রবিবার ২২ মে ২০২২ ৮ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে পরকীয়ার বিষয়টি ফাঁস হওয়ায় মিতার আত্মহত্যার চেষ্টা

দিনাজপুর প্রতিনিধি: পার্বতীপুরে আফিয়া জামান (মিতা) নামের এক গৃহবধু নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টার বিষয়টি অন্যের ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টার প্রতিবাদে মামলার অভিযুক্ত আসামীর মামা এসএম মনির আহমেদ আজ বৃহষ্পতিবার বেলা ১১টায় স্থানীয় মিডিয়া কর্ণারে এক সংবাদ সম্মেলন করেছে।

সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়েছে পার্বতীপুর শহরের বাবু পাড়া মহল্লার বসবাসকারী বাংলাদেশ রেওয়ের ট্রেন পরিচালক এস,এম ওয়াহিদুর রহমানের ছেলে ওয়াছিবুর রহমান শুভ এর সাথে গত দুই মাস অগে শহরের দক্ষিন পাড়ার বদিউজ্জামানের মেয়ে আফিয়া জামান ওরফে মিতার বিবাহ হয়। বিবাহের পরেও পূর্বের প্রেমিকের সাথে সম্পর্ক বজায় রেখে চলে আসছিল মিতা। স্ত্রীর মোবাইল ফোনের এসএমএস এর মাধ্যমে বিষয়টি মিতার স্বামী শুভ জানতে পেরে তার পরিবারকে অবগত করে। এঘটনায় লজ্জায় গত ১৬ ডিসেম্বর রাতে মিতা স্বামী ও শ্বশুড়ের অনুপস্থিতিতে গভীর রাতে নিজের শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন লাগিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে। এসময় তার চিৎকারে পাশের ঘরে থাকা মিতার শ্বাশুড়ী-ননদ ও ননদের বান্ধবী নাজমা আক্তার সিমা মিতার ঘরে গিয়ে পানি ঢেলে অগুন নেভাতে সক্ষম হয়। ততক্ষনে মিতার শরীরের বিভিন্ন স্থান পুড়ে যায়। রাতেই মিতার পিতা-মাতাকে খবর দেওয়া হলে তারা সবাই মিলে বিদেশীর দ্বারা পরিচালিত স্থানীয় মিশেনারী ল্যাম্ব হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে তার অবস্থার অবনিত হলে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে গত ১৭ ডিসেম্বর রাতে উন্নত চিকিৎসার জন্য মিতাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ণ ইউনিটে নিয়ে যাওয়া হয়।

এদিকে, ক্ষমতাসিন দলের একটি কুচক্রি মহলের ইন্দনে মিতার শরীরে আগুন লাগার বিষয়টি ভিন্নখাতে প্রবাহিত করার জন্য পার্বতীপুর মডেল থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মিতার স্বামী, শ্বশুড়, শাশুড়ী ও এসএসসি পরীক্ষার্থী ননদ তামান্না ইয়াসমিন সেতুকে অভিযুক্ত করে মিথ্যে মামলা দায়ের করে বলে সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়। সংবাদ সম্মেলনে বলা হয় ঘটনার সময় মিতার শ্বশুড় এস,এম ওয়াহিদুর রহমান বাংলাদেশ রেলওয়ের গার্ড(ট্রেন পরিচালক) হিসেবে ট্রেনে কর্মরত অবস্থায় ছিল এবং মিতার স্বামী শুভ খুলনা জেলার রুপসা থানার পাচানি গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করছিল। বিষয়টি উচ্চ পর্যায়ে (সিআইডি) তদন্ত করে এবং মিতার মোবাইল ফোনের কল লিষ্টের তালিকা সংগ্রহ করলে মিতার শরীরে আগুন লাগার বিষয়টি বেরিয়ে আসবে বলে সংবাদ সম্মেলনে উল্লেখ করা হয়।

অপরদিকে, একটি বিশ্বস্ত সূত্রে জানা যায়, গত ১১ ডিসেম্বর বুধবার শুভ গ্রামের বাড়ী খুলনা যায়। এসময় মিতা রংপুরের তাজহাট এ্যাগ্রিকালচার হোস্টেলে ছিল। মিতা গত ১৩ ডিসেম্বর শুক্রবার সন্ধায় শশুর রেলওয়ে ট্রেন পরিচালক ওহিদুর রহমানের সাথে পার্বতীপুরে আসে। ১৫ ডিসেম্বর রবিবার সকালে মিতা তার বাবার বাড়ী যায় এবং বিকেলে চলে আসে। এর মধ্যে ১৬ ডিসেম্বর রাতে মিতা তার স্বামী শুভকে ফোন করে বিশেষ কথা রয়েছে বলে জানায়।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email