মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুরে ভুল চিকিৎসায় শিশু মৃত্যুর অভিযোগ

দিনাজপুর প্রতিনিধি: পার্বতীপুরে চিকিৎসকের ভুল চিকিৎসায় সোনাকসি নামে ছয় মাসের এক শিশু কন্যা মৃত্যুবরণ করছে। শিশুটি পার্বতীপুর শহরের খোলাহাটি রোডের সঞ্জিব ঘোষের কন্যা।

এ ঘটনায় বিক্ষুদ্ধ লোকজন গতকাল রোববার সন্ধ্যায় অভিযুক্ত ডাক্তার এনামুলকে পার্বতীপুর শহরের জননী ফার্মেসীতে তার চেম্বারে আটক করে রাখে। পরে পার্বতীপুর মডেল থানার একদল পুলিশ গিয়ে ডাক্তার এনামুলকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে এবং প্রভাবশালী একটি মহলের চাপে রাত ৯টার দিকে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়। ডাক্তার এনামুল হক নীলফামারী সদর হাসপাতালের কনসালটেন্ট চিকিৎসক। তার গ্রামের বাড়ী পার্বতীপুর উপজেলার পলাশবাড়ী ইউনিয়নে। সমত্মান হারিয়ে পাগলিনী মা স্বপ্না রাত সাড়ে ৮টার দিকে পার্বতীপুর মডেল থানা চত্তরে জানান, জ্বরে আক্রামত্ম হওয়ায় সোনাকসিকে গত শুক্রবার (২৫ এপ্রিল) রাত ৮টার দিকে নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরে ডাক্তার এনামুল হকের চেম্বারে নেওয়া হয়। রাত সাড়ে ৯টার দিকে ডাক্তার এনামুল  শিশুটিকে দেখার পর একটি ইনজেকশন পুশ করে ব্যবস্থাপত্র লিখে দেয়। ডাক্তারের চেম্বার থেকে বাহির হয়ে বাড়ি আসার পথে শিশুটি চেতনা হারিয়ে ফেলে। এ অবস্থায় রাত সাড়ে ১১টার দিকে শিশুটিকে পার্বতীপুরের রাজাবাসরে অবস্থিত বিদেশী মিশনারিদের দ্বারা পরিচালিত ১৫০ শয্যার ল্যাম্ব হাসপাতালে নেওয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত্যু ঘোষনা করে।

স্বপ্না কাঁদতে কাঁদতে আরও বলেন, ভুল চিকিৎসা দিয়ে সোনাকসিকে মেরে ফেলা হয়েছে। ডাক্তার এনামুলের ব্যবস্থাপত্র দেখে ল্যাম্ব হাসপাতালের ডাক্তাররা তাকে সে কথায় বলেছে। তিনি ডাক্তার এনামুলের বিচার চান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ডাক্তার এনামুল পার্বতীপুর শহরে জননী ফার্মেসীতে তার চেম্বারে রোগি দেখতে আসলে রোববার সন্ধ্যায় শিশুটির পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসী লাঠিসোটা নিয়ে ওই চেম্বার ঘিরে ফেলে। বিক্ষুদ্ধ লোকজন ডাক্তার এনামুলকে চেম্বারে আটক করে সেখানে বিক্ষোভ প্রদর্শন করতে থাকে। খবর পেয়ে পার্বতীপুর মডেল থানার একদল পুলিশ গিয়ে ডাক্তার এনামুলের বিরম্নদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের কথা বলে তাকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে। পরে একটি প্রভাবশালী মহলের চাপে রাত ৯টার দিকে ডাক্তার এনামুলকে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়া হয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

এ ব্যাপারে পার্বতীপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন মন্ডল জানান- ডাক্তার এনামুলকে আটক করে থানায় নিয়ে আসাও হয়নি এবং কোনো চাপে থানা থেকে ছেড়ে দেওয়াও হয়নি। জনরোষ থেকে বাঁচাতে তাকে উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসা হয়েছিল। তাছাড়া বাদিপক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগও দেয়নি। লিখিত অভিযোগ পাওয়া গেলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে ওসি জানান।