সোমবার ৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৩শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে বাঁশের বানা আর কারেন্ট জালে চলছে মৎস্য নিধনের মহোৎসব

দিনাজপুর প্রতিনিধি : দিনাজপুরের পার্বতীপুরে এক দিকে পালিত হচ্ছে মৎস্য সপ্তাহ অপরদিকে প্রতিটি নদীনালায় চলছে মৎস্য নিধনের মহোৎসব। বাঁশের বানা আর কারেন্ট জাল দিয়ে নদী নালায় প্রকাশ্য ধরা হচ্ছে পোনা মাছ। ফলে বিপন্নের পথে এখন দেশি প্রজাতীর মাছ। এক সময়ের চিরচেনা দেশী মাছ গুলো এখন পার্বতীপুরে খুজেই পাওয়াই য়ায়না। গত দেড় বছরে মৎস্য বিভাগের কর্মকর্তাদের তদারকীর অভাব আর মৎস্য শিকারীদের বিরুদ্ধে আইনের প্রয়োগ না থাকায় বেপরয়া হয়ে উঠেছেন তারা। ফলে হাটে-বাজারে বিক্রয় ও উৎপাদন নিষিদ্ধ রাখুসে মাছ পিরানহা, আফ্রিকান মাগুরসহ ডিমওয়ালা দেশী মাছ বিক্রয় করতেও দ্বিধা করছেন না  তারা। ধান সমৃদ্ধ উপজেলা পার্বতীপুর। এখানে নেই তেমন কোন বড় আকারের নদী-নালা, খাল-বিল এমনকি জলাশয়। ছোট আকারের চারটি নদী, বরেন্দ্র প্রকল্পের খনন করা কিছু ক্যানেল, ব্যক্তি মালিকানাধীন পুকুর, কয়েকটি জলাশয় এবং কৃষি জমি হচ্ছে দেশি মাছের মূল যোগানদাতা। এ সব জলাশয়ে এক সময় পাওয়া যেত প্রচুর পরিমান কই, শিং, মাগুর, গচি, মলা, খলিশা, লাল খলিশা, খাকিলা, ভাগনা, দারকিনা, পুটি, বাতাসি, কালিবাউস,) মেনি(ধ্যাদো), রানী, টেংরা, বেলে, পটকা, চান্দা,বাইন, উরুয়া, ফলি, শোল ও গজাল, চেলা, গুতুম, পাবদা। এদের মধ্যে কিছু মাছ মাঝে মধ্যে পাওয়া গেলেও অধিকাংশ মাছ হারিয়ে গেছে কালের গর্ভে। সচেতন মানুষদের মতে, ছোট ছোট নদী গুলোতে পলি পড়ে ভরাট হয়ে যাওয়ায় মাছের প্রজনন ব্যহত হচ্ছে। নদীতে বাঁশের বানা দিয়ে বাঁধ নির্মান করে মাছ ধরা, কারেন্ট জালের সাহায্যে মাছ ধরা এবং চৈত্র মাসে নদী এবং জলাশয়ে জমে থাকা পানি সেচে মাছ ধরায় এমনটি হয়েছে। এছাড়াও কৃষি জমি এবং জলাশয় গুলোতে বিষ প্রয়োগ করে মাছ ধরার কারনে দেশী মৎস্য আজ ধ্বংস হতে বসেছে।

পার্বতীপুর মৎস্য অফিস সূত্রে জানা যায়, পার্বতীপুরে ছোট্ বড় মিলে মোট পুকুরের সংখ্যা ২হাজার ৫৪টি।  যার আয়তন ১হাজার ৮০৯ একর। এদের মধ্যে ব্যক্তি মালিকানাধীন পুকুর আছে ১হাজার ৮৬০টি। আয়তন ১ হাজার ৫৪৫ একর। অবশিষ্ট ১৯৪টি খাস পুকুরের আয়তন ২৬৩ একর। নদী আছে ৪টি, বিল ৬টি ছাড়াও বর্ষাকালে প­াবিত হয়ে জলাশয়ে পরিনত হয়  এমন এলাকার সংখ্যা ৭টি। এছাড়াও কিছু কিছু ছোট খাটো নালা বা খাড়ি আছে যে গুলো বরেন্দ্র প্রকল্পের মাধ্যমে খনন করা হয়েছে।

উপজেলার মন্মথপুর ইউনিয়নে গিয়ে দেখা যায়, রাজাবাসর আসরীয়া নদীতে বাঁশের বানা দিয়ে নির্বিচারে ছোট আকারের মাছ ধরছেন মামুন নামের এক ব্যক্তি। মামুন জানান তিনি প্রতিদিন তিনি ৫কেজি পর্যন্ত ছোট আকারের পোনা মাছ ধরেন। বিক্রি্ করেন ৬০-৭০টাকা কেজি হিসেবে। তার সামনে একই নদীতে আরো ৫ জন একই ভাবে মাছ ধরছেন। মুসাহার পাড়ার তিলাই নদীর পশ্চিম পার্শ্বে বাঁনা বসিয়ে মাছ ধরছেন সেবু দাস। তিনি বলেন ছোট মাছ ধরলেও তাকে কেউ এপর্যন্ত নিষেধ করে নাই। পার্বতীপুরের মৎস্য চাষি শরীফুল ইসলাম বলেন, উপজেলার প্রতিটি নদী ও নালাতে অবৈধ ভাবে চলছে মৎস্য নিধন।

পার্বতীপুর মৎস্য কর্মকর্তা মোঃ শামসুজ্জোহা বলেন, নদী-নালাতে বাঁধ দিয়ে বাঁশের বানা লাগিয়ে মৎস্য নিধন করা বে- আইনি। তাছাড়া কারেন্ট জাল, চট, মশারী দিয়ে উন্মক্ত জলাশয়ে মৎস্য ধরা যাবে না। পিরানহা, আফ্রিকান  মাগুর  উৎপাদন ও বিপনন কোনটি করা যাবে না। তিনি বলেন, অবৈধ ভাবে মাছ ধরা চোখে পড়লেই নিষেধ করা হয় শিকারীদের। তবে এখন পর্যন্ত কারো বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়নি।