শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরের চিড়াকুঠা আদিবাসী পল্লীর অবস্থা স্বাভাবিক

মনজুরুল আলম, ষ্টাফ রিপোর্টার, পার্বতীপুরঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুরে জমির বিরোধ নিয়ে সংঘর্ষে তীরবিদ্ধ হয়ে পিতা-পুত্র হতাহত ও পরে আদিবাসী পল্লীতে হামলার ঘটনায় বর্তমানে সেখানকার অবস্থা অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে এসেছে। তীরের আঘাতে আহত ব্যক্তি শংকামুক্ত। ঘটনার পর থেকে ঘটনাস্থলে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প বসানো হয়েছে। সরকারি ভাবে নগদ অর্থ, চাল, কম্বল ও থালাবাসন দেয়া হয়েছে।   অন্যদিকে আদিবাসী পল্লীতে হামলা চালিয়ে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাট করে নিয়ে যাওয়া হয়। পার্বতীপুর মডেল থানার অফিসার ইনর্চাজ মাহমুদুল আলম বলেন, গতকাল মঙ্গলবার পর্যন্ত ২৫াট গরু, ৫াট ছাগল, ২টি ভেড়া, ১টি শ্যালো মেশিন, ৩টি টিউবওয়েল হেড, ১টি সেলাই মেশিন, ১টি রিক্সাভ্যান, বাইসাইকেল, ২ বস্তা ধান, এক বস্তা চাল ও কিছু হাড়িপাতিল পুলিশ উদ্ধার করে প্রকৃত মালিকদের নিকট ফেরত দেয়া হয়েছে। বর্তমানে সেখানে স্বাভাবিক অবস্থা বিরাজ করছে। এ ঘটনায় এ পর্যন্ত নিহতের পক্ষ থেকে একটি হত্যা মামলা করা হয়েছে এবং ১৯ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, উপজেলার হাবিবপুর চিড়াকুঠা গ্রামের আদিবাসীদের সাথে প্রতিবেশি গ্রামের জহুরুল হকের জমিজমা নিয়ে দীর্ঘ দিন থেকে মামলা মোকদ্দমা চলে আসছে। এ বিষয়ে আদালতে মামলাও চলমান আছে। গত ২৪ জানুয়ারী সকাল ৯টার দিকে জহুরুল হক তার পুত্র সোহাগকে সাথে নিয়ে বোরো চাষের জমি তৈরীর জন্য মাঠে যায়। এ সময় ১৫-২০ জনের একটি আদিবাসী দল তাদের বাধা দেয়। এতে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষে তীর বিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলেই সোহাগ (২৬) মারা যায়। মাথায় তীরবিদ্ধ হয়ে জহুরুল হক চিকিৎসাধীন। তার অবস্থা আশংকামুক্ত বলে জানা গেছে।

Spread the love