রবিবার ২৬ জুন ২০২২ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরের অবহেলিত ভাস্কর্যশিল্পী লিটন

ছোটবেলা থেকে মনের আনন্দে আবাদী জমি

থেকে মাটি সংগ্রহ করে খুব সুন্দর করে

জাতীয় ব্যক্তিদের ছবি তৈরি করে শহরের

সুনাম কুড়িয়েছে ভাস্কর্যশিল্পী জাহাঙ্গীর

আলম লিটন। তার প্রতিভা দেখে মুগ্ধ

এলাকার লোকজন। কিন্তু এ প্রতিভার

যথাযথ বিকাশ ঘটেটি পৃষ্টপোষকতার

অভাবে।

ভাস্কর্যশিল্পী জাহাঙ্গীর আলম লিটনের

লেখাপড়া প্রাইমারি পর্যন্ত। দারিদ্র্যতার

সংসারের  হাল ধরতে অঙ্কুরেই থেকে গেছে

তার শিক্ষা জীবন। কিন্তু  প্রকৃতি তার অন্তর

সত্তায় যে শিক্ষা হেয়ালির ছলে কিঞ্জিত ছুড়ে

দিয়েছেন তাতেই সে একজন আলোকিত

মানুষ। নিয়তি মানুষের জন্য শিক্ষা,

ভালোলাগা, ভালোবাসা ও প্রেম নিরন্তর

করে সাজিয়ে রেখেছেন প্রকৃতিতে। কখনো

কখনো মানুষ এসব নিজের আগ্রহে গ্রহণ

করে। আবার কখনো প্রকৃতি সন্তুষ্ট হয়ে

নিজেই কারো কারো মধ্যে দিয়ে দেন। ছবি

আঁকা, ভাস্কর্য নির্মাণ, সাহিত্যে উৎপত্তি,

কবিতা, গান রচনা, সুরেলা কণ্ঠ, শিল্প সম্মত

ক্রীড়া প্রতিভা এসব প্রথমত সুপ্ত অবস্থায়

অন্তর আত্মায় থাকে। পরিবেশ পরিস্থিতি

সাহায্য সহযোগিতা ও পৃষ্টপোষকতা পেলে

বিকশিত হয়। আবার কারো কারো সাহায্য

ছাড়াই উৎতরে উঠার মতো করে বেরিয়ে

পড়ে।

ভাস্কর্য নির্মাণ ও ছবি অঙ্কনে হৃদয়ে কতটুকু

প্রেমভাব পুঞ্জিভুত হলে স্ত্রী পুত্রকে ঘুমিয়ে

রেখে নির্জন রাতে নিভৃতে মানুষ এসব

করতে পারে। স্ত্রী, পুত্র, কন্যা সন্তানের

বিরুক্তি এড়াতে রাত জেগে লিটন তার মনের

খোরাক জোগায়। মনের মাধুরী মিশিয়ে

নির্মাণ করে মুক্তিযুদ্ধের নানা ভাস্কর্য,

বঙ্গবন্ধু, রবীন্দ্রনাথ, নজরুল, মহাত্মাগান্ধীর

প্রতিকৃতি এবং পাক সেনাদের নির্মম

হত্যাযজ্ঞ লাল সবুজের পতাকা ও

স্মরণার্থীদের ভাস্কর্য। বিস্ময়ে হতবাক করে

দেয় তার সৃষ্টি কর্মগুলো। আসলে মানুষের

যেমন কোনো জাত হয় না তেমনি

ভালোলাগারও সুনির্দিষ্টতা নেই। নেই প্রতিভা

এবং প্রজ্ঞারও সীমা। কখন কাকে কি ভালো

লাগে, কার মধ্যে কি প্রতিভা দানা বাঁধে এটি

নিয়তিরই ভালো জানা। গোটা পরিবার,

প্রতিবেশী এবং সমাজের বৃহৎ একটি অংশ যা

পছন্দ করে না লিটনের সেটাই ভালো লাগার

বিষয়। এটি লিটনের প্রেম, এটি ভালো লাগা,

ভালোবাসা এবং হৃদয়ের বিপাশা।

প্রেমের ধরন নানা। এ ধরনের প্রেম ও

ভালোলাগার মাধ্যমে মানুষ নৈসর্র্গিক

সৌন্দর্যের ভিতরে ঢুকে পড়ে। সৃষ্টি তত্ত্বের খুব

কাছাকাছি চলে যায়। সবাই হৃদয়ের মাধুরী

মেশাতে পারে না, কথা, কর্ম ও সৃষ্টিতে।

যারা পারে তাদের কেউ কেউ ইতিহাস হয়,

আবার কেউ ঝরে পড়ে। পার্বতীপুর শহীদ

মিনার প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত গেল বৈশাখী মেলায়

ক্ষুদ্র পরিসরে একটি ভাস্কর্য স্টল দেওয়ার

মাধ্যমে লিটনের মধ্যে লুকিয়ে থাকা

প্রতিভার কিছুটা আলো ঠিকরে পড়ে

জনসম্মুখে।

উদীয়মান এই ভাস্কর্যশিল্পী বীরমুক্তিযোদ্ধা

আব্দুল ওহাব আবুলের সন্তান সে। শহরের

নতুন বাজার খোলাহাটি রোডে বর্তমান

বসবাস। পৈত্রিক নিবাস রামপুর ইউনিয়নের

বাসুপাড়া গ্রামে। জীবন চলার প্রথম ধাপে

আর্থিক দৈন্যতায় লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়

লিটনের। অবশেষে বাস টার্মিনালের চেইন

মাস্টারের কাজ করে সে দীর্ঘ ১০ বছর। এত

সময় পার হয়ে গেলেও প্রতিভার বিকাশ

ঘটাতে পারিনি লিটন। ৫০টিরও অধিক তার

ভাস্কর্য রয়েছে। এখন শুধু প্রয়োজন তাকে

সহযোগিতা সাহস জোগালে সে আরও কিছু

জাতিকে দিতে ভাস্কর্র্য উপহার দিতে পারবে।

এ বিষয় আমাদের সবাইকে এগিয়ে আসতে

হবে লিটনের পাশে।

 

 

 

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email