বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ ৫ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরের একই শিক্ষক দু’টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কর্মরত!

একরামুল হক বেলাল,পার্বতীপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধিঃ

পার্বতীপুরে এক শিক্ষক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় দু’টি শিক্ষ প্রতিষ্ঠানে চাকরী করার চাঞ্চল্যকর তথ্য ফাঁস হয়েছে।

জানা গেছে, পার্বতীপুর উপজেলার মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম ২০০৮ সালের ১আগস্ট মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে যোগদান করেন। অপরদিকে, ২০০৩ সালের ১১ জানুয়ারী উপজেলার মধ্যপাড়া মহাবিদ্যালয়ে প্রভাষক (অর্থনীতি) পদে (যাহার স্মারক ম/ক/০৩ অফা-২-০৩, তারিখ০৯/০১/২০০৩ ইং) যোগদান করে বর্তমানেও কর্মরত রয়েছেন।

মধ্যপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি আমিনুল ইসলাম জানান, অভিযুক্ত শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চাকুরীর ফাঁকে ফাঁকে দীর্ঘ দিন থেকে মধ্যপাড়া মহাবিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে শিক্ষাদান করে আসছেন। অজ্ঞাত কারণে সংশি­ষ্ট কর্মকর্তারা বিষয়টি দেখেও না দেখার ভান করছেন। তবে তিনি সভাপতি হিসেবে খুব তাড়াতাড়ি বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির মিটিং ডেকে রেজুলেশনের মাধ্যমে বিষয়টি সরকারের প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মহোদয়সহ বিভিন্ন দপ্তরে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন করবেন। অন্যদিকে, মধ্যপাড়া কলেজের অধ্যক্ষ ওবায়দুর রহমান জানান, একই ব্যক্তি দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরীর বিষয়টি নিয়ে তিনি কলেজ গভর্নিং বডির আলোচনায় বার বার আপত্তি করার পরেও আইনগত কোন ব্যবস্থা নিচ্ছেন না কলেজের গভর্ণিং বডি।

অপরদিকে, সংশি­ষ্ট প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সালাহ্ উদ্দিন রববানী জানান, প্রতিদিন সকাল ১১টার দিকে তিনি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য প্রতিষ্ঠান থেকে হাওয়া হয়ে যান। পরে খোঁজ খবর নিয়ে জানতে পারি তিনি পার্শ্ববর্তী মধ্যপাড়া কলেজে শিক্ষকতা করেন। সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার রুহুল আমীন প্রধান বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত আছি। তবে লিখিত অভিযোগ পেলে ওই শিক্ষকের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

 

এব্যাপারে গতকাল রবিবার সন্ধ্যায় দিনাজপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার একরামুল হক এর কাছে জানতে চাইলে তিনি এ বিষয়ে কিছুই জানেন না বলে জানান। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত শিক্ষক জাহিদুল ইসলাম বলেন, দুটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে চাকুরী করলেও তিনি একটি প্রতিষ্ঠানের কাছে কোন বেতন ভাতা উত্তোলন করেন না।

Spread the love