শুক্রবার ২৭ মে ২০২২ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে কাবিখা প্রকল্পে লুটপাট ঝুলানো হয়নি সাইনবোর্ড

দিনাজপুর প্রতিনিধি : মহাজোট সরকারের শেষ সময়ে বরাদ্দ দেয়া দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলায় কাজের বিনিময়ে খাদ্য (কাবিখা) কর্মসূচির ১৪টি প্রকল্পের নাম সর্বস্ব কাজ দেখিয়ে তুলে নেয়া হচ্ছে বরাদ্দকৃত চাল। কাবিখার কোনো প্রকল্পেই ঝুলানো হয়নি সাইনবোর্ড। অধিকাংশ প্রকল্পেই নাম সর্বস্ব কাজ দেখিয়ে তুলে নেয়া হচ্ছে বরাদ্দকৃত সমুদয় টাকা। উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য বরাদ্দকৃত প্রতি টন চালের দাম সরকারীভাবে ৩৩ হাজার ৮শ’ ৫ টাকা বেধেঁ দেওয়া হলেও ডিও সিন্ডিকেট সক্রিয় থাকায় প্রতি টন চাল বিক্রি হচ্ছে ১৯ থেকে ২০ হাজার টাকায়। উপজেলা পিআইও অফিস সুত্রে জানা যায়, চলতি ২০১৩-১৪ অর্থ বছরে উপজেলার ১৪টি গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষণাবেক্ষণ প্রকল্পের অনুকুলে ১শ’ ৮৭ মেট্রি্ক টন চাল বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

গতকাল বৃহস্পতিবার একাধিক প্রকল্প চেয়ারম্যান জানান, পিআইওদের টাকা দিলে কাজ কেমন হয় তা দেখার প্রয়োজন তারা মনে করেন না। যেহেতু তাদের টাকা দিতেই হবে তাই কাজ ভালো করে লাভ কি বলে অভিমত প্রকাশ করেন প্রকল্প চেয়ারম্যানরা।

পিআইও অফিস সহকারী শাজাহান আলী বলেন, তার বিরুদ্ধে পত্রিকায় লিখে কোনো কাজ হবে না।

বর্তমান পিআইও যোগদানের পর থেকেই লুটপাটের মহোৎসব চলছে। প্রকল্প এলাকায় কাজ শুরু হওয়ার আগে কাজের বিবরণ সংবলিত একটি সাইনবোর্ড লাগানোর কথা থাকলেও সরেজমিনে প্রকল্প গুলো দেখা গেছে, কোনোটিতেও নেই সাইনবোর্ড। কেন সাইনবোর্ড নেই? এ প্রশ্ন করা হলে পার্বতীপুর উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা কাজ করি। ভাল করে দেখেন প্রতি প্রকল্পেই ঝুলানো আছে সাইনবোর্ড। এদিকে প্রকল্প বাস্তবায়নের শর্ত হিসেবে কাবিখার ক্ষেত্রে প্রতি ঘন মিটার মাটি কাটার জন্য শ্রমিকদের ২ কেজি ৪৮৯ গ্রাম করে চাল দেয়ার বিধান থাকলেও প্রকল্পের চেয়ারম্যানরা চাল বিক্রি করে শ্রমিকদের নগদ অর্থ দিয়ে মজুরি পরিশোধ করছেন।

সরেজমিনে প্রকল্প দেখা গেছে, কোনো প্রকল্পেই সাইনবোর্ড টাঙানো হয়নি। উপজেলার চন্ডিপুর ইউনিয়নের রাস্তা নির্মাণ প্রকল্পের কাজে নিয়োজিত শ্রমিকরা অভিযোগ করে বলেন, তারা প্রত্যেকেই প্রতিদিন ৫ থেকে ৬ ঘন মিটার মাটি কাটেন। ৫ ঘন মিটার মাটি কাটলে প্রতিদিন ১২ কেজি ৪৪৫ গ্রাম চাল পাওয়ার কথা। প্রতি কেজি চালের দাম ৩৩ টাকা করে হলে ১২ কেজি ৪৪৫ গ্রাম চালের দাম হয় ৪১৮ টাকা। সেখানে প্রত্যেক শ্রমিককে ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা করে দেয়া হচ্ছে। ওই প্রকল্পের চেয়ারম্যানরা জানান, বিনা মজুরিতে তারা শ্রমিকদের দিয়ে মাটি কাটাচ্ছেন না। চালের পরিবর্তে শ্রমিকদের টাকা দেয়া হচ্ছে। কথা হয় চন্ডিপুর ইউনিয়নের পরিষদের মহিলা সদস্য জয়া রানীর সঙ্গে। প্রকল্প চেয়ারম্যান হিসেবে তার বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তাকে টাকা দিয়েছি, তাই সাইনবোর্ডের দরকার নেই, কাজ শতভাগ করারও দরকার নেই।

অভিযোগ রয়েছে, চন্ডিপুর ইউনিয়নের কালিকা বাড়ী কুমার পাড়া হতে বারকোনা পর্যন্ত রাস্তা মেরামতের ৯ মে.টন বরাদ্দ হয়। কিন্তু ওই মহিলা সদস্য জয়া রানী মাত্র ৩০ হাজার টাকায় শ্রমিকদের নগদ অর্থ দিয়ে মজুরি পরিশোধ করার কথা স্বীকার করেন।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email