মঙ্গলবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১৪ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে বেলাইচন্ডি ইউপি চেয়ারম্যানরকে ধরতে র‌্যাবের অভিযান

 

একরামুল হক বেলাল,পার্বতীপুর (দিনাজপুর) প্রতিনিধিঃ

পার্বতীপুর থানায় দিনাজপুর র‌্যাব ক্যাম্পের দায়ের করা মামলার আসামী বেলাইচন্ডি ইউপির চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মাদ রাজাকে গ্রেফতার করতে সাড়াশি অভিযান চালায়। আজ বুধবার সন্ধ্যায় চেয়ারম্যানের ছোট ভগ্নিপতি রামপুর ইউপির সরকারপাড়া গ্রামের আহমেদুল রহমান মুকুলের বাড়ীতে অভিযান চালায়। এসময় মুকুলের বাড়ীতে চেয়ারম্যানকে না পাওয়া ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুরসহ চেয়ারম্যানের বোন আঞ্জুমান আরাকে মারধর করেছে। র‌্যাবের এ অভিযানের সময় গ্রামের নিরীহ বেশ কয়েকজনকে মারধর করে ও ভাংচুর করে।

চেয়ারম্যানের)বোন আঞ্জুমান আরা প্রতিনিধিকে জানান, সন্ধ্যার সময় কালো পোশাকধারী ২০/২৫ জন র‌্যাব প্রথমে তার স্বামী আওয়ামীলীগ নেতা মুকুলের কথা জিঙ্গেস করে। বাড়ীতে নেই বলে জানালে র‌্যাবের সদস্যরা তার গালে মুখে বেধড়ক মারপিট করে ও ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করে। ভাংচুরের সময় র‌্যাব সদস্যরা তার ভাই বেলাইচন্ডি ইউপির চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মাদ রাজার কোথায় লুকিয়ে রাখার কথা জিঙ্গেস করে। আঞ্জুমান আরা বলেন, আমার ভাই অপরাধী হলে আইন তার বিচার করবে কিন্তু কেন আমাকে মারধর করবে আর কেনই বা আমার বাড়ী ঘরের আসবাবপত্র ভাংচুর করবে। আমি এর সুষ্ঠ বিচার দাবি করছি। এসময় সরকারপাড়ার এনামুলের পুত্র একরামুল (১৮) ও মোজাম্মেল হকের পুত্র আতাউর (২৬) কে মারধর করলে গুরুতর আহত অবস্থায় তাদেরকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে, এর আগে ২০/২৫ জন র‌্যাব মুকুলের পাশের বাড়ী এক বিধবা লিলি’র বাড়ীতে প্রবেশ করে কাজের লোককে মারধর করে ও রান্নাঘরের প্রাচী ভেঙ্গে ফেলে। পরে মুকুলের বাড়ী কোনটি জিঙ্গেস করলে মুকুলের বাড়ী দেখিয়ে দিলে র‌্যাব সদস্যরা চলে যায়। এঘটনার পূর্বে র‌্যাব বেলাচন্ডি বাজারে সাধারণ জনগণ ও ব্যাবসায়ীদের চড়াও হয়ে মারধর করে। এতে ঝাপের পাড়ার আমান মাস্টারের পুত্র তোফায়েল আহমেদ (৪০)ও হাজিপাড়ার ফজলুর পুত্র সবুজ (২২) কে বেধড়ক মারপিট করে। র‌্যাবের লাঠির আঘাতে তোফায়েলের পায়ের ৩ স্থানে ভেঙ্গে যায় বলে এলাকাবাসীরা জানিয়েছেন। অপরদিকে, চেয়ারম্যানের বাড়ী কৈপুলকি গ্রামের দোলাপাড়া আনন্দ বাজার নামক স্থানে স্থানীয় দোকানদার আব্দুল হামিদের পুত্র জাকির হোসেন ও ফজলুকে এলোপাতাড়ি মারধর ও দোকান ভাংচুর করে।

 

স্থানীয় ইউনিয়ন ছাত্রলীগ নেতা মোমিনুল মন্ডল সম্রাট জানান, আজ বুধবার বিকেল থেকে রাত পর্যন্ত র‌্যাবের দায়ের করা মামলায় চেয়ারম্যান নুর মোহাম্মাদ রাজাকে গ্রেফতারের অভিযানের নামে বিভিন্ন স্থানে নিরীহ জনগণকে মারধার ও ভাংচুর করাটা দেশের প্রচলিত আইনের পরিপন্থি বলে উলে­খ করেন। তিনি আরও বলেন, র‌্যাবের উপর প্রকৃত হামলাকারীকে সুষ্ঠভাবে তদন্ত সাপেক্ষে গ্রেফতারের করে সঠিক বিচার ও গ্রামের নিরীহ মানুষের প্রতি জানমালের ক্ষতি না করার জন্য র‌্যাব এবং সরকারের প্রতি আহবান জানান। এরিপোর্ট লেখা পর্যন্ত র‌্যাব-১৩ ৭/৮টি গাড়ী উপজেলার বিভিন্ন স্থানে চেয়ারম্যানকে গ্রেফতারের অভিযান অব্যহত রেখেছে।

Spread the love