মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাকিস্তানে তালেবানের বিরুদ্ধে সেনা অভিযান

Pakistanসেনা অভিযান শুরু হওয়ায় তার ভয়ে এবার

পাকিস্তান ছাড়ছে তালেবান। কিন্তু তার

আগে চুল দাঁড়ি কেটে নিজেদের বেশভুষা

পাল্টে নিচ্ছে তারা। মিরানশাহ’র অন্যতম

শীর্ষ ক্ষৌরকার আজম খান। উত্তর

ওয়াজিরিস্থানের প্রধান শহর এটি। সেনা

অভিযানের ভয়ে এ শহরের অধিকাংশ

লোকও পালিয়ে যেতে বাধ্য হয়েছে। তিনি

জানান, জুন মাসে তার ব্যবসা ফুলে ফেঁপে

ওঠে। সেনা অভিযানের প্রাক্কালে তালেবান

যোদ্ধারা তাদের চুল দাঁড়ি কেটে পালাতে

শুরু করে। তিনি বলেন, সেনা অভিযানের

আগে আগে আমি ৭০০র বেশি স্থানীয় ও

উজবেক জঙ্গিদের চুল ও দাঁড়ি ছেঁেটছি।

দীর্ঘদিন ধরে আজম খান তেহ্রিক-

ই-তালেবানের (টিটিপি) সাবেক নেতা

হাকিমুল্লাহ মেহসুদের মতো করে অন্য

তালেবান কমান্ডারদের চুল ও দাঁড়ির স্টাইল

ঠিক করতেন। কিন্তু মে মাস থেকে স্টাইলে

পরিবর্তন আসে। উল্লেখ্য গত নভেম্বরে

মার্কিন ড্রোন হামলায় টিটিপি নেতা নিহত

হন। তিনি বলেন, এসব কমান্ডারই পরে এসে

আমাকে বলেন চুল ছোট করতে, দাঁড়ি ছেঁটে

দিতে। এসব কমান্ডার জানান, তারা

উপসাগরীয় অঞ্চলে চলে যাবেন। পাকিস্তানী

বিমানবন্দরের ঝামেলা এড়াতে বেশভুষায়

পরিবর্তন আনছেন। এমনকি উজবেক ও

তাজিকরাও তার কাছে আসতো বলে তিনি

জানান।

পার্বত্য এলাকা উত্তর ওয়াজিরিস্তানে পাক

সেনাবাহিনী গত ১৫ জুন অভিযান শুরু

করে। দেশজুড়ে তালেবানের একের পর এক

হামলার পর পাক সরকার তাদের র্নির্মূলে

অভিযানের সিদ্ধান্ত নেয়। এতোদিন ওই্

এলাকার লোকজন তালেবানের ভয়ে তাদের

বিষয়ে মুখে কুলুপ এঁটে ছিল। কিন্তু সময়

অনুকূল হওয়ায় তারা এখন তালেবানের

সম্পর্কে নানা তথ্য দিতে শুরু করেছে।

মিরানশাহ’র দোকানী হিকমুতুল্লাহ খান

বলেন, তালেবানরা বিদেশী ব্রান্ডের শ্যাম্পু,

সাবান ও পারফিউম কেনায় আগ্রহী ছিলো।

বিশেষ করে তারা ফরাসী ও তুর্কি পারফিউম

কিনতে চাইতো। মিরানশাহ’র নিকটবর্তী দত্ত

খেলের পাইকারী ব্যবসায়ী মোহাম্মদ জারিফ

বলেন, তালেবান যোদ্ধারা প্রচুর পরিমাণে

ব্রিটিশ ডিটারজেন্ট ও রান্নার জন্যে

আমেরিকান তেল কিনতো। এগুলোর

অধিকাংশই দুবাই থেকে চোরা পথে আসতো।

কিন্তু এখন প্রশ্ন জঙ্গিরা কি সব পাকিস্তান

ছেড়ে পালিয়েছে?

পাকিস্তান সেনাবাহিনী বলছে, তাদের

অভিযানে প্রায় ৪০০ জঙ্গি প্রাণ হারিয়েছে।

এছাড়া উত্তর ওয়াজিরিস্তান জঙ্গিমুক্ত হবে

এবং তালেবানরা হামলার পরিকল্পনার

সুযোগ পাবে না বলে সেনাবাহিনী দাবি

করছে। কিন্তু বাস্তবতা ভিন্ন বলেই মনে করা

হচ্ছে। স্থানীয় গোয়েন্দা ও জঙ্গিসূত্রগুলো

বলছে, সেনা অভিযান শুরু হচ্ছে মে মাসের

প্রথমেই এ গুজব ছড়িয়ে পড়ে। আর তখনই

৮০ শতাংশ জঙ্গি পালিয়ে যায়। এদের

অধিকাংশই গেছে আফগান সীমান্তের দিকে।

এসব সূত্র বলছে, বর্তমানে জঙ্গিদের সংখ্যা

মোটামুটি দুহাজারের মতো। অভিযানের

আগে যা ছিল প্রায় ১০ হাজার। যদিও এর

সত্যতা যাচাই সম্ভব হয়নি। ইতোমধ্যে

পাকিস্তান সেনাবাহিনী সীমান্তে টিটিপি

শরণার্থীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালাতে

আফগানিস্তানের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে।

বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করতে উভয়

দেশের শীর্ষ কর্মকর্তারা চলতি সপ্তাহে

ইসলামাবাদে মিলিত হচ্ছেন।

একজন পশ্চিমা কূটনীতিক বলছেন, এটি

পরিষ্কার সেনা অভিযানের বিষয়ে জঙ্গিরা

সতর্ক ছিল। ফলে তারা পালাতে শুরু করে।

এখন বড়ো প্রশ্ন, সেনা অভিযান শেষে

পাকিস্তান কি হাক্কানীসহ অন্যান্য জঙ্গিদের

আবার ফেরার সুযোগ করে দেবে?