শুক্রবার ১৯ এপ্রিল ২০২৪ ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পার্বতীপুর তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের খাল খনন কাজ বন্ধ করে দিয়েছে

মনজুরুল আলম, ষ্টাফ রিপোর্টার, পার্বতীপুরঃ দিনাজপুরের পার্বতীপুরে অধিগ্রহনকৃত জমির টাকা না পাওয়ায় ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকরা তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্পের সেচ খাল খনন কাজ বন্ধ করে দিয়েছে।

আজ শনিবার সকালে নীলফামারী পানি উন্নয়ন বোর্ডের জলঢাকা পওর শাখা-৫ এর শাখা কর্মকর্তা শাহজাহান আলী প্রয়োজনীয় মেশিনপত্র ও লোকজন সহকারে পার্বতীপুর উপজেলার পূর্ব হুগলীপাড়ার পূর্বপার্শ্ব দিয়ে চিহ্নিত অধিগ্রহনকৃত জমিতে খাল খনন কাজ শুরু করলে জমির মালিকদের তোপের মুখে পড়েন। এ সময় চান্দেরডাঙ্গা, পূর্বহুগলীপাড়া, দরিখামার গ্রামের ক্ষতিগ্রস্ত জমির মালিকদের মধ্যে ২-৩শ’ নারী-পুরুষ এসে অধিগ্রহনকৃত জমির টাকা না পাওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং বুলডোজারের সামনে দাড়ায়ে খনন কাজ বন্ধ করে দেন। ফলে কর্মকর্তা মেশিনপত্র নিয়ে স্থান ত্যাগ করে চলে যান।

জমির মালিক শামসুল হক, মমিনুর রহমান, মর্তুজা আলী, আলফাজ উদ্দিন, মমেজা খাতুন, আঃ ফাত্তাহ, মশিউর রহমান, হাফিজ উদ্দিন, আরমিনা বেগম, আঃ রবসহ জানান, আমাদের জমি অধিগ্রহন করা হয়েছে, এজন্য আমরা এখন পর্যন্ত কোন চাষাবাদ করিনি। সেচ খালের জন্য অধিগ্রহন করা জমির টাকা আমাদের পরিশোধ না দিয়ে আজ জমিতে খাল খনন কাজ করতে এসেছে, আমরা টাকা না পাওয়া পর্যন্ত জমিতে কোন কাজ করতে দিব না। এজন্য কাজ বন্ধ করে দিয়েছি।

এ ব্যাপারে পাউবো’র কর্মকর্তা শাহজাহান আলী বলেন, স্বাবর সম্পত্তি অধিগ্রহন ও হুকুমদখল অধ্যাদেও, ১৯৮২ (২নং অধ্যাদেশ) এর ৪(৩) (এ) ধারামতে তিস্তা ব্যারেজ প্রকল্প (২য় পর্যায়) ১ম ইউনিট এর অধীন বগুড়া সেচ খাল খনন ও নির্মান প্রকল্পে ০২/২০১৩-১৪ নং এল,এ কেসে পার্বতীপুর উপজেলার রামপুর মৌজার ৫৭ দশমিক ৬৯ এবং খামার জগন্নাথপুর মৌজার ১৩ দশমিক ৬০ একর জমি গত বছর চুড়ান্তভাবে অধিগ্রহন করা হয় এবং গত ৭ ডিসেম্বর জমি বুঝে নিযে সীমানা চিহ্নিত করা হয়েছে। এ সমস্ত জমি কেনার জন্য আমরা ইতিমধ্যে এল,এ ফান্ডে ২৮ কোটি টাকা পরিশোধ করেছি। এলাকাবাসী টাকা না পেলে আমি এর জবাব দিতে পারবো না।

 

Spread the love