সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ ৯ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পাকিস্তানে সড়ক দুর্ঘটনা : নিহত ৫৮

পাকিস্তানের দক্ষিণাঞ্চলে একটি যাত্রীবাহী বাস একটি তেলবাহী ট্যাংকারকে সজোরে ধাক্কা দিলে নারী ও শিশুসহ অন্তত ৫৮ জনের প্রাণহানি ঘটে।

রবিবার ভোরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এসময় যান দুটোতে আগুন ধরে যায়। সিন্ধু প্রদেশে ৩ মাসেরও কম সময়ের মধ্যে ২য় দুর্ঘটনা। দুটি ঘটনায় বেশ কয়েকজনের প্রাণহানি ঘটে।

মৃতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে আশঙ্কা করে কর্তৃপক্ষ জানায়, কয়েকটি মৃতদেহ এমনভাবে পুড়ে গেছে যে তাদের চেনাই যাচ্ছেনা। লাশগুলো একটার আরেকটি লেপ্টে ছিল। তাদের সনাক্ত করতে ডিএনএ পরীক্ষার পরিকল্পনা করা হচ্ছে।

করাচির জিন্নাহ হাসপাতালের চিকিৎসক সিমি জামালি বলেন, আমরা ৫৭টির বেশি মৃতদেহ পেয়েছি। কিন্তু আহতদের অধিকাংশেরই শরীরের বেশির ভাগ অংশ ঝলসে যাওয়ায় মৃতের সংখ্যা আরো বৃদ্ধি পেতে পারে। তিনি জানান, ৬ শিশু মহিলাদের জড়িয়ে ধরে ছিল। তাতে মনে করা হচ্ছে ওই মহিলারা হয়তো বা তাদের মা। ওই নারী চিকিৎসক বলেন, তারা এমনভাবে পুড়ে গেছে যে তাদের চেনাই যাচ্ছেনা। তাদেরকে কেবল ডিএনএ পরীক্ষার মাধ্যমেই সনাক্ত করা সম্ভব।

অতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই বাসটি দক্ষিণাঞ্চলীয় বন্দর নগরী করাচি থেকে শিকারপুর যাওয়ার পথে এ দুর্ঘটনা ঘটে। বাসটিতে ৬০ জনের বেশি যাত্রী ছিল। পুলিশ প্রাথমিকভাবে জানায়, তেলবাহী গাড়িটি ভিন্ন দিক থেকে আসছিল। সিন্ধু প্রদেশের তথ্যমন্ত্রী শারজিল মেমন সাংবাদিকদের বলেন, বাস ও এর সকলযাত্রী এমনভাবে পুড়ে গেছে যে তাদের সনাক্ত করতে ডিএনএ পরীক্ষা করতে হবে।

সিনিয়র পুলিশ কর্মকর্তা রাও মোহাম্মদ আনোয়ার বলেন, বাসটি তেলবাহী ট্যাংকারকে আঘাত করার পরেই এতে আগুন ধরে যায়। প্রাথমিক খবরে জানা গেছে, ট্যাংকারটি ভুল দিক দিয়ে আসছিল। তিনি বলেন, এই ঘটনার জন্য শুধু ট্যাংকারের চালকই দায়ী নাকি এই দুর্ঘটনায় বাস চালকের ও অবহেলা ছিল তা আমরা খতিয়ে দেখছি।
বাসটির অল্প কয়েকজন যাত্রী জানালা দিয়ে লাফিয়ে পড়ে অক্ষত অবস্থায় রক্ষা পান।

করাচি থেকে ৪৫০ কিলোমিটার দূরবর্তী শহর খায়েরপুরের কাছে সিন্ধুতে নভেম্বর মাসে একটি বাসের সঙ্গে কয়লা বোঝাই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৮ শিশুসহ মোট ৫৭ জন প্রাণ হারায়। গত বছরের এপ্রিল মাসে একটি বাসের সঙ্গে দ্রুত ধাবমান এটি ট্রাক্টর টেইল্েররর সংঘর্ষে ৪২ জন মারা যায়।

Spread the love