বুধবার ১৭ অগাস্ট ২০২২ ২রা ভাদ্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরের হরিরামপুর বনভুমির অধিকাংশ এলাকাই বেদখল \ এলাকাবাসীর নামে ২৫/৩০টি মামলা

একরামুল হক বেলাল, পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধি : দিনাজপুরের পার্বতীপুরের হরিরামপুরে সামাজিক বনায়ন প্রকল্পের ১৩২ একর বনভুমির মধ্যে ১০ একরে বনায়ন করা হলেও বর্তমানে ১২২ একর জমি বেদখলে রয়েছে। বন সংলগ্ন এলাকাবাসীরা নিজেদের জমি দাবী করে সুকৌশলে বনভুমি এলাকার জমি নিজেদের দখলে নিয়ে রীতিমত চাষাবাদ করছেন। বনভুমি উজার করে জমি দখলের সময় বাধা প্রদান করতে গেলে ভুমি দখলকারীরা বন বিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রকাশ্যে হুমকি ধুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করছেন। ফলে এখানে কর্মব্যরত বনবিভাগের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা চরম নিরাপত্তা হীনতায় ভুগছেন। পার্বতীপুর উপজেলার ১০ নং হরিরামপুর ইউনিয়নের শাহ্ পাড়াসহ বিরাট এলাকা নিয়ে গড়ে উঠেছে বনভুমি। বনভুমি জমির পরিমান ১৩২ একর। কাগজে কলমে ১৩২ একর জায়গা নিয়ে বনভুমি গড়ে উঠলেও বর্তমানে মাত্র ১০ একর জমির উপরে গাছ রয়েছে। বাকি ১২২ একর জমি দখল করে এলাকার লোকজন চাষাবাদ করছেন। শাহপাড়া এলাকার নছির উদ্দিনের পুত্র কুরবান (৩৫) জানান, একই এলাকার রাসেল ডাঃ ও তার আত্মীয় স্বজনেরা ৪ হাজার টাকার বিনিময়ে তাকে দিয়ে বনভুমির গাছ কাটিয়ে জমি দখল করে চাষাবাদ করছে। এভাবেই অনেকেই বনভুমির গাছ কেটে জায়গা দখল করে নিয়েছে। শাহপাড়া এলাকার মৃত আকবর আলীর পুত্র আনোয়ার আলী শাহ দাবি করেন, বনভুমি এলাকায় তার ৭ একর জমি রয়েছে। এই জমি চাইতে গিয়ে বনবিভাগের পক্ষ থেকে তার বিরুদ্ধে ১১ টি গাছ কাটার মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। একই গ্রামের আজমল হক শাহ (৭২), জয়নাল আবেদিন (৩৫) নজমুল হক মোল­v (৬৫)’সহ ৩০/৪০ জন জমির দাবীদারের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করেছে বন বিভাগ। তাদের দাবী তাদের জমি বনবিভাগ থেকে ক্রয় করা না হলেও বনবিভাগ সেগুলো তাদের দখলে রেখেছে। বন বিভাগের মধ্যেই দক্ষিন হরিরামপুর আশ্রয়ন প্রকল্পের সভাপতি শাহাজাহান আলী, মহববত আলী, রেহেনা বেগম, জুলেখা বেগম অভিযোগ করে বলেন, গত ৬/৭ দিন পূর্বে এলাকার মশিউর মাষ্টার, রবি, কিবরিয়া আমিনুল মাষ্টার, রাসেল ডাঃ সহ বেশ কিছু লোক একত্রিত হয়ে বন ভূমি এলাকায় প্রায় ২’শ আমগাছ লাগায়। অথচ তাদের নামে মামলা না করে বন বিভাগ উল্টো শাহাপাড়া এলাকার আনোয়ার হোসেন শাহসহ ২১জনকে আসামী করে গাছ কাটার মামলা দায়ের করেন। এভাবেই তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে।BON 1 copyBON-2 copy

বুধবার বিকেলে সরজমিনে ঘটনাস্থলে গিয়ে আনোয়ার হোসেন শাহ এর সাথে কথা বলার সময় সাদা পোশাকধারী কয়েকজন পুলিশ তাকে ধরে মধ্যপাড়া পুলিশ ফাঁড়ীতে নিয়ে যায়। এ ব্যাপারে আজ বৃহস্পতিবার মুটোফোনে মধ্যপাড়া পুলিশ ফাঁড়ীর ইনচার্জ এস আই মোছাদ্দেক হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, কৌশলগত কারনেই সাদা পোশাকধারী পুলিশ দিয়ে তাকে ধরা হয়েছে।

বন বিভাগের রেঞ্জ অফিসার আলহাজ্ব ফজলুল হক জানান, এ বন ভুমিতে ১শ’ একর জমির উপরে আকাশ মনির বাগান ছিল। কিন্তু ভুমি দস্যুরা গাছ কেটে ভুমি দখল করায় বনের পরিধি কমে এসেছে। তিনি বলেন, এসব ভুমি দস্যুদের বিরুদ্ধে ইতোমধ্যে ২৫/৩০টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। তবে সামাজিক বনায়নের কারনে বন আইন প্রয়োগ করা যাচ্ছে না বলে কঠোর ভাবে এগুলো দমন করা সম্ভব হচ্ছে না। তারপরেও ব্যবস্থা নিতে যেয়ে স্থানীয় আইন প্রয়োগকারী সংস্থার অসহযোগিতার কারনে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি। জনবল ও যানবাহন সংকটের কারনে ইচ্ছা থাকা সত্বেও সব কাজ করা সম্ভব হচ্ছে না।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email