শুক্রবার ১২ অগাস্ট ২০২২ ২৮শে শ্রাবণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া শিলা খনি নতুন ব্যবস্থাপনায় হস্তান্তর প্রক্রিয়া শুরু

দিনাজপুর প্রতিনিধিঃ আগামী মাস থেকে নতুন ব্যবস্থাপনায় পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া কঠিন শিলা খনির পাথর উত্তোলন কাজ শুরু হতে যাচ্ছে। সোমবার থেকে নতুন ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান বেলারুশের জামার্নিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়ামকে (জিটিসি)খনি হস্তান্তর প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে। নতুন ব্যবস্থাপনায় এক শিফটের পরিবর্তে ৩ শিফটে পাথর উত্তোলন করে লোকসান এড়িয়ে মুনাফা করা সম্ভব বলে খনি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

পার্বতীপুরের মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেডের (এমজিএমসিএল) ব্যবস্থাপনা পরিচালক(এমডি) মোহাম্মদ মঈন উদ্দিন বলেন, এখন থেকে খনির ব্যবস্থাপনা, পরিচালন, উৎপাদন ও রক্ষনাবেক্ষনের দায়িত্ব পালন করবে বেলারুশের ট্রেস্ট সকটোসট্রয়(Trest Soktostroy) ও দেশীয় প্রতিষ্টান জার্মানি করপোরেশন (Germany Corporetion)  নিয়ে গঠিত ট্রেস্ট কনসোর্টিয়াম(জিটিসি)। জামার্নিয়া ট্রেস্ট কনসোর্টিয়ামের সাথে ৬ বছরের জন্য গত ২ সেপ্টেম্বর চুক্তি সাক্ষরিত হয়। ঠিকাদারি প্রতিষ্টান ইতিমধ্যে ব্যাংক গারান্টি প্রদান করেছে। খনির দায়িত্ব বুঝে নেওয়ার জন্য জিটিসি’র ডেপুটি প্রজেক্ট ডাইরেকটর মি.আলেকজান্ডার বিতরোভিত এর নেতৃত্বে ১৮ সদস্যের একটি দল শনিবার খনি এলাকায় আসেন। গতকাল সোমবার থেকে খনি হস্তান্তর প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে।

নতুন ব্যবস্থাপনায় এক শিফটের পরিবর্তে ৩ শিফটে পাথর উত্তোলন করা হবে। উৎপাদন ও অন্যান্য খরচ বাবদ জিটিসিকে প্রতি টনে প্রায় ১৬ ইউএস ডলার বিল পরিশোধ করতে হবে। জিটিসির অর্থ পরিশোধ করেও মুনাফা অর্জন সম্ভব হবে। গত অর্থবছরে মাত্র ৯৭ লাখ টাকা লোকসান দিয়েছে এমজিএমসিএল। লোকসানের মুখে বন্ধ হওয়ার উপক্রম হওয়ায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয় বলে তিনি জানান। এমডি জানান আরও বলেন, চাহিদা থাকলেও অর্থ ও দক্ষ জনবলের অভাবে এতদিন এক শিফটে পাথর উত্তোলন করা হচ্ছিল। দৈনিক ১ হাজার ৮শ’ মেট্রিক টন উত্তোলনের লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে গড়ে উত্তোলন করা হতো মাত্র ১ হাজার মেট্রিক টন। লোকসান কমলেও কেন ঠিকাদারের হাতে দেওয়া হচ্ছে এমন প্রশ্নের জবাবে এমডি বলেন, কোম্পানিটি আরও উন্নত প্রযুক্তি ব্যবহার করবে। এতে এমজিএমসিএল মুনাফায় চলে যাবে।

উল্লেখ্য, উত্তর কোরিয়ার নামনাম কোম্পানি খনি বাস্তবায়ন শেষে ১৯৯৪ সালে পাথর উত্তোলন শুরু করে। ২০০৭ সালে বাংলাদেশ সরকার মধ্যপাড়া গ্রানাইট মাইনিং কোম্পানি লিমিটেড নিজ  দায়িত্বে নিয়ে নেয় এবং পেট্রোবাংলা খনিটি পরিচালনা করে আসছিল। বর্তমানে ২৫০ মিলিমিটার(এমএম) আকারের উর্ধ্বে প্রতিটন পাথর ২০ ডলার, ৫-২০ এমএম ২৬ ডলার, ২০-৬০ এমএম ২৩ ডলার, ৬০-৮০ এমএম ২২ ডলার, এবং ০-৫ এমএম(ডাস্ট) বিক্রি করা হচ্ছে ৫ ডলারে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email