শনিবার ৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পলাশবাড়ি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে তিন দলেই বিদ্রোহী প্রার্থী । জামায়াতের একক প্রার্থী

জিল্লুর রহমান মন্ডল পলাশ, গাইবান্ধা

গাইবান্ধার পলাশবাড়ি উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান, পুরম্নষ ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে মোট ১৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এতে চেয়ারম্যান পদে জামায়াত ছাড়া আওয়ামীলীগ, বিএনপি ও জাতীয় পার্টিতে রয়েছে একের অধিক প্রার্থী। আর এ পদে আওয়ামীলীগ, জাতীয় পার্টি, বিএনপি ও জামায়াতের প্রার্থীর মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতার লড়াই হবে বলে জানা গেছে।

 

চেয়ারম্যান প্রার্থীরা হলেন আওয়ামীলীগের আনারস প্রতীকে একেএম মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ, বিএনপির হেলিকপ্টার প্রতীকের শাহ আলম সরকার, জামায়াতের কাপ পিরিচ প্রতীকের নজরম্নল ইসলাম লেবু, জাপা (এরশাদ)র সিদ্দিক চৌধুরী পলাশ। তার প্রতীক মোটর সাইকেল। জাপা (জাফর)র ঘোড়া প্রতীকে মইনুর রাববী চৌধুরী। এছাড়া সাবেক ছাত্রলীগ নেতা ফিরোজ কবীর চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন। তার নির্বাচনী প্রতীক  ব্যাটারী। বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মাঠে রয়েছেন সুরম্নজ হক লিটন। তার নির্বাচনী প্রতীক টেলিফোন। জাপা (জাফর)র আরেক প্রার্থী হলেন আলমগীর মন্ডল। তার নির্বাচনী প্রতীক দোয়াত কলম। আর চিংড়ি মাছ প্রতীক নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেন মুশফিকুর রহমান।

 

এ উপজেলার সাধারণ ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, সম্প্রতি যুদ্ধাপরাধী কাদের মোল­ার ফাঁসির রায়কে কেন্দ্র করে এবং দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন প্রতিহতের নামে যে সহিংস কর্মকান্ড নির্বাচন বিরোধীরা চালিয়েছে তার প্রভাব উপজেলা নির্বাচনে পড়বে। কাদের মোল­ার ফাঁসির রায় ঘোষনার দিন বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান ও আসন্ন নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী বিদ্যুতের বাড়ি ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান আগুন জ্বালিয়ে পড়িয়ে দেয়া হয়। পোড়ানো হয় তার সরকারী জীপসহ একটি ব্যক্তিগত গাড়ি। এছাড়া এ উপজেলায় স্বাধীনতা বিরোধী শক্তি ও সংসদ নির্বাচন বিরোধীরা ব্যপক তান্ডব চালায়। যা সাধারন মানুষকে এখনও আতংকগ্রসত্ম করে তোলে। তাছাড়া বিদ্যুৎ স্থানীয় উপজেলা আওয়ামীলীগের তৃনমুল নেতাদের ভোটে নির্বাচিত হয়ে চেয়ারম্যান প্রার্থী হয়েছেন। ফলে স্বাধীনতার পক্ষের শক্তির মানুষজন ঐক্যবদ্ধ হয়ে বিদ্যুতের পক্ষে কাজ করছেন। এ উপজেলায় সাবেক ছাত্রলীগের নেতা ফিরোজ কবীর নির্বাচনী মাঠে রয়েছেন। তবে তিনি এবারের নির্বাচনে আশানুরূপ অবস্থান সৃষ্টি করতে পারবেননা বলে জানিয়েছেন সাধারন ভোটারগন।

 

এদিকে বিপরীত চিত্রও রয়েছে এ উপজেলায়। নিজেদের অবস্থান পাকাপোক্ত রাখতে ১৯ দলগত ভাবে না যেয়ে একক প্রার্থী দিয়েছে জামায়াত। হঠাৎ করেই গত এক বছরে পলাশবাড়িতে সহিংস অবস্থান নেয় তারা। যে কোন রাজনৈতিক কর্মসুচীতে পুরো পলাশবাড়ি তাদের দখলে রাখতে সমর্থন ছিল জামায়াত-শিবির। এসব ঘটনায় তাদের এক কর্মী নিহতসহ বেশকজন নেতাকর্মী কারাগারে রয়েছেন। এতে করে তাদের মনোবল সাময়িক দুর্বল হলেও উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে নতুনভাবে সংগঠিত হয়ে শক্ত অবস্থান তৈরীতে ব্যস্ত তারা। এছাড়া নজরম্নল ইসলাম লেবু ২০০৮ এর জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশ তৃতীয় অবস্থানে ছিলেন। ফলে তাদেরও রয়েছে শক্তিশালী ভোটব্যাংক।

 

অন্যদিকে জাপা (জাফর) থেকে প্রার্থী আছেন দুজন। তারা হলেন মাইনুর রাববী চৌধুরী ও আলমগীর মন্ডল। তাদের মধ্যে মাইনুর রাববী চৌধুরীর পিতা টি.আই.এম ফজলে রাববী পলাশবাড়ি-সাদুল্যাপুর উপজেলায় টানা ছয়বার এমপি ছিলেন। রাজনৈতিক ও পারিবারিকভাবে তাদের শক্ত অবস্থান রয়েছে পলাশবাড়িতে। এছাড়া বিএনপিতে রয়েছেন দুজন প্রার্থী। তারা হলেন শাহ আলম সরকার ও সুরুজ হক লিটন। এদের মধ্যে দলীয়ভাবে শাহ আলম সরকারকে সমর্থন দেয়া হয়েছে। তারা দুজনেই দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে টানবার চেষ্টায় ব্যসত্ম। দুজনেই চাইছেন দলীয় ইমেজকে কাজে লাগিয়ে সাধারন ভোটারদের মন জয় করতে। ফলে ভোটব্যাংক, দলীয় সমর্থন ও সাধারণ ভোটারদের বিবেচনায় মুলত আওয়ামীলীগ প্রার্থী মোকছেদ চৌধুরী বিদ্যুৎ, জামায়াত প্রার্থী নজরম্নল ইসলাম লেবু ও জাপা (জাফর)র প্রার্থী মাইনুর রাববী চৌধুরীর মধ্যেই হবে লড়াই।

 

আর পুরুষ ভাইস চেয়ারম্যান সাত প্রার্থীর মধ্যে দুজন জাপা (জাফর), দুজন স্বতন্ত্র, আওয়ামীলীগ, জাপা (এরশাদ) ও জামায়াতের একজন করে প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এছাড়া মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে তিনজন প্রার্থীই স্বতন্ত্র হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে ভাইস চেয়ারম্যান এ প্রার্থীরা গোপনে বিভিন্ন চেয়ারম্যান প্রার্থী ও দলের সাথে সংযোগ রাখবার চেষ্টা করে যাচ্ছেন বলে জানা গেছে।