শনিবার ২০ এপ্রিল ২০২৪ ৭ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে কেন্দ্রীয় লোকোমেটিভ কারখানায় উৎপাদন কমেছে

পার্বতীপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধি : পার্বতীপুরে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানা কেলোকা)’র প্রশাসনিক অদক্ষতার কারনেই দেশের রেল ইঞ্জিনের ভারী মেরামতের একমাত্র প্রতিষ্ঠান উৎপাদন প্রায় অর্ধেকের নেমে এসেছে। ইতোপূর্বে বছরে এ কারখানা থেকে সর্বোচ্চ ২৭টি রেল ইঞ্জিন বের হলেও সমাপ্ত অর্থ বছরে যন্ত্রাংশের অভাব ও প্রশাসনিক অদক্ষতার কারনেই ১৭টির রেল ইঞ্জিন মেরামত হয়েছে। যে কোন সময় আবারও লোকোমোটিভ ইঞ্জিন গুলো বিকল হতে পারে।

পার্বতীপুর রেলওয়ে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানা সূত্রে জানা গেছে- ১৯৮৫ সালে দেশের রেল যোগাযোগ ব্যবস্থায় বাস্প চালিত রেল ইঞ্জিনের পরিবর্তে ডিজেল চালিত ইঞ্জিনের প্রতিস্থাপনের কাজ শেষ হয়। এসময় থেকে দেশে ডিজেল ইঞ্জিন মেরামতের কারখানা প্রতিষ্ঠার প্রয়োজনীয়তা দেখা দেয়।

বাংলাদেশ রেলওয়ে পশ্চিমাঞ্চলের পার্বতীপুর, পূর্বঞ্চলের পাহাড়তলী ও ঢাকায় স্থাপিত ছোট আকারের (পকেট সাইজ) এ তিন ডিজেল কারখানার ত্রুটিপুর্ন ডিজেল চালিত লোকোমোটিভ রেল ইঞ্জিন মেরামত করা হতো। কিন্তু এতে চাহিদা মত লোকোমোটিভ গুলোর ভারী মেরামত সম্ভব না হওয়ায় ১৯৯২ সালে সৌদি উন্নয়ন তহবিলের সহযোগিতায় ২০৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ১শ ১১একর জায়গার উপরে পার্বতীপুরে কেন্দ্রীয় লোকোমোটিভ কারখানা (কেলোকা) প্রতিষ্ঠা করা হয়।

১৯৯৪ সাল থেকে এখানে রেলওয়েতে ব্যবহৃত সকল ডিজেল চালিত রেল ইঞ্জিনের প্রতি ৬ বছর পরপর ভারী মেরামত করা হয়। প্রায় ২২ হাজার যন্ত্রাংশে প্রস্তুত প্রতিটি রেল ইঞ্জিনের ভারী মেরামতের সময় এর প্রতিটি যন্ত্রাংশ আলাদা করে পরিস্কার করা হয়। ত্র‘‘টিপুর্ন যন্ত্রাংশ মেরামত যোগ্য হলে মেরামত করে অথবা না হলে বাদ দিয়ে নতুন যন্ত্রাংশ লাগানো হয়। এভাবে পুনঃ সংযোজিত ইঞ্জিনটি নতুনের মত কর্মক্ষম হয়ে উঠে। এসব কাজে ব্যবহৃত শতকরা ৯৫ ভাগ যন্ত্রাংশ দরপত্রের মাধ্যমে বিদেশ থেকে আমদানি করা হয়। অবশিষ্ট ৫ ভাগ যন্ত্রাংশ দেশিও বাজার থেকে সংগ্রহ করা হয়।

কেলোকার প্রয়োজনীয় যন্ত্রাংশ দেশী ও বিদেশী বিভিন্ন ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান থেকে দরপত্রের মাধ্যমে ক্রয় করা হয়। বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক’র নেতৃত্বে ৭ সদস্যের ক্রয় কমিটি টেন্ডারের মাধ্যমে তালিকাভুক্ত ঠিকাদার দের নিকট থেকে এসব যন্ত্রাংশ সংগ্রহ করে থাকে। ক্রয় কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন অতিরিক্ত মহাপরিচালক (আরএস), অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অর্থ), বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন শিক্ষক, পানি উন্নয়ন বোডের্র প্রধান প্রকৌশলী, বাংলাদেশ রেলওয়ের প্রধান সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক ও প্রধান যান্ত্রিক প্রকৌশলী (ইঞ্জিন)।

সংশিষ্ট কর্তৃপক্ষ সুত্রে জানা গেছে- কেন্দ্রীয় লোকোমেটিভ কারখানায় রেলইঞ্জিনের ভারী মেরামতের জন্য কমপক্ষে ৬০০০ হাজার ধরনের যন্ত্রাংশ আমদানি করার দরকার ছিল। কিন্তু গত ৬ বছরে ৬০ টির বেশি যন্ত্রাংশ আমদানি করা সম্ভব হয়নি। সর্বশেষ ২০১২ সালের ১০ জুন মাত্র ৮৪৮ ধরনের যন্ত্রাংশ আমদানির জন্য আন্তর্জাতিক দরপত্র আহবান করা হয়। এতে তালিকাভুক্ত ২৬-২৭টি বিদেশী ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান দরপত্র দাখিল করে। দরপত্র খোলা হয় একই বছরের ৩ সেপ্টেম্বর। কিন্তু দরপত্র প্রক্রিয়া চুড়ান্ত করতে না পারায় ২১/১১/২০১২ প্রথম দফা, ১৯/০২/২০১৩ দ্বিতীয় দফাও গত ১৫/০৭/২০১৩ তৃতীয় দফা দরপত্রের মেয়াদ কাল বাড়ানো হয়। কেলোকা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন-বর্তমান ক্রয় পদ্ধতি একটি জটিল প্রক্রিয়া।

পূর্বে ১৯৯২ সাল পর্যন্ত মূল ইঞ্জিন প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানই খুচরা যন্ত্রাংশ সরবরাহ করতো। এজন্য প্রতি বছর তারা পরিবহন খরচসহ খুচরা যন্ত্রাংশের মুল্য তালিকা পাঠাতো। বাংলাদেশ রেলওয়ের মূখ্য সরঞ্জাম নিয়ন্ত্রক (সিসিএস) কোন টেন্ডার ছাড়াই প্রত্যক্ষ ক্রয় পদ্ধতিতে যেকোন মুহুর্তে চাহিদা মত যন্ত্রাংশ কিনতে পারতো। দাতা সংস্থা কানাডিয়ান ইন্টারন্যাশনাল ডেভলপমেন্ট এজেন্সি ১৯৯৬-৯৮ সালে বিকল্প সরবরাহকারীদের নিকট থেকে প্রতিযোগীতামুলক দামে যন্ত্রাংশ ক্রয়ের সুপারিশ করে এবং রেল কর্তৃপক্ষও তা গ্রহন করেন। তখন থেকে তালিকাভূক্ত ঠিকাদার দের নিকট থেকে দরপত্রের মাধ্যমে যন্ত্রাংশ ক্রয় প্রক্রিয়া শুরু হয়। কেলোকা কর্তৃপক্ষের অভিযোগ-এর ফলে খুচরা যন্ত্রাংশ সংগ্রহ প্রক্রিয়া জটিল হয়ে পড়ে ও ক্রয়কৃত মালামালের গুনগত মানও পড়ে যায়।

কেলোকার প্রধান নির্বাহী মৃণাল কান্তি বনিক মঙ্গলবার নিজের কর্ম অদক্ষতার কথা অস্বীকার করে বলেন, বর্তমানে সাবেক প্রধান নির্বাহী হাসান মনসুর এ জায়গায় থাকলে তিনি একবারে হছট খেয়ে যেতেন। তিনি আরো বলেন-খুচরা যন্ত্রাংশের আভাব থাকা সত্তেও পুরাতন লোকোমোটিভ ইঞ্জিন থেকে পুরাতন যন্ত্রাংশ নিয়ে গত অর্থবছরে ১৭টি লোকোমোটিভ ইঞ্জিন জেনারেল অভারহোলিং ও ২১টি স্পেশাল মেরামত করা হয়েছে। এ ১৭টি লোকোমোটিভ ইঞ্জিন চলাচলে পুরো নিশ্চিত নয়। যে কোন সময় আবারও বিকল হতে পারে। বর্তমানে শতাধীক লোকোমোটিভ ইঞ্জিন জেনারেল অভারহোলিং এর অপেক্ষায় রয়েছে।

অতিরিক্ত মহাপরিচালক (আরএস) খলিলুর রহমান বলেন, বর্তমানে কেলোকায় দায়ীত্বরত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রয়েছেন তার অদক্ষতার কারনেই কেলোকার লোকোমোটিভ মেরামত ধীরগতীতে চলে এসেছে।

Spread the love