রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১২ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে ছাত্রী ধর্ষনের অভিযোগে শিক্ষক আটক, অতঃপর জরিমানা

একরামুল হক বেলাল,পার্বতীপুর(দিনাজপুর)প্রতিনিধি : পার্বতীপুরে ৮ম শ্রেনীর ছাত্রীকে ধর্ষনের সময় মৌলানা শিক্ষককে হাতে নাতে আটক করেছে গ্রামবাসী। সারারাত স্থানীয় চেয়ারম্যান,মেম্বর ও আলীগের নেতাদের বৈঠকের পর মোটা অংকের জরিমানা নিয়ে ছেড়ে দিয়েছে শিক্ষককে।

জানা যায়, দিনাজপুরের পার্বতীপুর উপজেলার মমিনপুর ইউনিয়নের দোয়ানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের মৌলানা শিক্ষক মোখলেছুর রহমান(৬৫) গত ১৪ ফেব্র“য়ারী শনিবার স্কুল শেষে পার্শ্ববর্তী শালবাড়ী গ্রামে ছাত্রীর বাড়ীতে যায়। শিক্ষককে বাড়ীতে রেখে ছাত্রীর মা নাস্তা আনার জন্য গ্রামের দোকানে যায়। টাকা না নিয়ে যাওয়ায় তার মা আবার বাড়ীতে ফিরে এসে দেখতে পায় ঘরের মধ্যে তার মেয়েকে জোর পূর্বক ধর্ষন করছে শিক্ষক। তাড়াতাড়ি ঘরের দরজা আটকিয়ে চিৎকার করে। এতে বাড়ীর পার্শ্ববতী লোকজন ছুটে এসে মৌলানা শিক্ষককে ঘর থেকে বের করে উত্তম মাধ্যম দিয়ে আবার অন্য ঘরে আটক করে রাখে। চেয়ারম্যান,মেম্বর সহ স্কুলের প্রধান শিক্ষককে খবর দেয়। প্রধান শিক্ষক উক্ত বাড়ীতে এসে মৌলানা শিক্ষকের এ কান্ড দেখে চলে যায়। ঘটনাটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী জড়ো হতে থাকে। এলাকায় উত্তেজোনা সৃষ্টি হয়। এলাকার ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান ও আওয়ামীলীগের স্থানীয় নেতার হস্তক্ষেপে বিচারের আশ্বাস দিলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। পরে গভীর রাতে ইউপি চেয়্যারম্যান আব্দুল ওহাব এর নের্তৃত্বে ইউপি সদস্য মিজানুর রহমানের বাড়ীতে বৈঠক বসে। দীর্ঘ বৈঠকের পর ৪ লাখ ৮০ হাজার টাকার বিনিময়ে বিষয়টি মিমাংশা হয়।

এলাকার অনেকেই অভিযোগ করে বলেন, দোয়ানিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের মৌলানা শিক্ষক মোখলেছুর রহমান ইতিপূর্বে আরও কজন ছাত্রীর সংগে শ্লীনতাহানীসহ ধর্ষনের অভিযোগ রয়েছে। অভিভাবকরা সব জেনে শুনেও এতদিন লোক লজ্জা ও মেয়েদের ভবিষ্যতের কথা ভেবে কোন প্রতিকার করেনি। এ ছাড়াও এই শিক্ষক চিরিরবন্দর এলাকায় হাতে নাতে ধরা পড়লে এলাকাবাসী বিয়ে দিয়ে দেয়। বর্তমানে তার দুই স্ত্রী রয়েছে এলাকাবাসী জানায়।

এ ঘটনা নিয়ে প্রধান শিক্ষক রোস্তম আলী মানিক মুঠোফোনে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি আজ ঢাকা যাচ্ছি। এলাকাবাসী ও স্কুলের সভাপতি রয়েছেন। বিষয়টি তারা দেখছেন।

লম্পট মৌলানা শিক্ষক মোখলেছুর রহমান ঘটনা স্বীকার করে বলেন, গত বৃহস্পতিবারও তিনি এ বাড়ীতে এসেছিলেন। ১৯৭৪ সালে এ শিক্ষা প্রতিষ্টানে মৌলানা শিক্ষক পদে যোগদান করেন। আর মাত্র দেড় মাস পরেই মৌলানা শিক্ষক পদ থেকে অবসর গ্রহন করবেন। তার গ্রামের বাড়ী একই ইউপির জয়পুর গ্রামে। পিতা মৃত্যু রহিম উদ্দিন। তার ৩ পুত্র রয়েছে। এক পুত্র ব্যাংকে চাকুরি করেন। দুই পুত্রবধুও বাড়ীর পার্শ্ববতী শিক্ষা প্রতিষ্টানে শিকিক্ষা পদে জড়িত রয়েছেন।

Spread the love