আগে প্রেমিকা আখিঁ (১৮) একটি চিরকুটে এই কথা গুলো লিখে গেছেন।

শনিবার রাতে ঠাকুরগাঁও পৌর এলাকার হঠাৎ পাড়া মহল্লায় ওই প্রেমিক যুগল বিষপান করে আতœহত্যা করেছে।

তারা হলেন, পৌর এলাকার আকঁচাডাঙ্গী এলাকার রশিদুল আলমের মেয়ে আখি (১৮) ও প্রেমিক সদর উপজেলা নারগুন কহরপাড়া আকিম উদ্দিনের ছেলে নুর নবী আকাশ (২৩)।

সদর উপজেলা নারগুন কহরপাড়া এলাকার নুর নবী আকাশ দুই বছর আগে পৌর এলাকার হঠাৎপাড়া মহল্লায় বিয়ে করেন। শ্বশুর বাড়ি এলাকায় নিয়মিত আসা যাওয়ার কারনে আকচাডাঙ্গী এলাকার আখিঁর সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। নুর নবী আকাশ প্রেমিকা আখিঁকে বিয়ের জন্য প্রস্তাব দেয়। আখিঁ বিয়ের প্রস্তাবে রাজী হয়ে দুজনেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নেয়।

শনিবার রাতে দুই প্রেমিক যুগল একসাথে মিলিত হয়ে বিয়ে করার সিদ্ধান্ত গ্রহন করে। কিন্তু নুর নবীর আগের বৌ বিয়ে মেনে না নিলে তারা আতœহত্যা করারও সিন্ধান্ত নেয়। এ সময় আখি একটি চিরকুটে আতœহত্যার কারণ সকলের উদ্দেশ্যে লিখে যান। তারপরে দুজনেই নুর নবীর শশ্বুড় বাড়ী হঠাৎপাড়া গিয়ে নুর নবীর বৌকে বিয়ের কথা বললে সে রাজি হয় নাই। পরে দুজনেই সেখানে বিষপান করেন। স্থানীয় লোকজন তাৎক্ষনিক ভাবে দুজনকে উদ্ধার করে ঠাকুরগাঁও আধুনিক সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক আখিকে মৃত ঘোষনা করেন এবং নুর নবী আকাশ কে রংপুরে রেফার্ড করে। রংপুর যাওয়ার পথেই আকাশেরও মৃত্যু হয়।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার উপ পরিদর্শক আমজাদ হোসেন জানান, দীর্ঘদিন ধরে দুজনের প্রেমের সম্পর্ক ছিল। পারিবারিক ভাবে বিয়ের প্রস্তাব আখি ও নুর নবী আকাশের পরিবার না মেনে নেওয়ায় আতœহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। এ ঘটনায় একটি ইউডি মামলা হয়েছে।

Spread the love