মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে আন্তঃনগর ট্রেনে রেল পুলিশের চেয়ার বাণিজ্য

দিনাজপুর প্রতিনিধি : বিনা টিকিটে কম টাকায় ট্রেনে চড়ে দিনাজপুর-ঢাকা এবং ঢাকা- দিনাজপুর যাতায়াত করছে। ট্রেনে যাত্রী নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত রেল পুলিশ এখন নেমে পড়েছে চেয়ার বাণিজ্যে। এই পদ্ধতিতে দুটি ট্রেনে মাসে ৫ হাজার যাত্রী পরিবহন করা হয়। এতে লোপাট হচ্ছে মাসে কয়েক লাখ টাকা। আর রেল বঞ্চিত হচ্ছে মাসে ১৮ লাখ টাকার আয় থেকে।

ট্রেনে যাত্রী নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত রেল পুলিশ এর পাশাপাশি ট্রেনে ডিউটিরত অ্যাটেনডেন্ট, গার্ড, ড্রাইভার, ইলেকট্রিক মিস্ত্রি, খাওয়ার গাড়ির স্টাফ সবাই নেমে পড়েছে বিনা টিকিটের যাত্রী পরিবহনে। প্রতিটি ট্রেনে অন্তত অর্ধশত যাত্রী থাকে বিনা টিকিটের। দিনাজপুর ও পার্বতীপুর থেকে ঢাকা রুটে নীলসাগর, দ্রুতযান ও একতা নামে ৩টি আন্তঃনগর ট্রেন চলাচল করে। একজন এসআই অথবা এএসআইসহ ৫-৬ জন পুলিশ নিয়ে ট্রেনে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকে রেল পুলিশ। একতা ট্রেনে দিনাজপুর রেল পুলিশ ও দ্রুতযান ট্রেনে থাকে পার্বতীপুর রেল পুলিশ। তবে নীলসাগর ট্রেনে চেয়ার বাণিজ্য এখনও তেমন চালু হয়নি। দ্রুতযান ও একতায় রেল পুলিশ পার্বতীপুর স্টেশন থেকে কমপক্ষে ৩০টি প্লাস্টিক চেয়ার এবং টুল তুলে খাওয়ার গাড়ি এবং কোচের সুবিধাজনক স্থানে বসিয়ে রাখে। ট্রেন স্টেশনে থামলেই দু’একজন পুলিশ কাউন্টারের সামনে গিয়ে বিনা টিকিটের যাত্রী সংগ্রহ করে চেয়ারে বসিয়ে জনপ্রতি ২৫০ থেকে ৩০০ টাকা আদায় করে। টিকিট সংকট থাকলে চেয়ার সার্ভিসের টাকার পরিমাণ আরও বেড়ে যায়। আর আসন ছাড়া টিকিট না কেটে যাত্রীরা পুলিশের চেয়ার সার্ভিসেই যাওয়ার বেশি চেষ্টা করে। রেল পুলিশ প্রতিদিন এভাবে গড়ে ৩০ জন যাত্রী ঢাকায় নিয়ে যায় এবং ফিরতি ট্রেনে আবার সমসংখ্যক যাত্রী নিয়ে আসে। এতে রেল পুলিশের একদিনে একটি ট্রেনে আয় ১৫ হাজার টাকা। একতা ও দ্রুতযান ট্রেন মিলে তাদের প্রতিদিনের আয় ৩০ হাজার টাকা। এ ছাড়া ফাঁকা আসন পেলেই সেখানে বিনা টিকিটের যাত্রী পরিবহন করা হয়। একইভাবে ট্রেনের অন্য স্টাফরাও গড়ে একেকটি ট্রেনে ২০ জন করে জন প্রতি ২৫০ টাকা নিয়ে প্রতিদিন দুই ট্রেন থেকে ২০ হাজার টাকা আয় করছে। এ হিসাবে দিনাজপুর-ঢাকা এবং ঢাকা-দিনাজপুর চলাচলকারী দুই ট্রেনে অফ-ডে বাদে মাসে ৫ হাজার যাত্রী পরিবহন করে চক্রটি। এতে মাসে আত্মসাৎ হচ্ছে কমপক্ষে সাড়ে ১২ লাখ টাকা। আর রেল এসব যাত্রীর টিকিট বাবদ বঞ্চিত হচ্ছে মাসে ১৮ লাখ টাকা।

তবে এসব অভিযোগ ঠিক নয় বলে দাবি করেন পার্বতীপুর রেল থানার ওসি ইসমাইল হোসেন। তিনি জানান, পুলিশ কিছু চেয়ার রাখে তাদের নিজেদের বসার জন্য।

পার্বতীপুর রেল জংশনের এরিয়া অপারেটিং ম্যানেজার শাহ আলম তালুকদার বলেন, রেল পুলিশ ট্রেনে চেয়ার উঠিয়ে যাত্রী পরিবহনে নেমে পড়েছে। দেখতে লজ্জা লাগে, পুলিশ টিকিট কাউন্টারের সামনে গিয়ে যাত্রী সংগ্রহ করে। কোনো বাধাই তারা মানতে চায় না। ট্রেনের কন্ডাক্টর-গার্ডের কথাকে তারা পাত্তা দেয় না।