শুক্রবার ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২২ ১৫ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পশুর রক্ত ও বর্জের দূর্গন্ধে শ্বাসরুদ্ধ অবস্থা ভজনপুরবাসীর

পঞ্চগড় জেলার তেঁতুলিয়া উপজেলার ভজনপুর বাজারের মাঝখানে জবাই করা পশুর পড়ে থাকা রক্ত ও বর্জের দুর্গন্ধে ভজনপুর বাজার এলাকাবাসী অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। পরিবেশের ভারসাম্য হারিয়ে বিভিন্ন রোগ জীবানু ছড়াচ্ছে।
অসহায়ত্ত্ব জীবন যাপন করছে এলাকার মানুষ। বাজারের মাঝখানে অনিয়মতান্ত্রিকভাবে জবাই করা পশুর ফেলে রাখা রক্ত ও বর্জের দুর্গন্ধে মানুষ অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। তেঁতুলিয়া উপজেলার সর্ব বৃহৎ ভজনপুর বাজার। এ বাজারে প্রতিদিনেই গরু, ছাগল, মুর্গী জবাই হয়ে থাকে। এ সমস্ত জবাই কৃত পশুর রক্ত ও বর্জ কশাইয়েরা প্রতিদিন সেখানে ফেলে এবং জবাইয়ের পর রক্তে পানি না ঢালায় দূর্গন্ধ ছড়াচ্ছে।
জবাইকৃত স্থান হতে ২০ গজ দূরে উত্তর ও দক্ষিণে বসবাসকারী বাড়ীঘরের মানুষ দূর্গন্ধের ফলে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। এমনকি জবাইকৃত স্থান হতে ১০ গজ দূরে পূর্বে উপজেলার বৃহৎ ভজনপুর বাজার জামে মসজিদ দূর্গন্ধ ও মশার কামড়ের কারণে মসজিদে মুসল্লিদের উপস্থিত একে বারেই কমে গেছে। শুক্রবার এ মসজিদে প্রায় হাজার খানিক মানুষ নামাজ আদায় করতো। কিন্তু দূর্গন্ধের কারণে ইদানিক ২’শ মানুষের উপস্থিত দেখা যায়না।
মসজিদের ইমাম মো: আব্দুল মজিদ জানান, এ অবস্থা দ্রুত বন্ধ করা না গেলে এ মসজিদে মুসল্লিরা  নামাজ আদায় করা একে বারে বাদ দিবে বলে মনে হচ্ছ। পাশাপাশি, এসবের দুর্গন্ধে হাটে আসা দোকানদাররা ঠিকমতো বেচাকেনা করতে পারেনা। তেমনিভাবে ক্রেতারাও দুর্গন্ধে হাটবাজার করতে পারেনা।
এলাকাবাসী মো: আকবর আলী, মো: ফজলু, মো: বাবুল হোসেন অভিযোগ করে জানান, এলাকার কয়েকজন কশাই ইচ্ছা কৃত ভাবে বাজারে মাঝ খানে পশু জবাই করে অসাস্থকর পরিবেশ সৃষ্টি করেছে। তারা বিগত দিনে বাজারর বাহিরে নদীর চড়ে পশু জবাই করতো। কিন্তু ইদানিং বাজারের মাঝখানে পশু জবাই করাতে আমাদের পরিবারের সদস্যদের জীবন-জাপন দূর্গদ্ধে অতিষ্ট হয়ে পড়েছে। তিনারা আরো জানান, এ বিষয়ে বাজার বণিক সমিতি, ইউপি চেয়ারম্যানকে অভিযোগ করও কোন লাভ হয়নি।
যে স্থানে তারা পশু জবাই করছে সে স্থানটি সরকারী ভাবে পাকা করে হাটসেট তৈরি  করে বিগত দিনে কাপড়ের দোকান বসতো। ভজনপুর বাজার জামে মসজিদ সংলগ্নে এসব ময়লা আবর্জনা ও রক্ত ফেলে রাখার ফলে পথচারীর চলাফেরায় কষ্ট হচ্ছে।
সাংবাদিক হিসেবে সমাজের ন্যায়-অন্যায় তুলে ধরার দায়িত্ব মনে করে ইউপি চেয়ারম্যান, বাজার বণিক সমিতি ও হাট ইজারাদার দের পশু জবাই বন্ধ করে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়ার কথা জানালেও এখানকার পরিবেশের কোন পরিবর্তন হয়নি। পরবর্তি আবারো ইউপি চেয়ারম্যান, বাজার বণিক সমিতি ও হাট ইজারাদার দের সাথে সাংবাদিক হিসেবে কথা বলে দ্রুত এ বিষয়ে সমাধান চায়লে তিনারা এ বিষয়ে কোন কিছু করতে পারবেন না বলে সাব জানিয়েছেন।
এখানে সরকারি সম্পদ নষ্ট করে যেখানে সেখানে রক্ত, ময়লা আবর্জনা ফেলে রেখে পরিবেশের ভারসাম্য নষ্ট করা হচ্ছে। এলাকাবাসী বাজারের মাঝে পশু জবাই এবং অ-সাধু কশাইদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার জোর দাবী জানান।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email