শনিবার ২১ মে ২০২২ ৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে অগ্নিদগ্ধের ১৬ দিন পর গৃহবধুর মৃত্যু

দিনাজপুর প্রতিনিধি: পার্বতীপুরে গৃহবধু আফিয়া জামান মিতা অগ্নিদগ্ধ হয়ে দীর্ঘ ১৬ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল মঙ্গলবার মৃত্যুবরণ করেছে। মিতা পার্বতীপুর কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানার কর্মচারী শহরের দক্ষিণপাড়া মহল্লার সৈয়দ বদিউজ্জামানের কন্য। এবং রোস্তমনগর মহল্লার রেল কর্মচারী ওয়াসিবুর রহমান শুভ’র স্ত্রী। বিচারের দাবীতে আজ বুধবার দুপুরে মিতার লাশ নিয়ে স্থানীয় শহীদ মিনারে অবস্থান করে মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ জানায়।

গত ১৬ ডিসেম্বর সোমবার দিবাগত রাত ২টার দিকে আফিয়া জামান মিতার(২০)নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। এ ঘটনায় মিতার ৭০ ভাগ শরীর অগ্নিদগ্ধ হয়। মূমুর্ষ অবস্থায় রাতেই তাকে স্থানীয় ল্যাম্ব হাসপাতালে পরে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে মিতার অবস্থার অবনতি হলে পরদিন মঙ্গলবার রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় দীর্ঘ ১৬ দিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে অবশেষে গতকাল মঙ্গলবার বেলা ৩টার দিকে মিতা মৃত্যুবরণ করেন। আজ বুধবার ভোরে মিতার লাশ পার্বতীপুরে তার বাবার বাড়ী এলে এলাকায় শোকের ছায়া নেমে আসে।

পারিবারিক সূত্রটি জানায়, পার্বতীপুর শহরের দক্ষিনপাড়া মহল্লার বদিউজ্জামান এর কন্যা আফিয়া জামান মিতা’র বিয়ে হয় গত দু’মাস পূর্বে খুলনার রুপসা উপজেলার পাচালী গ্রামের ওহিদুর রহমানের পুত্র আসিবুর রহমান শুভ’র সংগে। তারা  আরো জানায়, মিতার সংগে দীর্ঘদিন থেকে জনৈক এক ছেলের সংগে প্রেম চলছিল। ঘটনার কয়েক দিন পূর্বে মোবাইল ফোনে এস,এম,এস করাকে কেন্দ্র করে স্বামী স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হয়। মোবাইল ফোনে প্রেমের কথোপকথন ও এসএমএস আদান প্রদানের ঘটনা ধরা পড়ার পর মিতার সাথে শশুড় পরিবারের সম্পর্কের অবনতি ঘটে। গত ১১ ডিসেম্বর বুধবার মিতা রংপুরের তাজহাট এ্যাগ্রিকালচার হোস্টেলে ছিল। মিতা গত ১৩ ডিসেম্বর শুক্রবার সন্ধায় শ্বশুর রেলওয়ে ট্রেন পরিচালক ওহিদুর রহমানের সাথে পার্বতীপুরে আসে। ১৫ ডিসেম্বর রবিবার সকালে মিতা তার বাবার বাড়ী গিয়ে বিকেলে ফিরে এসে ১৬ ডিসেম্বর রাত ২টার দিকে বাথরুমে গিয়ে নিজের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে দেয়। এসময় তার চিৎকারে পাশের রুমে থাকা শ্বাশুড়ী ও ননদ জেগে উঠে বাথরুম থেকে মিতাকে উদ্ধার করে তার বাবা মা কে মোবাইল ফোনে খবর দেয়। সবাই মিলে রাতেই স্থানীয় ল্যাম্ব হাসপাতালে নিয়ে যায় মিতাকে। পরে গুরুত্বর অবস্থায় রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। পরে চিকিৎসকদের পরামর্শে উন্নত চিকিৎসার জন্য সেখান খেকে মিতাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

ঘটনান্তে পুলিশ ১৭ ডিসেম্বর বিকেল ৩টার দিকে মিতার শ্বাশুড়ী নাসিমা খাতুন, ননদ এসএসসি পরিক্ষাথী তামান্না ইয়াসমিন সেতু ও সেতুর বান্ধবী নাজমা আকতার সিমাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসে। পরে রাতেই নাজমা আকতার সিমাকে ছেড়ে দেয়। মিতার ফুপা কাজী তোফাজ্জাল হোসেন বাদী হয়ে পার্বতীপুর মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। বিচারের দাবীতে আজ বুধবার দুপুরে নিহত মিতার লাশ নিয়ে স্থানীয় শহীদ মিনারে অবস্থান করে মানব বন্ধন ও প্রতিবাদ জানায়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email