বৃহস্পতিবার ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৬শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে অর্ধ কোটি টাকার নিয়োগ বাণিজ্যের তদন্ত শুরু

দিনাজপুরের পার্বতীপুর মন্মথপুর ইবিএসই আলিম মাদরাসার সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ শান্তু ও অধ্য মোহসীন আলীর বিরুদ্ধে শিক্ষক নিয়োগে ৫৬ লাখ টাকা ঘুষ গ্রহনের আনিক অভিযোগের তদন্ত শুরু হয়েছে। পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাহেনুল ইসলাম এই তদন্ত শুরু করছেন।
জানা গেছে, গত ১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষের সরকারী ছুটির দিন মন্মথপুর ইবিএসই আলিম মাদরাসায় গণিত বিষয়ে শিক্ষক নিয়োগের পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়। ওই দিনই ৭ লাখ টাকা নিয়ে জনৈক আলমগীর হোসেনকে নিয়োগ প্রদান করা হয়। এর আগে কয়েক দফায় এভাবে আরও ৭ জন শিক নিয়োগ দেওয়া হয়। এসব নিয়োগে মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক শহিদুল হক, সিনিয়র প্রভাষক (আরবি) নুর মোহাম্মদ ও প্রভাষক আন্দুল সালামের সহযোগিতায় সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ শান্তু ও অধ্য মোহসীন আলী শিক্ষক প্রতি ৭ লাখ টাকা হিসেবে ৫৬ লাখ উৎকোচ গ্রহণ করে। সে কারণে নিয়োগের ক্ষেত্রে কোন প্রকার বিধিও মানা হয়নি।
এ বিষয়ে মাদাসার ২১ জন শিক্ষক কর্মচারী যৌথ সাক্ষরে পৃথক দুটি অভিযোগ গত ১৬ এপ্রিল স্থানীয় সাংসদ প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রি মোস্তাফিজুর রহমান ও পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নিকট দাখিল করেন। উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে মন্ত্রীর নির্দেশে পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রাহেনুল ইসলাম গতকাল বুধবার থেকে তদন্ত শুরু করেছেন।
এ বিষয়ে মন্মথপুর ইবিএসই আলিম মাদরাসার অধ্য মোহসীন আলীর সাথে মোবাইলফোনে বারবার যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও তিনি মোবাইল ফোন রিসিভ করেননি। মাদরাসার সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ শান্তু তার বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ অস্বীকার করে জানান-বিধি মোতাবেক নিয়োগ দেয়া হয়েছে। বাংলা নববর্ষ উদযাপন নিয়ে যখন সারা দেশের লোকজন আনন্দ ভাগা ভাগিতে ব্যস্ত, তখন আপনারা নিয়োগ পরীক্ষা নিলেন কেন? এমন প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, আমরা আমাদের সুবিধা মত সময়ে যে কোন দিন পরীক্ষা গ্রহণ ও নিয়োগ দিতে পারি।
পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) রাহেনুল ইসলাম অভিযোগ পাওয়ার কথা স্বীকার করে জানান, মন্ত্রীর নির্দেশে শিক্ষক-কর্মচারীদের অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেলে দোষিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থাগ্রহণ করা হবে।