সোমবার ১৪ জুন ২০২১ ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

পিছন ইতিহাসে ঈদ

পিছন ইতিহাসে ঈদ কেমন হতো সেই আলোকে এই লেখাটি।এই করোনাকালীন সময়েও চারদিকে আজ ঈদের খুশি। আনন্দ-উত্সব। এ জন্য কয়েক দিন ধরে চলেছে কত না আয়োজন। কেনাকাটার ধুম পড়েছিল আরও আগে। শহর-বন্দর-গ্রাম সবখানেই উছলে পড়ছে ঈদের আনন্দ। ধনী-গরিব নেই ভেদাভেদ। জাতপাতেরও নেই বৈষম্য। দুনিয়ার সব মানুষের জন্য খুশির বারতা নিয়ে এসেছে ঈদুল ফিতর। আজ থেকে কয়েক শ বছর আগেও কি এই জনপদে এভাবে হাজির হতো ঈদ?অতীতে এ অঞ্চলে মুসলমানদের ঈদুল ফিতর উদযাপন সম্পর্কে খুব বেশি তথ্য পাওয়া যায় না। ইতিহাসবিদ মুনতাসীর মামুন তাঁর ‘ঢাকা সমগ্র ১’ গ্রন্থে উল্লেখ করেন, ‘আজ আমরা যে ঈদের জন্য সাগ্রহে অপেক্ষা করি বা যে ঈদকে দেখি আমাদের একটি বড় উত্সব হিসেবে, তা চল্লিশ-পঞ্চাশ বছরের ঐতিহ্য মাত্র।’বাংলায় বড় কোনো উত্সব হিসেবে ঈদুল ফিতর পালিত না হওয়ার কয়েকটি কারণ চিহ্নিত করেছেন মুনতাসীর মামুন। তাঁর লেখা থেকে জানা যায়, ইংরেজ শাসনামলে এ অঞ্চলে সবচেয়ে ধুমধামে উদযাপিত হতো ক্রিসমাস বা বড়দিন। এই উত্সবের জন্য ছুটি বরাদ্দও ছিল বেশি। কলকাতার বাইরে শহর, মফস্বল বা গ্রামের সাধারণ মানুষের সঙ্গে এ উত্সবের কোনো যোগসূত্র ছিল না। এরপর জমকালোভাবে উদযাপিত হতো দুর্গাপূজা। ঈদের থেকে পূজায় সরকারি ছুটি ছিল বেশি। তখন মুসলমান চাকরিজীবীরা ঈদের ছুটি বাড়ানোর আবেদন করলেও এতে কাজ হয়নি। তা ছাড়া সেই সময় ঈদকে উত্সবে পরিণত করার মতো সামর্থ্যও গ্রামাঞ্চলের অধিকাংশ মুসলমানের ছিল না।মুসলমানদের প্রধান উত্সব হিসেবে ঈদ উদযাপন না হওয়ার আরেকটি কারণ বিশুদ্ধ ইসলাম সম্পর্কে সাধারণ মানুষের অজ্ঞতা।তবে সাধারণ মুসলমানদের তুলনায় বহিরাগত মুসলমানেরা বেশ উত্সাহ নিয়েই ঈদ উদযাপন করতেন। এ সম্পর্কে মুনতাসীর মামুন লিখেছেন, ‘ভারতের উত্তরাঞ্চল থেকে আগত মুঘলরা বাংলার সাধারণ মানুষের তুলনায় ইসলাম সম্পর্কে জানতেন বেশি। কিন্তু বিশুদ্ধ ধর্ম পালনে তাঁরা উত্সাহী ছিলেন না। ধর্মে আছে ঈদ মানে খুশী। সুতরাং, রমজান থেকেই মোটামুটি তারা সচেষ্ট থাকতেন যতোটা পারা যায় আনন্দ নিংড়ে নিতে। সুরা পানেও এ সময় তাদের অনাগ্রহ ছিল না।’পাকিস্তান আমলেও সার্বিক ভাবে উৎসহ মূখর পরিবেশ আসেনি।৮০ দশক হতে ঈদ উৎসবের আমেজ বাংলাদেশে ঘরে ঘরে ছড়াতে শুরু করে। ঈদ কার্ডের মাধ্যমে শুভেচ্ছা বিনিময় ।পোষ্ট অফিসে উপচে পড়া মেইল বক্স ভর্তি হয়ে থাকতো ঈদ শুভেচ্ছা বার্তার কার্ড দিয়ে।দিন পাল্টেগেছে। এখন সেল ফোনে এক ক্লিকেই সবার কাছে ঈদ শুভেচ্ছা বার্তা পৌছে যাচ্ছে ।এখন এই গ্নোবালাইজেশনের যুগে অনেক কিছুই বদলে গেছে। মানুষ জানছে শিখছে দেখছে কোনটি ভুল কোনটি সঠিক যাচাই করছে গ্রহন করছে বর্জন করছে। যারা ইসলাম ধর্মাবলম্বী তারা ধর্ম সম্মন্ধে জানছে আল্লাহ্ ও রসুলের প্রতি বিশ্বাস বাড়ছে, নামাজ পড়ছে , রোজা বা সিয়াম রাখছে,আয় হতে যাকাত দিচ্ছে, সামর্থ হলে হজ্ব করছে। করোনাকালীন এবার সহ ৩ টি ঈদ অনেক বাধ্যবাধকতার মধ্যদিয়ে যেতে হয়েছে। তাই আল্লাহ্র র কাছে প্রার্থনা আল্লাহ্ আমাদের এই বিশ্ব মহামারীর হাত হতে রক্ষা করুন আমরা যেন স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে পারি। আমিন। ঈদ মুবারাক ।

লেখক-ফতেনূর আলম।

নিউইয়র্ক ।

Please follow and like us:
RSS
Follow by Email