মঙ্গলবার ৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৩ ২৪শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পুতিনের বিমান ভেবেই ‘এমএইচ-১৭’ ভূপাতিত করেছিল সিআইএ!’

মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট এমএইচ-১৭’কে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিমান ভেবে ভুল করে ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়ে ধ্বংস করে দিয়েছে মার্কিন কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিআইএ। ইউক্রেনের আকাশে মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট এমএইচ-১৭ ক্ষেপণাস্ত্র ছুঁড়ে ধ্বংসের বিষয়ে কিছু কিছু সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম এবং সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশিত ষড়যন্ত্র তত্ত্বে এমন দাবি করা হয়েছে। চলতি মাসের ১৭ তারিখে যাত্রীবাহী হতভাগ্য বিমানটি বিধ্বসত্ম হয়ে ২৯৮ যাত্রীর সবাই মর্মামিত্মক ভাবে নিহত হয়েছেন। প্রেসিডেন্ট পুতিনের বিমানে লাল এবং নীল রংয়ের রেখা রয়েছে এবং একই রংয়ের রেখা ছিল ফ্লাইট এমএইচ-১৭’তে। খবরটি প্রকাশিত হওয়ার কয়েক মিনিটের মধ্যেই এ নিয়ে টুইটারে বার্তার বন্যা বয়ে যায়। এ সব বার্তায় দাবি করা হয়, পুতিনকে হত্যার ব্যর্থ চেষ্টা চালানো হয়েছিল এবং তাতেই ধ্বংস হয়েছে এমএইচ-১৭। কেউ কেউ এও দাবি করেন, কথিত হত্যার নির্দেশ সিআইএ’কে দিয়েছেন স্বয়ং মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। ‘রাশিয়া টুডে’র বরাত দিয়ে ব্রিটেনের টেবলয়েড দৈনিক ডেইলি মেইল ষড়যন্ত্র তত্ত্ব সংক্রামত্ম খবর দিয়েছে। এতে দাবি করা হয়েছে, এমএইচ-১৭ যে আকাশ পথ দিয়ে যাওয়ার সময়ে ধ্বংস হয়েছে তার ৪০ মিনিটের কম সময়প পরে একই পথে প্রায় একই উচ্চতা দিয়ে পাড়ি দিয়েছে প্রেসিডেন্ট পুতিনকে বহনকারী বিমান। এমএইচ-১৭ বিমানটি মস্কো সময় ১৫:৪৪ ইউক্রেনের আকাশ পাড়ি দেয়ার সময় বিধ্বসত্ম হয়। বিমানটি সে সময়ে ১০ হাজার মিটার উচ্চতা দিয়ে যাচ্ছিল। আর প্রেসিডেন্ট পুতিনের বিমান একই পথ ১০ হাজার একশ’ মিটার উচ্চতা দিয়ে অতিক্রম করেছে মস্কো সময় ১৬:২২।

এদিকে, ডেইলি মেইলের পাঠকদের কেউ কেউ এ বিমান ধ্বংসের ঘটনার সঙ্গে ইসরাইল জড়িত থাকার দাবি করেছেন। লন্ডন থেকে ‘বেনজি’ নামের এক পাঠক লিখেছেন, অধিকৃত ফিলিসিত্মনের অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকায় ইসরাইলি স্থল আগ্রাসন চালানোর আগের দিন ধ্বংস হয়েছে ফ্লাইট এমএইচ-১৭। তিনি প্রশ্ন তোলেন, আত্মর্জাতিক সংবাদ মাধ্যম ও বিশ্বের সচেতন দেশগুলোর সরকারসমূহের নজর অন্যদিকে ফেরানোর জন্যেই কি ইসরাইল এ যাত্রীবাহী বিমানটি ধ্বংস করে দিয়েছে? টুইটার বার্তায় একই প্রশ্ন তুলেছেন, ম্যাক্স ওইডন। তিনি লিখেছেন, ইউক্রেনের আকাশে ক্ষেপণাস্ত্র আঘাতে ধ্বংস হয়েছে ফ্লাইট এমএইচ-১৭ এবং হামাসের বিরুদ্ধে স্থল অভিযান শুরু করেছে ইসরাইল; এই দুইয়ের মধ্যে কি কোনো সম্পর্ক আছে?