বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে ক্ষতিগ্রস্থ আদিবাসীদের সাহায্যের আকুতি

দিনাজপুর প্রতিনিধি: কাঁয়ো কথা থোয় (রাখে) নাই। সবায় হামাক ঠকাসে। দেওয়ার পানি (আকাশের বৃষ্টি) আইলে হারা ভাঙ্গা বাড়ীত ক্যাংকা করি থাকমো। গেরামত মন্ত্রী, এমপি, ডিসি, পাটির ন্যাতারা আইছিল। হামাক কয়া গিছে, টিন দিবে, গরু দিবে, ঘর-বাড়ী ঠিক করি দিবে। তয় দেড় মাস পার হইলিও কারো খবর নাই বাহে। হারা তো কিছুই তো পানুনা। সবায় হামাক ঠকাসে। এ্যালাও ভুই গাড়বার (রোপা লাগাতে) পারি নাই। হারা ক্যাংকা (কেমন) করি বাঁচমু।

আজ বৃহস্পতিবার সকালে পার্বতীপুরের হাবিবপুর চিড়াকুটা সাঁওতাল পলস্নীতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রাম পরিদর্শনে গেলে মনের দুঃখে এসব কথা বলছিলেন ঘটনায় নিঃস্ব আদিবাসী বৃদ্ধা শান্তনী বেসরা (৮০)। জেলহাজতে আটক সংখ্যালঘু বাচ্চু বর্মনের স্ত্রী ছায়া রানী জানান, ঘরের টিন, টিউবওয়েল, দরজা, কিছুই নাই ঘরে থাকতেই পারছিনা। আমি বাইরে গাছের তলায় রাত কাটিয়ে কোন মতে বেঁচে আছি।

ক্ষতিগ্রস্থ আদিবাসী নারী মারিয়া হেমব্রম বলেন, আমার ঘরে কিছুই নাই। আমার ঘর, গরু সবই গেছে। আমার যে চাষযোগ্য জমি ছিল সেটাও বিবাদীর হুমকিতে চাষবাদ করতে পারছি না। বর্তমানে আমি অসহায় ভাবে দিন যাপন করতেছি। তিনি বলেন, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ঘটনার দেড় মাস পেরিয়ে গেলেও এখনও পূর্নবাসিত হয়নি সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ ১০টি আদিবাসী পরিবার। খোলা আকাশের নীচে মানববেতর জীবন যাপন করছে তারা। আদিবাসীদের দায়ের করা মামলায় আসামীরা জামিনে এসে আবারও হুমকি দিচ্ছেন বলে জানান তিনি।

ক্ষতিগ্রস্থ ফুলমতি হাসদা বলেন, প্রশাসন ঘটনার পর এক মন করে চাল দিসে, আর শীতের কম্বল দিছে। এনজিও গুলো রান্না বান্নার জন্য বাসন পত্র। নারীদের ব্যবহারের কাপড় কেউ দেয় না্ই। এখন আমরা শুধু মাড়-ভাত খেয়ে বেচে আছি।

উল্লেখ্য, গত ২৪ জানুয়ারীর সাঁওতাল পল্লীতে হামলা অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটে ঘটনা ঘটে। ঘটনার পর গত ২ফেব্রুয়ারী ক্ষতিগ্রস্থ হাবিবপুর চিড়াকুটা সাঁওতাল পল্লী পরিদর্শন আসেন জাতীয় সংসদের আদিবাসী বিষয়ক সংসদীয় (ককাস) এর সংদীয় কমিটির আহবায়ক ও বাংলাদেশ ওয়ার্কাস পার্টির সাধারন সম্পাদক ফজলে হোসেন বাদশা এমপি, স্থানীয় সংসদ সদস্য প্রাথমিক ও গণ-শিক্ষা মন্ত্রী এড. মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার। সাথে ছিলেন, কমিটির সদস্য বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এমপি, সংসদ সদস্য নাজমুল হক প্রধান, মনোরঞ্জন শীল গোপাল এমপি, সমম্বয়কারী মেজবাহ কামাল, দিনাজপুর জেলা প্রশাসক শামীম আল রাজি, পুলিশ সুপার নুরুল আমীন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার রাহেনুল ইসলাম, জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্র নাথ সরেন ও পার্বতীপুর মডেল থানার ওসি মাহমুদুল আলম। ক্ষতিগ্রস্থ আদিবাসীদের সাথে আলাপ কালে প্রাথমিক ও গণ-শিক্ষা মন্ত্রী ও সংসদীয় প্রতিনিধি সদস্যরা অনতিবিলম্বে তাদের কে গৃহনির্মান সামগ্রীসহ ক্ষতিগ্রস্থদের পুনর্বাসনে সব রকমের সহায়তা প্রদানের জন্য জেলা প্রশাসনকে নির্দেশ দেন। কিন্তু দেড় মাস অতিবাহিত হলেও ক্ষতিগ্রস্থদের কাছে এখন পর্যস্ত কোন রকম সহায়তা পৌছেনি। ফলে ক্ষতিগ্রস্থ আদিবাসী গ্রামবাসীর মাঝে তীব্র হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে।

এ বিষয়ে পার্বতীপুর মডেল থানার ওসি মাহমুদুল আলম বলেন, হাবিবপুরে ১৪ একর জমি জমি নিয়ে আদিবাসীদের সাথে হাবিবপুরের জহুরুল হকের সংঘর্ষ বাঁধে। এতে তীর বিদ্ধ হয়ে মারা যায় জহুরুল হকের ছেলে শফিউল ইসলাম সোহাগ। পরে জহুরুলের অনুসারী চারপাশের গ্রামের হাজারো মানুষ সাঁওতাল পলস্নীতে অগ্নিসংযোগও লুট তারাজ করে। এ ঘটনায় উভয় পক্ষ থানায় মামলা করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে রাখতে সেখানে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প বহাল আছে।

এ ব্যাপারে পার্বতীপুর উপজেলা ত্রান ও দূর্যোগ প্রকল্প কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আদিবাসীদের গৃহ নির্মান করার জন্য মন্ত্রনালয়ে টিন চেয়ে আবেদন করা হয়েছে। সহায়তা পেলেই তাদের গৃহ নির্মান করে দেওয়া হবে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email