শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১১ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে বিদ্যুৎ সংযোগ না পেয়ে কৃষকরা নিজ উদ্যোগে অর্ধশতাধিক একর জমিতে রোপা লাগিয়েছে

মনজুরুল আলম, ষ্টাফ রিপোর্টার, পার্বতীপুরঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুরে বিএডিসির টাকা পরিশোধে ব্যর্থ গভীর নলকূপ এলাকার কৃষকরা বিদ্যুৎ সংযোগ না পেয়ে নিজ উদ্যোগে অর্ধশতাধিক একর জমিতে ইরি ধান রোপন করেছে।

 

জানা যায়, উপজেলার হামিদপুর ইউনিয়নের পাটিকাঘাট মৌজার বাসিন্দা ৪৮ জন কৃষক তাদের জমিতে পানি সেচের মাধ্যমে চাষাবাদের লক্ষ্যে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএডিসি) নিকট একটি গভীর নলকূপ স্থাপনের আবেদন করে।

 

এ জন্য ’৮৮ সালের ৫ এপ্রিল কৃষকদের এক সভায় আবজাল হোসেন কে সভাপতি ও আমিনুল ইসলাম কে ম্যানেজার করে একটি কমিটি গঠন করা হয়। ডাউন পেমেন্ট সাড়ে ছয় হাজার এবং ষাম্মাসিক ১৬ কিস্তিতে এক লাখ ৬৮ হাজার ৫শ টাকা পরিশোধের শর্ত সাপেক্ষে বিএডিসি কর্তৃপক্ষ কৃষকদের সাথে ১৯৯১ সালের ১১ ডিসেম্বর একখানা দ্বি-পাক্ষিক চুক্তি করে এবং আবজাল হোসেনের মালিকানাধীন দুই শতক জমিতে (যার মৌজা পাটিকাঘাট, জেএল নং ১৬৫, সিএস খতিয়ান নং ৯৫, দাগ নং ৪০৮) একটি গভীর নলকূপ স্থাপন করে। কিন্ত কমিটির ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম কিস্তির টাকা পরিশোধে ব্যর্থ হলে বিএডিসি উক্ত গভীর নলকূপে বিদ্যুৎ সংযোগ বন্ধ করে দেয়।

 

দীর্ঘদিন পর ২০১২ সালের ১১ নভেম্বর কৃষকরা মকলেছ আলীকে সভাপতি এবং আবজাল হোসেন কে ম্যানেজারের দায়িত্ব দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করে গভীর নলকূপটি পরিচালনার জন্য বিএডিসির নিকট আবেদন জানায়। ফলে ২০১৩ সালের ১০ ফেব্রুয়ারী বিএডিসি উক্ত কমিটির সাথে একখানা অঙ্গীকারনামা সম্পাদন করে ম্যানেজার হিসাবে আবজাল হোসেন কে গভীর নলকূপের দায়িত্ব দেয়।

 

এ অঙ্গকারনামায় ক্ষুদ্ধ হয়ে সাবেক ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম গত ১৩ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারী আদালতে মোকদ্দমা করে। মোকদ্দমা চলাকালে একই বছরের ২৫ অক্টোবর মোকদ্দমার ১নং বিবাদী আবজাল হোসেন মারা যায়। তার মৃত্যুর ৯০ দিন অবিবাহিত হলেও বাদী আমিনুল ইসলাম মৃত আবজালের কোন ওয়ারিশকে অন্তর্ভূক্ত না করায় মোকদ্দমা টি এ্যাবেট হয়ে যায়।

 

২০১৪ সালের ৩০ মার্চ এক সভায় মৃত আবজালের পুত্র শাহিনুর ইসলাম কে নতুন ম্যানেজারের দায়িত্ব দিয়ে নলকূপটি চালুর আবেদন করা হয়। এ বিষয়টি গত ১৪ সালের ৯ এপ্রিল উপজেলা সেচ কমিটিতে অনুমোদন লাভ করে এবং গত ২৭ জানুয়ারী তারিখে উপজেলা সেচ কমিটিতে ম্যানজোর হিসাবে শাহিনুর ইসলাম কে গভীর নলকূপটি পরিচালনা করার অনুমোদন দেয়া হয়। সে সাথে উক্ত নলকূপে বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়ার জন্য পল­ী বিদ্যুৎ সমিতি-২ এর ডিজিএম কে পত্র দেয়া হয়। এরপর বিদ্যুৎ সংযোগ না দেয়ায় এলাকার কৃষকরা নিজ উদ্যোগে ৮ টি ডিজেল ইঞ্জি চালিত শ্যালো মেশিনের মাধ্যমে সেচ দিয়ে প্রায় অর্ধশতাধিক একর জমিতে ইরি ধানের চারা লাগিয়েছে।

 

এদিকে সাবেক ম্যানেজার আমিনুল ইসলাম উক্ত নলকূপের এলাকায় মারপিট ও মালামাল চুরির অভিযোগে আদালতে একটি মামলা করে। যার পার্বতীপুর থানার মামলা নং ২৩ তারিখ ২৫/১/১৫ইং। মামলাটি সম্পূর্ন মিথ্যে বলে জানায় বর্তমান ম্যানেজার শাহীনুর ইসলাম।

Spread the love