শনিবার ২ জুলাই ২০২২ ১৮ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুর আদিবাসী পল্লীতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ৩১ দিন পরেও ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো পূর্নবাসিত হয়নি

মোঃ আব্দুলাহ আল মামুন পার্বতীপুর,(দিনাজপুর) প্রতিনিধি ঃ

দিনাজপুরের পার্বতীপুরের চিড়াকুটা আদিবাসী পল্লীতে অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের ৩১ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনও ১০টি পরিবার খোলা আকাশের নীচে বসবাস করছে। স্থানীয় প্রশাসন ও মন্ত্রী মহোদয়ের আশ্বাসের পরেও ক্ষতিগ্রস্ত আদিবাসী পরিবারগুলো পূর্ণবাসিত হয়নি। ফলে তাদের কে মানববেতর জীবন যাপন করতে হচ্ছে।

সরেজমিনে আদিবাসী পল্লীতে গেলে গ্রামের বৃদ্ধা মাগদা লিনা মার্ডি ও সামিনা হাসদা জানান, সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত ১০ পরিবার খোলা আকাশের নীচে জীবন যাপন করা কষ্ট সাধ্য হয়ে পড়েছে। উপরে পলিথিন দিয়ে রান্না-বান্নার কাজ করছে তারা। তাছাড়াও আদিবাসীদের অনেক গবাদী পশু ও লুন্ঠিত মালামাল এখনও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ।

এ ব্যাপারে জাতীয় আদিবাসী পরিষদের সভাপতি রবীন্দ্র নাথ সরেন বলেন, স্থানীয় প্রশাসন ও এনজিও গুলো হাড়ি পাতিল ও শীত নিবারনের জন্য কম্বল বিতরন করেছেন। স্থানীয় প্রশাসন ও মন্ত্রী মহোদয় গৃহ নির্মানের আশ্বাস দিলেও ঘটনার ৩১ দিন অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত গৃহ নির্মাণ কাজ শুরু করা হয়নি। ১০টি পরিবার এখনও খোলা আকাশের নীচে বসবাস করে মানবেতর জীবন যাপন করছে। তা ছাড়াও মামলার ভয়ে এখনও পুরুষরা ঘরে ফিরতে পারছেনা। তিনি বলেন, গত ২ ফেব্রুয়ারী আদিবাসী পল্লী পরিদর্শনে এসে মাননীয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার এমপি ক্ষতিগ্রস্ত আদিবাসী পল্লীতে সবধরনের সহযোগীতার আশ্বাস দিয়ে বলেন, বিরোধ পূর্ন জমির প্রকৃত মালিক আদালতই তা নির্দ্ধারন করবে। সেই পর্যন্ত তিনি উভয় পক্ষকে শান্ত থাকতে বলেন। সেই সাথে সংঘর্ষে নিহতের ঘটনায় অযথা যেন কেউ হয়রানির শিকার না হয় সে দিকে খেয়াল রাখার জন্য তিনি স্থানীয় পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেন বলে জানান তিনি। তিনি আরো বলেন, তাদের বাড়ীঘর পূর্ণ নির্মানে সরকার সব ধরনের সহায়তা প্রদান করবে।

এবিষয়ে পার্বতীপুর উপজেলা ত্রান ও প্রকল্প কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, জেলা প্রশাসনের উদ্দ্যোগে ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে চাল, টাকা, বাসনপত্র, শীত বস্ত্র বিতরন করা হয়েছে। গৃহ নির্মানের জন্য টিন চেয়ে মন্ত্রনালয়ে আবেদন করা হয়েছে। বরাদ্দ মিললেই গৃহনির্মানের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

উল্লেখ্য, গত ২৪ জানুয়ারী দিনাজপুরের পার্বতীপুরের মোস্তফাপুর ইউনিয়নের হাবিবপুরে ১৪ একর জমি নিয়ে আদিবাসী সাঁওতালদের সাথে বড়দল সরকার পাড়া গ্রামের জহুরুল হকের লোকজনের সাথে সংঘর্ষ বাঁধে। এতে তীর বিদ্ধ হয়ে জহুরুল হকের ছেলে শাফিউল ইসলাম সোহাগ মারা যায়। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে জহুরুল হকের অনুসারীরাসহ চারপাশের গ্রামের হাজারো মানুষ সাঁওতাল পল্লীতে অগ্নিসংযোগ ও লুটতরাজ করে। এতে অর্ধশত বাড়ী ক্ষতিগ্রস্ত হয়। লুটপাট করা হয় সাঁওতালদের দেড় শতাধিক গরুসহ পরিবারের সব কিছুই। এতে ক্ষতিগ্রস্ত সাঁওতাল নারী নিলীমা হেমব্রম ৩ হাজার ৭৪ জন আসামী করে একটি মামলা করেন পার্বতীপুর মডেল থানায়। অপর দিকে নিহতের চাচা মাহমুদুল হক ২৮ আদিবাসীকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা করে। এদের মধ্যে নিলীমা হেমব্রমের দায়ের করা মামলায় ৭ জন এবং মাহমুদুল হকের মামলায় ১৯ জন আদিবাসী সাঁওতালকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এব্যাপারে পার্বতীপুর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মাহমুদুল আলম বলেন, আদিবাসীদের দায়ের করা মামলায় গ্রেফতার চেষ্টা অব্যাহত আছে। এছাড়াও আদিবাসীদের লুন্ঠিত অনেক গবাদীপশু ও মালামাল উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার চেষ্টা চলমান আছে।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email