বুধবার ১৮ মে ২০২২ ৪ঠা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুর উপজেলা নির্বাচনে লড়াই হবে দ্বিমুখী

আগামী ৩১ মার্চ/১৪ পঞ্চমধাপে পার্বতীপুর উপজেলা পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। সে লক্ষ্যে প্রার্থীরা ভোটারদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ভোট ভিক্ষা চাইছেন। আওয়ামী লীগ প্রার্থী একক হওয়ায় বিজয়ের স্বপ্ন দেখছে বিএনপি বিদ্রোহী (বহিঃকৃত) প্রার্থী থাকায় জয় লাভের বিষয় সমস্যা হতে পারে কারন বহিষ্কৃত প্রার্থী বিএনপির বিভিন্ন কেন্দ্রের ভোট নষ্ট করবেন বলে ভোটারদের অভিমত। ১০ ইউনিয়ন ও ১ পৌরসভা নিয়ে পার্বতীপুর উপজেলা। এটি দিনাজপুর জেলার অন্তর্গত। আর মাত্র ক’দিন পরই উপজেলাবাসী নির্বাচিত করবে তাদের মনোনীত চেয়ারম্যান। প্রচার-প্রচারনা প্রায় শেষের পথে। ইতিমধ্যে ভোটাররাও সিন্ধান্ত নিয়ে ফেলেছেন। পার্বতীপুর উপজেলায় এবারেও বরাবরের ন্যায় দ্বিমুখী লড়াই হবে। আর এ লড়াই হবে ১৪ দলীয় আওয়ামীলীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ হাফিজুল ইসলাম প্রামানিক (ঘোড়া মার্কা) ও ১৯ দলীয় বিএনপি মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুল ইসলামের(দোয়াত কলম) মধ্যে। দুমেরুর দুটি প্যানেলই শক্তিশালী। ১৪ দল বা আওয়ামীলীগ যে প্যানেল দিয়েছেন তা হচ্ছে চলমান পরিষদ। এলাকায় অনেক উন্নয়ন হয়েছে,হচ্ছে এ যুক্তি সামনে রেখে খুবই বিচক্ষনতার সাথে এলাকার ৬ বারের নির্বাচিত সংসদ সদস্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী এডভোকেট মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার দলীয় পূর্ণ গনতান্ত্রিক পন্থায় চলমান চেয়ারম্যান মোঃ হাফিজুর ইসলাম প্রামানিক ভাইস চেয়ারম্যান রেজাউল করিম( নলকুপ) ও ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) লতিফা বেগম(কলস) কে মনোনীত করেছেন। অপর দিকে ১৯ দলীয় বিএনপি মনোনীত প্যানেলে রয়েছেন চেয়ারম্যান পদে নতুন মুখ আমিনুল ইসলাম ভাইস চেয়ারম্যান পদে জামাত নেতা আলহাজ্ব আনোয়ার হোসেন (চশমা) এবং ভাইস চেয়ারম্যান (মহিলা) পদে পুরনো মুখ সাহিদা খাতুন সাহি (সেলাই মেশিন)। এছাড়াও যুবদল নেতা জাকারিয়া বাচ্চু (আনারস) বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে মাথা চাড়া দেয়ার চেষ্টা করলে উপজেলা,জেলা ও কেন্দ্র থেকে তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বহিস্কারাদেশ মাথায় নিয়ে তিনিও নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াচ্ছেন। সাধারণ ভোটারদের মতামত তিনি মাঠ পর্যায় খুব একটা ভাল করতে পারেননি, পারছেননা। বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী জাকারিয়া বাচ্চুর সাথে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন করছেন যুব জাগপার কেন্দ্রীয় নেতা ইনসান আলম আক্কাস (তালা)। প্রার্থীরা যে যার মত প্রাণ পন চেষ্টা করে যাচ্ছেন নিজদের মার্কা ও বাক্সে ভোট পেতে। বাস্তবতা হচ্ছে গোটা উপজেলার ভোটাররা মূলতঃ দু ভাগে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন বিগত সময়ের সংসদ নির্বাচন গুলোর মত। ১৯ দলীয় প্রার্থীর নেতাকর্মী সমর্থকরা বর্তমান রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট তুলে ধরে পরিবর্তনের কথা বলে ভোট চাচ্ছেন। আর ১৪ দলীয় নেতাকর্মীরা উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখার কথা বলছেন। মজার ব্যাপার হচ্ছে এলাকাভেদে জামাতসহ এন্টি আওয়ামীলীগের ভোটগুলো জমাট বেধেঁছে ১৯ দলীয় প্রার্থীর পক্ষে। অপরদিকে বরাবরের ন্যায় সংখ্যালঘুদের ভোট নিশ্চিত হয়ে উঠেছে ১৪ দলীয় প্রার্থীর পক্ষে। গোটা উপজেলায় ভোটার সংখ্যা ২ লাখ ৩৬ হাজার ৯৭৫। পুুরুষ ১ লাখ ১৮ হাজার ৮০৪। মহিলা ১ লাখ ১৮ হাজার ১৭১। কেন্দ্র ৮৭ এবং বুথ সংখ্যা ৫৭৬। দুপ্যানেলের প্রায় সব প্রার্থী নিজ নিজ অবস্থানে বেশ শক্তিশালী ভিত্তির উপর দাড়িয়ে আছেন। যোগ্যতা বিবেচনার মানদন্ডে সবারই রয়েছে ম্যান মানি পপুলারেটি ও উল্লেখযোগ্য রাজনৈতিক দল। ১৪ দলের চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ হাফিজুল ইসলাম প্রামানিক দুবারের থানা আওয়ামীলীগ সভাপতি। এছাড়াও একবার রামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান ছিলেন। অপরদিকে ১৯ দলীয় চেয়ারম্যান প্রার্থী আমিনুল ইসলাম একসময়ের রাশিয়া ফেরা ডাকসাইটে কমিউনিষ্ট। বর্তমানে উপজেলা বিএনপির ভাল অবস্থানে আসীন বিশিষ্ট্য নেতা। তিনি মনমথপুর ইউনিয়নে এক বার ও জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যান ছিলেন। উল্লেখ নির্বাচন ঘিরে ভোটারদের মাঝে সাড়া পড়েছে এবং আওয়ামীলীগের প্রার্থীর টেনশন নেই। বিপাকে বিএনপির প্রার্থী।

Please follow and like us:
error
fb-share-icon
RSS
Follow by Email